সন্ত্রাসী-চাঁদাবাজী পার্বত্যাঞ্চলের উন্নয়নের বড় বাঁধাঃ ব্রিঃ জেঃ সাজেদুল ইসলাম

॥ খাগড়াছড়ি প্রতিনিধি ॥

সন্ত্রাসী-চাঁদাবাজী পার্বত্যাঞ্চলের উন্নয়নের বড় বাঁধা উল্লেখ করে গুইমারা রিজিয়ন কমান্ডার ব্রিগেডিয়ার জেনারেল এ কে এম সাজেদুল ইসলাম বলেছেন, বস্তুনিষ্ঠ সাংবাদিকতার মাধ্যমে সমাজের আমূল পরিবর্তন সম্ভব জানিয়ে পার্বত্য চট্টগ্রামে সম্প্রদায়িক সম্প্রীতি রক্ষার ক্ষেত্রে সাংবাদিকদের লেখনী গুরুত্বপূর্ণ এবং অসত্য ও অপপ্রচার সে সম্প্রীতি নষ্ট করতে পারে।

রবিবার (১৬সেপ্টেম্বর) সকাল ১১টায় গুইমারা রিজিয়ন কনফারেন্স রুমে গুইমারা, মাটিরাঙ্গা, রামগড়, মানিকছড়ি ও লক্ষ্মীছড়িসহ ৫ উপজেলায় কর্মরত পেশাজীবি সাংবাদিকদের সাথে মত বিনিময়কালে এসব কথা বলেন তিনি। এ সময় তিনি আরো বলেন, বর্তমান সময়ে পার্বত্য চট্টগ্রামে বিরাজমান শান্ত পরিবেশকে নষ্ট করতে একটি স্বার্থান্বেষী কু-চক্রীমহল বিভিন্ন ধরণের অপপ্রচার চালিয়ে যাচ্ছে।

তাদের ব্যাপারে সজাগ থেকে শান্তি ও সম্প্রীতি রক্ষায় ভুমিকা রাখাসহ পার্বত্য চট্টগ্রামের উন্নয়নে সাংবাদিকদের ভূমিকা রাখতে অনুরোধ জানান তিনি। সে সাথে বাংলাদেশ পার্বত্যাঞ্চলে নিরাপত্তা ও শান্তি প্রতিষ্ঠায় পাহাড়ে সেনাবাহিনী নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে বলে তিনি মন্তব্য করেন।

পাহাড়ে বিভিন্ন সন্ত্রাসীদের চাঁদাবাজি ও সন্ত্রাসী কার্যকলাপ কোনোভাবেই সহ্য করা হবে না মন্তব্য করে কমান্ডার বলেন, কঠোর হস্তে সন্ত্রাসীদের দমন করে পার্বত্য চট্টগ্রামে বসবাসরত বিভিন্ন জাতিসত্ত্বার মানুষের শান্তি প্রতিষ্ঠায় সেনা বাহিনীর লক্ষ্য। দেশের সার্বভৌমত্ব রক্ষায় সর্বোচ্চ ত্যাগ স্বীকার করতে সেনাবাহিনী সবসময় প্রস্তুত বলেও তিনি উল্লেখ করেন।

এছাড়াও পেশাজীবি সাংবাদিকদের দায়িত্ব পালনের ক্ষেত্রে সার্বিক সহযোগীতার আশ্বাস দিয়ে সকলের সমান অংশগ্রহণে সুন্দর সমাজ বিনির্মাণে একযোগে কাজ করতে সাংবাদিকদের প্রতি আহবান জানিয়ে গুইমারা রিজিয়ন কমান্ডার। সে সাথে আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে সেনাবাহিনী বিভিন্ন কার্যক্রম পরিচালনা করছে এবং আগামীতেও অব্যাহত থাকবে বলে তিনি জানান।

এসময় গুইমারা রিজিয়নের বিএম মেজর ফাহিম মোনায়েম হোসেন, জিএসওটু মেজর মঈনুল আলম, জিএসওটু মোহাম্মদ পারভেজ সহ ৫ উপজেলায় কর্মরত বিভিন্ন মিডিয়ার সাংবাদকর্মীরা এতে উপস্থিত ছিলেন।