ব্রেকিং নিউজ

নানিয়াচরে উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান অপহরণের ঘটনায় ইউপিডিএফের নিন্দা ও প্রতিবাদ

॥ প্রেস বিজ্ঞপ্তি ॥

ইউনাইটেড পিপল্স ডেমোক্রেটিক ফ্রন্ট (ইউপিডিএফ) রাঙামাটি জেলা ইউনিটের প্রধান সংগঠক শান্তিদেব চাকমা ২০ জুলাই ২০১৮ শুক্রবার এক বিবৃতিতে রাঙামাটির নানিয়াচরে সাবেক্ষ্যং ইউনিয়নের চেয়ারম্যান পাড়ার নিজবাড়ি থেকে সাবেক নানিয়াচর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান প্রীতিময় চাকমাকে অপহরণের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ এবং অবিলম্বে তাকে উদ্ধারে তড়িৎ ও কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণের দাবি জানিয়েছেন।

বিবৃতিতে ইউপিডিএফ নেতা অপহরণকারীদের কঠোর ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করেন এবং ঘটনার বর্ণনা দিয়ে বলেন, বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে সেনা-সৃষ্ট নব্য মুখোশবাহিনী ও জেএসএস সংস্কারবাদীর সশস্ত্র দুর্বৃত্তরা তাকে অপহরণের পর ইঞ্জিনচালিত বোটে করে সন্ত্রাসী-আস্তানা মহালছড়ি উপজেলার মুবাছড়ির দিকে নিয়ে যায়।

শান্তিদেব চাকমা পার্বত্য চট্টগ্রামে অশান্তি সৃষ্টির জন্য সংস্কার-নব্যমুখোশত্রয়ীকে দায়ি করে বলেন, গত বছর ১৫ নভেম্বর নব্য মুখোশবাহিনী নামে একটি সন্ত্রাসী গোষ্ঠীকে জন্ম দেয়ার পর থেকেই বিভিন্ন এলাকায় খুন, অপহরণ, মুক্তিপণ আদায় ও চাঁদাবাজির ঘটনা অবিরামভাবে ঘটে চলেছে।

তিনি শাসকগোষ্ঠীর বিরুদ্ধে সংস্কারবাদী ও নব্য মুখোশবাহিনীকে দিয়ে ইউপিডিএফ-এর নেতৃত্বে পরিচালিত গণতান্ত্রিক গণআন্দোলন দমনের অভিযোগ করেন এবং অবিলম্বে জুম্ম দিয়ে জুম্ম ধ্বংসের জঘন্য ষড়যন্ত্র বন্ধের দাবি জানান।

সম্প্রতি নব্য মুখোশবাহিনী ও সংস্কারবাদী জেএসএস থেকে স্বাভাবিক জীবনে ফিরে কয়েকজন সদস্য কর্তৃক গোপন তথ্য ফাঁসকরে দেয়ার ঘটনা উল্লেখ করেই উপিডিএফ নেতা বিষ্ময় প্রকাশ করে বলেন, দেশের সংবিধান ও আইনের বলে প্রতিষ্ঠিত বাংলাদেশ নিরাপত্তাবাহিনীর কতিপয় কর্মকর্তা কীভাবে নিরীহ লোকজন খুন করতে নব্য মুখোশবাহিনী ও সংস্কারবাদীদের কাছে অস্ত্র ও গোলাবারুদ সরবরাহ করতে পারে!

তিনি অবিলম্বে কতিপয় নিরাপত্তাবাহিনী কর্তৃক সন্ত্রাসীদের অস্ত্র ও গোলাবারুদ সরবরাহের ঘটনার নিরপেক্ষ তদন্ত ও এর সাথে জড়িতদের কঠোর শাস্তিপ্রদানের দাবি জানান।