ব্রেকিং নিউজ

যত্রতত্র কোরবানী দেওয়া রোধে প্রয়োজনে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করা হবেঃ মেয়র আকবর

॥ অালমগীর মানিক ॥

জনস্বাস্থ্য ও শহর পরিচ্ছন্ন রাখার স্বার্থে পর্যটন নগরী রাঙামাটিতে কোরবানীর পশু যত্রতত্র জবাই না করে পৌরসভার নির্দিষ্ট স্থানে পশু কোরবানী দেওয়ার জন্য পৌরবাসীকে আহবান জানিয়েছেন রাঙামাটি পৌরসভার মেয়র আকবর হোসেন চৌধুরী। তিনি বলেন, আমরা চাই ঈদের আনন্দঘন সময়ে শহরবাসী যেন কষ্টে না পড়ে। কোরবানী দিন শেষ হওয়ার আগেই বর্জ্য অপসারণে পৌর কর্তৃপক্ষ যাবতীয় প্রস্তুতি গ্রহণ করেছে জানিয়ে মেয়র বলেন, রাঙামাটি পৌরসভার পরিচ্ছন্নকর্মীরা সঠিক সময়ে কোরবানীর বর্জ্য পরিস্কার করতে এলাকায় অবস্থান করবে।

এই মহতি কাজে তিনি রাঙামাটি নগরবাসীকে সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেওয়ার আহবান জানিয়ে বলেন, জেলা কমিটির সিদ্ধান্ত মোতাবেক রাঙামাটি পৌরসভা শহরের ৪৪টি স্থানকে পশু কোরবানীর জন্য নির্ধারণ করেছে। নির্দিষ্ট স্থান ছাড়া পশু কোরবানী দিলে মালিক পক্ষকে এর দায় দায়িত্ব নিতে হবে বলে তিনি জানান। তিনি এও জানান যে, যত্রতত্র কোরবানী দেওয়ার সংস্কৃতি রোধে প্রয়োজনে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করা হতে পারে। আসন্ন ঈদ উল আযহা ঘিরে পৌরসভা সোমবার (১৩ আগষ্ট) রাঙামাটি শহরে পশু কোরবানী ও বর্জ্য ব্যবস্থাপনা বিষয়ে সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময় কালে মেয়র এ কথা বলেন।

মতবিনিময় সভায় রাঙামাটি পৌরসভার কাউন্সিলার কালায়ন চাকমা, প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক ও দৈনিক রাঙামাটির সম্পাদক আনোয়ার আল হক, রিপোর্টাস ইউনিটির সভাপতি সুশীল প্রসাদ চাকমা, সাংবাদিক ফোরাম সভাপতি নন্দন দেবনাথসহ অন্যান্য সংবাদকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

মেয়র বলেন, শহরের বর্জ ব্যবস্থাপনা পরিস্কারে রাঙামাটি পৌরসভার সেবকরা প্রস্তুত রয়েছে। নির্দিষ্ট্যস্থানে যদি পশু কোরবানী দেয়া হয় তাহলে পরিস্কার পরিচ্ছন্ন করতে আমাদের বেগ পেতে হবে না। আমরা একটি দুর্গন্ধ মুক্ত শহর তৈরীতে যত দ্রুত ব্যবস্থা নিতে চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি।

কোরবানী ঘিরে পৌরসভার পক্ষ থেকে এলাকায় এলাকায় ব্যাগ বিতরণ করা হবে জানিয়ে মেয়র বলেন, আমরা প্যান্ডেল করে দিব, ব্যাগ দিব এবং নির্দিষ্ট সময়ে বর্জ্য সরিয়ে নিব জনগণের কাছে শুধু সহযোগীতা চাই। ঈদের আগেই পৌরসভার পক্ষ থেকে এ বিষয়ে একটি লিফলেট প্রকাশ করা হয়েছে। লিফলেট নিম্নরূপঃ

