ব্রেকিং নিউজ

রাঙ্গামাটিতে আন্তর্জাতিক যোগ ব্যায়াম দিবস পালিত

॥ নিজস্ব প্রতিবেদক ॥

“সুস্থদেহ- সুস্থমন, মানবজীবনে সুস্থতায় ইয়োগা” এই শ্লোগানে বর্ণাঢ্য র‌্যালী যোগ ব্যায়াম চর্চা ও আলোচনাসভার মধ্য দিয়ে রাঙ্গামাটিতে বৃহস্পতিবার (২১জুন) আন্তর্জাতিক যোগ ব্যায়াম দিবস পালন করা হয়েছে। দিবসটি উপলক্ষ্যে রাঙ্গামাটি জেলা ইয়োগা এসেসিয়েশন এর উদ্যোগে সকালে একটি র‌্যালী বের করা হয়। জেলা প্রশাসক কার্যালয় সামনে থেকে র‌্যালীটি শুরু হয়ে শহর প্রদক্ষিণ শেষে জিমনেসিয়াম প্রাঙ্গণে গিয়ে শেষ হয়ে আলোচনাসভায় মিলিত হয়।
রাঙ্গামাটি জেলা ইয়োগা এসেসিয়েশনের সভাপতি প্রকৃতি রঞ্জন চাকমা’র সভাপতিত্বে র‌্যালী ও আলোচনাসভায় প্রধান অতিথি হিসেবে রাঙ্গামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান বৃষ কেতু চাকমা। সভায় বিশেষ অতিথি হিসেবে পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের উপদেষ্টা মৌওলানা মোঃ শাহজাহান, জেলা ক্রীড়া সংস্থার সহ-সভাপতি প্রবীন সাংবাদিক সুনীল কান্তি দে, প্রাক্তন সিভিল সার্জন ডা. সুপ্রীয় বড়ুয়া, ইয়োগা এসেসিয়েশনের সাংগঠনি সম্পাদক দীলিপ নন্দী বক্তব্য রাখেন। স্বাগত বক্তব্য দেন ইয়োগা এসেসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক মোঃ আরফান আলী বক্তব্য রাখেন।
সভায় বক্তারা জানান, যোগ ব্যায়ামের প্রসারের ফলে শারীরিক ও আত্মিক উন্নয়ন সম্ভব। তাই শত ব্যস্ততার মাঝে কিছু সময় হলেও আমাদের যোগ ব্যায়াম করা উচিত। বক্তারা বলেন, একটি জাতি সুস্থ না থাকলে দেশ কখনো সুষ্ট থাকতে পারেনা। তাই শিশুকাল থেকেই তাদের যোগ ব্যায়ামের প্রতি আকৃষ্ট করতে হবে। বক্তরা বলেন, ব্যায়ামের ফলে মাদক থেকেও যুবদের দূরে রাখা সম্ভব।
অনুষ্ঠানে বিভিন্ন প্রকার যোগ ব্যায়ামের কৌশল উপস্থাপন করা হয়।
উল্লেখ, যোগ-মেডিটেশনের বহুমুখী মনোদৈহিক উপকারিতা বিবেচনা করে ২০১৫ সালে জাতিসংঘের ৬৯তম সাধারণ অধিবেশনে ২১ জুনকে ‘বিশ্ব যোগ দিবস’ হিসেবে পালনের সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। পৃথিবীর ১৭৫টি দেশ দিবসটি পালনে সমর্থন দেয়।
২০১৫ সালে প্রথমবারের মতো ‘বিশ্ব যোগ দিবস’ উদযাপিত হয় মহাসমারহে। দিবসটি উদযাপনকালে মহাসচিব বান কি মুন যোগ মেডিটেশনে অংশ নিয়ে দিবসটিকে স্মরণীয় করে রেখেছেন। ওই দিন শ্রীলঙ্কার কলম্বোতে সহ¯্রাধিক মানুষ এবং ভারতের দিল্লীর রাজপথে ৪৫ হাজারের বেশি মানুষ যোগ মেডিটেশনে অংশ নিয়েছিল। কোয়ালামপুর, স্কটল্যান্ড, লন্ডন, ওয়াশিংটন ডিসি, ক্যালিফোর্নিয়াসহ বিশ্বের বিভিন্ন শহরে যোগ-মেডিটেশনের বিভিন্ন ইভেন্টে অংশগ্রহণের মধ্য দিয়ে দিনটি উদযাপিত হয়।