খাগড়াছড়ির মানিকছড়িতে সেনাবাহিনীর বিনামূল্যে চক্ষু চিকিৎসা ক্যাম্প পরিচালনা

॥ খাগড়াছড়ি প্রতিনিধি ॥

পার্বত্য চট্টগ্রামে শান্তি, সম্প্রীতি আর উন্নয়নের লক্ষ্যেকে সামনে রেখে পাহাড়বাসীর কল্যানে নিরলস ভাবে কাজ করছে বাংলাদেশ সেনাবাহিনী।

পাহাড়ের আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতির পাশাপাশি জনকল্যান ও পাহাড়বাসীর আর্থ সামাজিক উন্নয়নে কাজ করার ধারাবাহিকতায় চক্ষু সেবা ক্যাম্প পরিচালনা করেছে খাগড়াছড়ির ১৪ ফিল্ড রেজিমেন্ট আর্টিলারি সিন্দুকছড়ি জোনের সেনা সদস্যরা।
সকালে জেলার মানিকছড়ি উপজেলার রানী নিহার দেবী উচ্চ বিদ্যালয় প্রাঙ্গনে অনুষ্ঠিত বিনামূল্যে চক্ষু চিকিৎসা ক্যাম্পে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে চক্ষু শিবির উদ্ভোধন করেন ২৪ আর্টিলারি ব্রিগেড ও গুইমারা রিজিয়ন কমান্ডার ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মোঃ রকিব উদ্দিন খান।

এসময় তিনি বলেন, প্রত্যেন্ত অঞ্চলের গরীব ও অসহায় রোগীদের কথা চিন্তা করেই চিকিৎসা ক্যাম্প পরিচালনা করা হয়েছে, তাছাড়া গরীব ও অসহায়দের বিনামূল্যে সামান্য চিকিৎসা দিতে পারাটাই আমাদের সার্থকতা, যার ধারাবাহিকতা ভবিষ্যতেও অব্যাহত থাকবে বলে জানান তিনি।

বিনামূল্যে চক্ষু চিকিৎসা ক্যাম্পে অন্যান্যদের মধ্যে আরো উপস্থিত ছিলেন ১৪ ফিল্ড রেজিমেন্ট, সিন্দুকছড়ি জোন অধিনায়ক লেঃ কর্ণেল রুবায়েত মাহমুদ হাসিব, জোন উপ-অধিনায়ক মেজর তৌহিদ সালাহ উদ্দিন, সেনাবাহিনীর চিকিৎস ক্যাপ্টেন মাহমুদুল হাসানসহ সামরিক কর্মকর্তাগণ।

১৪ ফিল্ড রেজিমেন্ট আর্টিলারি সিন্দুকছড়ি জোনের আয়োজনে ও বাংলাদেশ ইন্সটিটিউট অব কমিউনিটি অফথালমোলজি (বিকা) ও কুমিল্লা চক্ষু হাসপাতাল’র সহায়তায় সকাল ৮ টা থেকে দুপুর ১টা পর্যন্ত চলা বিনামূল্যে চিকিৎসা ক্যাম্পে মানিকছড়ি উপজেলা ছাড়াও প্বাশ্ববর্তী গুইমারা, রামগড় ও লক্ষীছড়ির প্রত্যেন্ত অঞ্চলের গরীব ও অসহায় রোগীরা চিকিৎসা নিতে আসেন।

এছাড়া সাধারণ রোগীদের চিকিৎসা সেবা প্রদান করেন সিন্দুকছড়ি জোনের আর এম ও ক্যাপ্টেন মাহমুদুল হাসানসহ সেনা সদস্যরা।

এদিকে চক্ষু চিকিৎসা নিতে আসা বেশ কয়েকজন পাহাড়ী-বাঙ্গালী রোগী, সেনাবাহিনীর এমন মহৎ উদ্যেগের প্রশংসা করে ভবিষ্যতেও সেনাবাহিনীর কাছ থেকে আরো বেশী বেশী জনকল্যাণমূলক কাজ আশা করেন বলে জানিয়েছেন।
দেশ, দেশের মানুষের কল্যানে কাজ করে ইতিমধ্যেই বাংলাদেশ সেনাবাহিনী বিশ্বাস জুগিয়েছেন এমনটা দাবি করে স্থানীয়রা আশাবাদ ব্যক্ত করে বলেন, ভবিষ্যতেও সেনাবাহিনী সম্প্রীতির ধারা বজায় রেখে বিশ্ব দরবারে মাথা উচু করে জানান দেবে দেশ ও নিজ সংস্থার মান।