আঞ্চলিক দলের ক্রমবর্ধমান চাঁদাবাজির পরও বাঘাইছড়িতে জমে উঠছে পশুর হাট

॥ মো: ওমর ফারুক সুমন ॥

মুসলমানদের বৃহৎ ধর্মীয় অনুষ্টান কোরবানির ঈদ ও হিন্দু ধর্মাবলম্বী মানুষদের আসন্ন কালীপূজাকে সামনে রেখে জমে উঠেছে পশুর হাট, বাঘাইছড়ি পৌরসভার অস্থায়ী পশুর হাটে তিল ধারণের ঠাই নেই নানা প্রজাতির গবাদিপশুতে পরিপূর্ণ।  ৮ আগষ্ট বুধবার সরজমিনে পরিদর্শন করে এই দৃশ্য চোখে পড়ে।  দেখা যায় উপজেলার প্রায় ৮ টি ইউনিয়ন থেকেই লোকজন তাদের পশু বিক্রির জন্য বাজারে তুলেছেন,  পর্যাপ্ত পরিমাণ পশুর সমাগম থাকলেও নেই আশানরুপ  ক্রেতা।

প্রথম বাজার হওয়ায় এখনো লোকজন তেমন আসা শুরু হয়নি বলে মত প্রকাশ করেন বাঘাইছড়ি পৌরসভার মেয়র জাফর আলি খান, তবে ভিন্নকথা বলছেন বাজার ইজারাদার কর্তৃপক্ষ বাজার ইজারাদার আব্দুর রহমান বলেন বাজারে বাহিরের ব্যবসায়ী না আসার কারণে লোকজন অনেকআংশেই কম, বাহিরের ব্যবসায়ী কেন আসছেনা জানতে চাইলে আব্দুর রহমান বলেন আঞ্চলিক দলের ক্রমবর্ধমান চাঁদাবাজির কারণে বাহির থেকে ব্যবসায়ীরা আসতে চায়না, কেও একবার আসলে পরে আর আসেনা।

চাদাবাঁজির দৌরাত্ম্য কমাতে প্রশাসনের পক্ষ থেকে নানা ব্যবস্থা গ্রহণ করা হলেও নীরবেই চাদাবাঁজি চলে বলে জানান ইজারাদার।
চাদাবাঁজির ব্যাপারে বাঘাইছড়ি থানার এসআই মাসুদ বলেন চাদাবাঁজির বিষয়ে আমরা লোকমূখেই শুনি কিন্তুু আমাদের কাছে কেও অভিযোগ নিয়ে আসেনা,  তবে বাজারে আমাদের নিয়মিত টহল রয়েছে।