ব্রেকিং নিউজ

পাহাড়ের পর্যটনশিল্পে নতুনমাত্রা নিয়ে এলো পানছড়ির মায়াকানন পার্ক

॥ খাগড়াছড়ি প্রতিনিধি ॥

খাগড়াছড়ি জেলাস্থ পানছড়ি উপজেলা প্রশাসনের নাকের ডগার মাঝেই গড়ে উঠেছে অপরুপ সৌন্দর্য়ের একটি পার্ক। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মুহাম্মদ আবুল হাশেমের তুলির আচড় আর শৈল্পিক কারুকাজে এই বিনোদন কেন্দ্রটি সেজে উঠেছে নব বধুর সাজে। যেন শিল্পীর সেই গানটি সুরে সুরে গাইছে “ লাল, নীল, সবুজের কত মালা দেখেছি সব রং যেন তোমারি কাছে তুচ্ছ, তুমি যেন আমায় রাঙিয়ে দিয়েছ”। আসলেও তাই। যেখানে পানছড়ির সুন্দর মনের মানুষগুলো ছিল বিনোদনহীন সেই মানুষগুলোর মাঝে আজ যেন বইয়ে দিয়েছে খুশীর জোয়ার। যার হাতেই মায়াবীনি আর মায়াকাননের আত্মপ্রকাশ।

পার্বত্য শরণার্থী বিষয়ক চেয়ারম্যান (প্রতিমন্ত্রী পদমর্যদা) ও খাগড়াছড়ি আসনের সাংসদ কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরা ২৭ আগষ্ট সোমবার বিকাল ৫টায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে লাল ফিতা কাটার সাথে সাথেই আবাল-বৃদ্ধ-বনিতারা দোল খাচ্ছে দোলনায়। মায়াকাননের রূপমাধুরী দেখে সন্তোষ প্রকাশ করেন প্রধান অতিথি। অতিথি গিয়ে বসেন মায়া কাননের অন্যতম আকর্ষন “চেংগী রিভার ভিউ ক্যাপে”। মজার মজার খাবারের স্বাদ গ্রহন করে তিনি তৃপ্তির ঢেকুর তোলেন। তিনি পার্কটিকে আধুনিকায়নের জন্য বিশেষ বরাদ্ধ দেয়ার আশ্বাস প্রদান করেন।

এ সময় পানছড়ি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মুহাম্মদ আবুল হাশেম’র সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, জেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা রণ বিক্রম ত্রিপুরা, জেলা পরিষদ সদস্য ও জেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক নির্মলেন্দু চৌধুরী, পার্বত্য জেলা পরিষদ সদস্য এডভোকেট আশুতোষ চাকমা, সতীশ চন্দ্র চাকমা, খগেশ্বর ত্রিপুরা, মংক্যাচিং চৌধুরী, জুয়েল ত্রিপুরা, পানছড়ি থানা অফিসার ইনচার্জ মো: মিজানুর রহমান, খাগড়াছড়ি সদর উপজেলার সাবেক চেয়ারম্যান শানে আলম, পানছড়ি উপজেলার প্যানেল চেয়ারম্যান মো: লোকমান হোসেন, জেলা যুবলীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি মেহেদি হাসান হেলাল, মহিলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও কেন্দ্রীয় সদস্য বাসন্তী দেওয়ান, জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সভানেত্রী ক্র চাই মারমা, পানছড়ি উপজেলা আওয়ামীলীগ সভাপতি মো: বাহার মিয়া, সাধারণ সম্পাদক জয়নাথ দেব, ৩নং পানছড়ি ইউপি চেয়ারম্যান মো: নাজির হোসেন প্রমূখ। এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন, পানছড়ি উপজেলা ছাত্রলীগ সভাপতি শ্রীকান্ত দেব মানিক, খাগড়াছড়ির বিভিন্ন ইলেকট্রনিক ও প্রিন্ট মিডিয়ায় কর্মরত সাংবাদিকবৃন্দসহ স্থানীয় বিভিন্ন পর্যায়ের সুধীবৃন্দ।