ব্রেকিং নিউজ

বাঘাইছড়ির দুর্গম পাহাড়ে গ্রামবাসীর জন্য নিরাপদ পানির ব্যবস্থা করে দিলো সেনাবাহিনী

॥ মো: ওমর ফারুক সুমন ॥

রাঙ্গামাটি জেলার বাঘাইছড়ি উপজেলার সাজেক ইউনিয়নের দুর্গম ভাইবোন ছড়া এলাকায় বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর  লাইটনিং টুয়েলভ ১২ বীর বাগাইহাট জোনের সৌজন্যে শতাধিক গ্রামবাসীর জন্য নিরাপদ পানির ব্যাবস্থা করা হয়েছে। সেনাবাহিনীর ১২ বীর বাগাইহাট জোনের অন্তর্গত শহীদ মুশফিক ছড়া আর্মি ক্যাম্পের ইনচার্জ ক্যাপ্টেন মো: রাবীব উপস্থিত থেকে দূর্গম উত্তর ভাইবোন ছড়া গ্রামবাসীর হাতে একটি গভীর নলকুপ স্থাপনের যাবতীয় মালামাল ও প্রয়োজনীয় সরঞ্জামাদি বিতরণ করেন।

এসময় এলাকার স্থানীয় জনসাধারণ ও মুরব্বীগণ উপস্থিত ছিলেন। নলকুপসহ প্রয়োজনীয় মালামাল গ্রহন করতে আসা তপন চাকমা (৪০) নামে এক গ্রামবাসী বলেন, আমরা দীর্ঘদিন নিরাপদ পানির সংকটে ছিলাম। ছড়া, ঝিড়ি, ও নদীর পানি ব্যবহার করতাম ফলে প্রতিনিয়তই নানাবিধ রোগব্যাধির সাথে সংগ্রাম করে জীবন অতিবাহিত করতে হতো। সেনাবাহিনী আমাদের পাশে দাড়িয়ে আমাদের যে নিরাপদ পানির ব্যাবস্থা করে দিয়েছে তাই আমরা গ্রামবাসী সেনাবাহিনী এবং বাগাইহাট জোনের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি।

উল্লেখ্য যে দুর্গম ভাইবোন ছড়ায় পাঁচ কিলোমিটারের মধ্যে কোন বিদ্যালয় না থাকায়  গত বছরের ২৭ অক্টোবর নবাগত বর্তমান জোন অধিনায়ক লেঃ কর্ণেল মো: গোলাম আজম এর উপস্থিতে তৎকালীন বাগাইহাট সেনা জোনের উদ্দ্যেগে মুশফিক ছড়া আর্মি ক্যাম্পের সেনাসদস্যদের নিজেস্ব শ্রমে উত্তর ভাইবোন ছড়ায় “বীর উত্তম এম,এ গাফফার হালদার ” নামে একটি সু-বিশাল প্রাথমিক বিদ্যালয় তৈরিকরে দেয়া হয়। এ ছাড়াও বিদ্যালয়ে দুইজন শিক্ষক নিয়োগ দেয়াসহ প্রায় ৩০ জোড়া আসবাবপত্র তৈরি করে প্রদান করা হয় এবং বিদ্যালয়টির নামে দিঘিনালা সোনালী ব্যাংকে একটি সঞ্চয়ী হিসাব নং (একাউন্ট) খুলে নগদ ২৩ হাজার টাকা জমা দেয়হয়।

সেই সাথে বিদ্যালয়টি সরকারী সুযোগ সুবিধার আওতায় না আসা পর্যন্ত সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে  নিয়মিতভাবে আর্থিক অনুদান প্রদানসহ বাচ্চাদের ড্রেস, বই পুস্তক প্রদান করা হবে বলে ঘোষণা দেয়া হয়। ফলে দুর্গম এলাকাটি ধীরে ধীরে আলোর মূখ দেখতে শুরু করেছে।
নাজুক যোগাযোগ ব্যবস্থাকে এলাকাটির উন্নয়নের অন্তরায় হিসেবে দেখা হয়,  তাই দ্রুত গতিতে যোগাযোগব্যবস্থার প্রসার ঘটাতে পারলে দুর্গম এলাকাটির চিত্র রাতারাতি পরিবর্তন ঘটবে বলে স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরা মনে করেন।