একজন নিবেদিত প্রান শিক্ষকের গল্প

॥ ঝুলন দত্ত-কাপ্তাই ॥

কাপ্তাই উপজেলার রাইখালি রিফিউজি পাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক মাহবুবে ইলাহী। একজন সৎ, আর্দশবান, নিবেদিত প্রান শিক্ষক।

প্রকৃতপক্ষে যিনি সবসময় ক্লাসে ছাত্রদের নিজের সন্তান মনে করেন। পরীক্ষার আগে ও পরে যিনি ছেলেমেয়েদের খোঁজ নেন। দূর্বল ছাত্রদের প্রতি তিনি বাড়তি মনযোগ দেন। ক্লাসে তিনি সবসময় দেশকে ভালোবাসতে, সৎ থাকতে পরামর্শ দেন।

শিক্ষাকে কখনোও তিনি বানিজ্য মনে করেন না। তিনি মনে করেন প্রাথমিক স্তর থেকে ছাত্র ছাত্রীদেরকে আর্দশ নাগরিক হিসাবে গড়ে তুলতে পারলে, দেশ উন্নত হবে,দেশে সুনাগরিকের সংখ্যা বৃদ্ধি পাবে। এমন একজন নিবেদিত প্রান শিক্ষককে সম্মাননা প্রদান করলো কাপ্তাই উপজেলা প্রশাসন।

গত ১২ জানুয়ারী বৃহস্পতিবার উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে কাপ্তাই উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তারিকুল আলম শিক্ষক মাহবুবে ইলাহীর হাতে ক্রেস্ট, সনদপত্র এবং নগদ ২ হাজার টাকা তুলে দেন। এসময় কাপ্তাই উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান দিলদার হোসেন, সাবেক উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান অংসুইচাইন চৌধুরী সহ প্রশাসনের কর্মকর্তারা উপস্হিত ছিলেন।

কাপ্তাই উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তারিকুল আলম এই প্রতিবেদককে জানান, প্রকৃত পক্ষে একজন আর্দশ শিক্ষকের সমস্ত গুনাবলী শিক্ষক মাহবুবে ইলাহীর মধ্যে আছে।

যিনি জ্ঞানদানকে নিজের জীবনের ব্রতী মনে করেন। সবসময় ছাত্রছাত্রীদের খবর নেন, শুধুমাত্র ক্লাস রুমে তাঁর শিক্ষা বিস্তার কার্যক্রম সীমাবদ্ধ নয়, তিনি বাড়ী বাড়ী গিয়ে শিক্ষার্থীদের খবর নেন, পিছিয়ে পড়া ছাত্রছাত্রীদের বাড়তি যত্ন নেন।

শিক্ষার্থীদের সৎ ও দেশকে ভালোবাসতে অনুপ্রানিত করেন। এই প্রসঙ্গে রিফিউজি পাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক তপন কান্তি দে জানান, মাহবুবে ইলাহী সবসময় দিনের কাজ দিনে শেষ করেন, সময়মতো ক্লাসে আসেন, ক্লাসে পাঠদান পদ্ধতি অবলম্বন করেন। তিনি সবসময় আন্তরিকতার সাথে ক্লাস করান।

অনুভূতি জানতে চাইলে শিক্ষক মাহবুবে ইলাহী বলেন, তিনি প্রথমে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছেন জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর নিকট, যিনি প্রাথমিক শিক্ষাকে জাতীয়করণ করেছেন এবং মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নিকট যিনি প্রাথমিক মানের শিক্ষাকে সর্বোচ্চ পর্যায়ে নিয়ে গেছেন।

তিনি বলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভিশন ২০৪০ বাস্তবায়নের তিনি একজন সৈনিক হিসাবে কাজ করে চান। মাহবুবে ইলাহী কাপ্তাই উপজেলা প্রশাসন, শিক্ষা বিভাগ, স্কুলের প্রধান শিক্ষক সর্বোপরি তাঁর পিতামাতার প্রতি কৃতজ্ঞতা জানান।