সন্ত্রাসী-অস্ত্রবাজদের বিরুদ্ধে ভোট দিতে মুখিয়ে আছে পাহাড়ের মানুষ : দীপংকর তালুকদার

॥ আলমগীর মানিক ॥

দীর্ঘদিন যাবৎ জিম্মি থাকার পর অস্ত্রবাজদের বিরুদ্ধে নিজেদের ভোটাধিকার প্রয়োগের জন্য মুখিয়ে আছে পাহাড়ের মানুষ। অস্ত্রধারীদের হাতে পাহাড়ের মানুষ আর জিম্মি থাকতে চায় না, মানুষের পিঠ দেয়ালে ঠেকে গেছে মন্তব্য করে সাবেক পার্বত্য প্রতিমন্ত্রী ও বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য দীপংকর তালুকদার বলেছেন, আমরা সেদিন আর দূরে নয়, এমন একটা সময় আসছে পাহাড়ের জনগনই অস্ত্রধারী ও চাঁদাবাজদের বিরুদ্ধে গণপ্রতিরোধ গড়ে তোলার প্রস্তুতি নিচ্ছে। জনসাধারণের চাহিদার প্রেক্ষিতে তাদের ভোটাধিকার নিশ্চিত করতে হলে পার্বত্য চট্টগ্রামে চলমান অস্ত্র উদ্ধার অভিযান অব্যাহত রাখার আহবান জানিয়েছেন তিনি।

বুধবার বিকেলে রাঙামাটিস্থ নিজ বাসভবনে স্থানীয় গণমাধ্যমকর্মীদের সাথে আলাপকালে জনাব তালুকদার এসব মন্তব্য করেন। তিনি বলেন, মানুষ বাক স্বাধীনতা চায়, গনতান্ত্রিক অধিকার চায় কিন্তু অবৈধ অস্ত্রধারীরা মানুষের বাক-স্বাধীনতা হরণ করছে, যাদের অধিকার হরণ করছে তারাই (সাধারণ জনগণ) এখন প্রতিবাদ ও প্রতিরোধ গড়ে তুলবে।

তিনি আরো বলেন, ২০১৪ সনে নির্বাচনে ভোটারদেরকে ভয়-ভীতি দেখিয়ে হত্যার হুমকি দিয়ে হাতি মার্কায় ভোট দিতে বাধ্য করেছিলো, কিন্ত এবার জনগন আগের মত বসে থাকবে না, বাঁধা এলে প্রতিরোধ গড়ে তুলবে। সময় ঘনিয়ে আসছে অস্ত্রধারী সন্ত্রাসীরা পালাবার পথ খুঁজে পাবে না।

পাহাড় থেকে অবৈধ অস্ত্র উদ্ধার করা নাহলে আসন্ন জাতীয় নির্বাচনে পাহাড়ে ভোট ডাকাতি করার চেষ্ঠা চালাবে সন্ত্রাসীরা। এই লক্ষ্যে আপামর রাঙামাটিবাসীকে ভোট ডাকাতদের বিরুদ্ধে সজাগ থাকার আহবান জানিয়েছেন রাঙামাটি জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি দীপংকার তালুকদার। অস্ত্রবাজদের বিরুদ্ধে ইতিমধ্যেই পাহাড়বাসী সজাগ হতে শুরু করেছে মন্তব্য করে দীপংকর তালুকদার বলেন, এমন সময় আসবে পাহাড়ে অস্ত্রধারীদের ঝাড়ু দিয়ে তাড়াবে অত্রাঞ্চলের সাধারণ মানুষ।

তিনি বলেন, ‘আমরা ভোট ডাকাতি করতে চাই না। জনগণের ভোটেই নির্বাচন করতে চাই মন্তব্য করে পাহাড়ের প্রভাবশালী এই রাজনীতিবিদ বলেন, গত নির্বাচনে ৫৩টি ভোট কেন্দ্রে আঞ্চলিক দল অস্ত্রের মুখে ভোট ডাকাতি করেছে।’ সময় ঘনিয়ে আসছে অস্ত্রধারী সন্ত্রাসীরা পালাবার পথ খোঁজে পাবেনা। আগামী নির্বাচনে তারা আর ভোট ডাকাতি করতে পারবেনা। কারন মানুষ আগের চেয়ে অনেক সচেতন। ভোট ডাকাতি প্রতিরোধসহ সন্ত্রাসী কর্মকান্ড বন্ধে পার্বত্যাঞ্চলে অবৈধ অস্ত্র উদ্ধার অভিযান আরো জোরদার করতে হবে।

আগামী নির্বাচনে অবৈধ অস্ত্র উদ্ধারে অভিযান চলমানের পাশাপাশি আসন্ন নির্বাচনে যাতে করে ভোটার আইডি কার্ড ব্যবহারের মাধ্যমে ভোটগ্রহণ নিশ্চিত করার দাবিও জানিয়েছেন দীপংকর তালুকদার। তিনি বলেন, ‘সময় ঘনিয়ে আসছে অস্ত্রধারী সন্ত্রাসীরা পালাবার পথ খুঁজে পাবে না। আগামী নির্বাচনে তারা আর ভোট ডাকাতি করতে পারবে না। কারণ মানুষ আগের চেয়ে অনেক সচেতন হয়েছে। এবার তা করতে দেবে না সাধারণ জনগণ।

সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে আওয়ামীলীগের এই নেতা বলেন, ‘রাঙামাটির আওয়ামীলীগ যাকে চায় তাকেই মনোনয়ন দেবে কেন্দ্রীয় আওয়ামীলীগ। তবে আমি শতভাগ আশাবাদী এ আসন থেকে আমাকেই মনোনয়ন দেবেন। সরকারের কাছে আমরা বার বার দাবি করে আসছি, অবৈধ অস্ত্র উদ্ধারে ব্যবস্থা নিতে। কিন্তু সরকার একটু ধীর গতিতেই এগুচ্ছে।’ কেন্দ্রীয় আওয়ামীলীগের এই নেতা বলেন, এখানে উন্নয়ন করতে গেলে আঞ্চলিক দলগুলোর অস্ত্রেও মুখে উন্নয়ন বাঁধাগ্রস্ত হয়।’ আগামীতে আবারো আওয়ামীলীগ ক্ষমতায় গেছে এখানে পর্যটন শিল্পের উপর গুরুত্ব দিয়ে কাজ করা হবে।

এসময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক হাজী মুছা মাতব্বর, দপ্তর সম্পাদক রফিকুল ইসলাম তালুকদার, প্রচার সম্পাদক মমতাজ উদ্দিন, জেলা আওয়ামী লীগ নেতা ও সাবেক উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান জাকির হোসেন, জেলা আওয়ামীলীগের প্রচার সম্পাদক রফিকুল মাওলা, আর্ন্তজাতিক ও গবেষণা সম্পাদক অভয় প্রকাশ চাকমাসহ আরো অনেকেই এসময় উপস্থিত ছিলেন।