খাগড়াছড়িতে সন্ত্রাসীদের গুলিবর্ষণ: এলাকায় আতঙ্ক

॥ নিজস্ব প্রতিবেদক ॥

খাগড়াছড়ি সদরের স্বণির্ভর বাজারে আধিপত্য বিস্তার ও এলাকা দখলে নিতে প্রকাশ্যে গুলিবর্ষণের ঘটনা ঘটেছে।

এতে কেউ হতাহত না হলেও আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে স্থানীয় এলাকাবাসীর মধ্যে। মঙ্গলবার দুপুরে বাজারের উত্তর পাশের রাবার কারখানা এলাকা ও চেঙ্গী নদীর পশ্চিম পাড় এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় ইউপিডিএফ ও নবসৃষ্ট্ ইউপিডিএফ গণতান্ত্রিকের মধ্যে গোলাগুলির অভিযোগ করলেও তা অস্বীকার করেছে প্রসীত বিকাশ খীসা নেতৃত্বাধীন ইউপিডিএফ।

গত কয়েকদিন ধরে মূখোশ বাহিনী (ইউপিডিএফ গণতান্ত্রিক নামে আত্ম প্রকাশ কারী) দলের স্বশস্ত্র সন্ত্রাসীরা অবস্থান নিয়ে এলাকায় আতঙ্ক সৃষ্টি, ভয়ভীতি প্রর্দশন, চাঁদাদাবী, হুমকির বিষয়ে প্রশাসনকে অভিযোগ করেন তাদের বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি বলে উল্টো অভিযোগ আনেন ইউপিডিএফ সমর্থিত গণতান্ত্রিক যুব ফোরামের কেন্দ্রীয় সভাপতি ও ইউপিডিএফ সংগঠক অংগ্য মারমা। তিনি এ ঘটনার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে জড়িতদেও আটকের দাবী জানান।

এ সময় তিনি বলেন, সাধারণ মানুষের মাঝে আতঙ্ক সৃষ্টি করে উদ্দেশ্য প্রণোদিত ভাবে এ ঘটনা ঘটিয়েছে। তারা এলাকায় প্রকাশ্যে গুলিবর্ষণ করে পালিয়ে গেলেও তাদের বিরুদ্ধে প্রশাসন কোন ধরণের ব্যবস্থা নিতে ব্যর্থ বলে উল্লেখ করে তিনি।

প্রত্যক্ষদর্শীরা বলেন, হঠাৎ করে রাবার কারখানা এলাকার ঐদিকে গুলির শব্দ শোনা যায়। তার কিছুক্ষণ পরে নদীর পশ্চিম পাড় থেকেও গুলির শব্দ আসে। বাজারের ক্রেতা বিক্রেতার মাঝে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়লে বিজিবিরা এসে উদ্ধার করে নিয়ে যায়। ঘটনার পর থেকে বাজারের সবক’টি ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রয়েছে।

খাগড়াছড়ি-পানছড়ি আঞ্চলিক সড়কে যানবাহন চলাচল স্বাভাবিক থাকলেও সন্দেহভাজন ব্যক্তি ও পরিবহনে তল্লাশি করছে পুলিশ ও বিজিবি। ঘটনার পর খবংপুড়িয়া ও স্বর্ণিভর এলাকায় অভিযান চালায় যৌথবাহিনী।

খাগড়াছড়ি সদর থানার অফিসার ইনচার্জ(ওসি) সাহাদাত হোসেন টিটো বলেন, আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে স্বণির্ভর বাজারে অর্ধশত রাউন্ড গুলি বিনিময়ের ঘটনা ঘটে। এখনও পর্যন্ত কোন হতাহতের খবর পাওয়া যায়নি। আশপাশের এলাকায় যৌথবাহিনীর অভিযান চলছে। এবিষয়ে ইউপিডিএফ ও ইউপিডিএফ গণতান্ত্রিকের মুখপাত্রদের মুঠোফোনে কল করা হলেও সংযোগ পাওয়া যায়নি।

অপরদিকে- ইউনাইটেড পিপল্স ডেমোক্রেটিক ফ্রন্ট (ইউপিডিএফ) খাগড়াছড়ি জেলা ইউনিটের সংগঠক অনি চাকমা এক বিবৃতিতে দীঘিনালা উপজেলাধীন মেরুং ইউনিয়নে উজ্জ্বল কান্তি চাকমা ওরফে মার্শাল নামে সাবেক এক ইউপিডিএফ সদস্যকে গুলি করে হত্যার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন এবং অবিলম্বে হত্যাকারীদের গ্রেফতারের দাবি করেছেন।

হত্যার ঘটনায় জেএসএস সংস্কারবাদীদের দায়ি করে বলেন, সোমবার রাত আনুমানিক ৯টার দিকে ৫৫ বছর বয়ষ্ক মার্শালকে গুলছড়ি রাখাল মহাজন পাড়ার নিজ বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে গুলি করে হত্যা করা হয়। নিহতের পিতার নাম মৃত গৌতম বুজ্জে চাকমা। ইউপিডিএফ এর প্রচার ও প্রকাশনা বিভাগ নিরন চাকমা প্রেরিত এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে খুনের বিষয়টি নিশ্চিত করেন।