আপনি নিশ্চয় জানেন যে, আসন্ন ঈদ-উল-আযহার পবিত্রতা রক্ষায় এবং পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন রাঙ্গামাটি গড়ার লক্ষ্যে সরকারি নির্দেশনার আলোকে রাঙ্গামাটি পৌর এলাকার পশু জবেহর জন্য কতিপয় সুনির্দিষ্ট স্থান নির্ধারণ করা হয়েছে। আসুন আমরা সকলে সরকার নির্ধারিত স্থানে পশু জবেহ করি এবং জবেহ শেষে বর্জ্য অপসারণে ভূমিকা রাখি ও পৌর কর্তৃপক্ষকে সহায়তা করি।

নির্ধারণ করে দেওয়া ৪৮ স্থান হলোঃ

০১ নং ওয়ার্ডের জন্য নির্ধারিত স্থানঃ (১) মহসিন কলোনী-কাচা সওদাগরের বাসার পাশে (২) পোড়া পাহাড় (৩) শুটকি পট্টি (৪) পুরান পাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পাশের মাঠ (৫) ইসলামপুর পাশের মাঠ (৬) শরীয়তপুর টিলা।

০২ নং ওয়ার্ডের জন্য নির্ধারিত স্থানঃ (১) শহীদ আবদুর শুক্করু স্টেডিয়াম (২) বায়তুশ শরফ মাঠ প্রাঙ্গণ। ০৩ নং ওয়ার্ডের জন্য নির্ধারিত স্থান ঃ (১) ডি এস বি কলোনী মাঠ (২) পুনাক মসজিদ সংলগ্ন (৩) পুলিশ লাইন মাঠ।

০৪ নং ওয়ার্ডের জন্য নির্ধারিত স্থানঃ (১) দক্ষিণ বালিকা বিদ্যালয়েন পাশের মাঠ (২) অভিলাষ ক্রিকেট ক্লাব মাঠ (৩) ধনমিয়া স’মিল সংলগ্ন মাঠ (৪) দুদক অফিসের পাশের মাঠ (৫) পাবলিক কলেজ মাঠ (৬) উকিল রশিদের বাসার সামনে (৭) বিজিবি গেইট সংলগ্ন মসজিদের পাশের মাঠ।

০৫ নং ওয়ার্ডের জন্য নির্ধারিত স্থানঃ (১) স্বর্ণটিলা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পাশের মাঠ (২) আসামবস্তি হাসিমুল সুন্নাহ মাদ্রাসার পাশের মাঠ (৩) আসামবস্তি নারিকেল বাগান (৪) রশীদের (রইশ্যা) মাঠের পাশে।

০৬ নং ওয়ার্ডের জন্য নির্ধারিত স্থানঃ (১) হেলিপ্যাড মাট (শিমুলতলি, রুপনগর) (২) মুসলিপাড়া মাঠ (৩) সড়ক ও জনপথের কারখানার পিছনে ভেদভেদী টিএন্ডটি মাঠ (৪) শিমুলতলী রেডিও সেন্টার সংলগ্ন পুলিশ চেকপোস্ট।

০৭ নং ওয়ার্ডের জন্য নির্ধারিত স্থানঃ (১) বাস টার্মিনাল এলাকা (শান্তি নগর) (২) পৌরসভা সংলগ্ন মাঠ (৩) ফরেস্ট কলোনী খেলার মাঠ (৪) গোড়াউন সংলগ্ন কাঠালতলী মাঠ (৫) স’মিল আলিফ মাকের্ট এলাকা (৬) কাঠালতরী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পাশের মাঠ (৭) মুজাদ্দেদ-ই-আলফেসানী একাডেমী স্কুল মাঠ (৮) নার্সারী মাঠ।

০৮ নং ওয়ার্ডের জন্য নির্ধারিত স্থানঃ (১) চম্পক নগর মাঠ (২) এফপিএবি মাঠ (৩) জিমনেসিয়ামের পিছরে মাঠ (৪) এফ.ডব্লিউ.ভি.ট.আই মাঠ, চম্পকনগর (৫) পাবলিক হেলথ মাঠ।

০৯ নং ওয়ার্ডের জন্য নির্ধারিত স্থানঃ (১) রাঙ্গামাটি সরকারি কলেজ পাশের মাঠ (২) গোধুলী আমানতবাগ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পাশের মাঠ (৩) টিটিসি কলোনী মাঠ (৪) রাঙ্গামাটি সদর হাসপাতাল এলাকা মাঠ (৫) আমানতবাগ মাদ্রাসার মাঠ।