কাপ্তাইয়ে জেন্ডার বৈষম্য ও বাল্য বিবাহ প্রতিরোধ বিষয়ক মতবিনিময়য় সভা

॥ কাপ্তাই প্রতিনিধি ॥

কাপ্তাই উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তারিকুল আলম বলেন, ১৮ বছরের আগে বিয়ে হলে একজন মেয়ের মৃত্যুঝুঁকি অনেক গুন বেড়ে যায়, অপরিণত বয়সে বিবাহ স্বাস্হ্যহানি ঘটে।

সামাজিক নিরাপত্রার কারনে অনেক মেয়ের অভিভাবক তাদের মেয়েদের অল্প বয়সে বিয়ে দিয়ে থাকে, সেই ক্ষেত্রে হেডম্যান, কার্বারী এবং গ্রাম পুলিশদের দায়িত্বশীলতার সাথে এই সব বিষয়ে দায়িত্ব পালন করতে হবে।

তিনি বলেন জেন্ডার বৈষম্য মানুষের সৃষ্ট, সরকার প্রতিটি ক্ষেত্রে নারী পুরুষের সমান অধিকার প্রতিষ্ঠা করেছে। তিনি রবিবার কাপ্তাই উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে জেন্ডার বৈষম্য ও বাল্য বিবাহ প্রতিরোধ বিষয়ক কাপ্তাই উপজেলার রাইখালী ও চিৎমরম মৌজার হেডম্যান, কার্বারী এবং গ্রাম পুলিশদের সাথে মতবিনিময় সভায় সভাপতির বক্তব্যে একথা বলেন।

কাপ্তাই উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে চন্দ্রঘোনা খ্রিস্টিয়ান হাসপাতাল, হিল ফ্লাওয়ার ও আরএইচস্টেপ এর সহযোগীতায় চন্দ্রঘোনা খ্রিস্টিয়ান হাসপাতালের কমিউনিটি হেলথ্ প্রোগামের প্রোগাম অফিসার বিজয় মার্মার সঞ্চালনায় মতবিনিময় সভায় অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন উপজেলা পরিষদ ভাইস চেয়ারম্যান সুব্রত বিকাশ তংচংগ্যা, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান নুরনাহার বেগম, চন্দ্রঘোনা খ্রিস্টিয়ান হাসপাতালের উপ-পরিচালক ডা: প্রবীর খিয়াং, আরএইচস্টপ এর উপজেলা ম্যানেজার মুশফিকুর রহমান এবং হিলফ্লাওয়ার এর প্রজেক্ট ডিরেক্টর জ্যোতি বিকাশ চাকমা। মতবিনিময় সভায় শুরুতে বাল্যবিবাহ বিষয়ক ২ টি ভিডিও চিত্র প্রদর্শন করা হয়।