বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদ রাঙ্গামাটি জেলা কমিটিকে অবৈধ ঘোষণা করে সনাতন নেতৃবৃন্দের স্মারকলিপি!

॥ নিজস্ব প্রতিবেদক ॥

রাঙ্গামাটি জেলার ৪০ টি দূর্গাপূজা মন্ডপের পক্ষ থেকে মেয়াদোত্তীর্ণ বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদ রাঙ্গামাটি জেলা কমিটি (অমর কুমার দে ও পঞ্চানন ভট্টাচার্য্য) এর প্রতি অনাস্থা জানিয়ে রাঙ্গামাটি জেলা প্রশাসক বরাবরে স্মারকলিপি প্রদান করেছেন মন্দিরের নেতৃবৃন্দ।

বুধবার (১৯ সেপ্টেম্বর) রাঙ্গামাটি জেলা প্রশাসক এ,কে,এম মামুনুর রশিদের বরাবরে স্মারলিপিতে নেতৃবৃন্দ বলেন, রাঙ্গামাটি জেলা পূজা উদযাপন পরিষদের অধীনে সকল কার্যক্রম পরিচালনার করার ইচ্ছা পোষন করেন। এছাড়া এই নেতৃবৃন্দ জেলা প্রশাসককে এই অবৈধ কমিটির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের দাবী জানান।

বুধবার জেলা প্রশাসক কার্যালয়ে সনাতন সম্প্রদায়ের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতৃবৃন্দ এবং রাঙ্গামাটি জেলা পূজা উদযাপন কমিটির নব নির্বাচিত সভাপতি বাদল চন্দ্র দে সাধারণ সম্পাদক স্বপন মহাজন, রাঙ্গামাটি জেলা পরিষদ সদস্য ত্রিদীব কান্তি দাশ, পরিষদ সদস্য স্মৃতি বিকাশ ত্রিপুরা, রাঙ্গামাটি জেলা অটোরিক্সা চালক কল্যাণ সমিতির সভাপতি ও সনাতন সম্প্রদায়ের বিশিষ্ট ব্যক্তিত্ব পরেশ মজুমদার, দেবব্রত চৌধুরী কুমকুম সহ কমিটির অন্যান্য নেতৃবৃন্দরা উপস্থিত ছিলেন।
স্মারকলিপিতে নেতৃবৃন্দ বলেন, বিগত ৭ বছর অতিবাহিত হলেও এই কমিটি এখনো পর্যন্ত কোন নতুন কমিটি করার উদ্যোগ গ্রহণ করেনি। মেয়াদ উত্তীর্ণ এই কমিটি সত্যিকারার্থে মঠ-মন্দির তথা সনাতনী সম্পদায়ের প্রতিনিধিত্ব করে না এবং তারা নিজেরাই কোন মন্দিরের সাথে যুক্ত নয়। এছাড়া খাগড়াছড়ি ও বান্দরবান জেলায় পূজা উদযাপন পরিষদের কোন কমিটি বা কার্যক্রম নেই।

অবৈধ এই কমিটি দীর্ঘ ৯ বছর ধরে কোন হিসাব পত্র সাধারণ সদস্যদের জ্ঞাত করে নাই। এছাড়া সরকারের উন্নয়নের সহযোগী বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে নিজেদের হীন স্বার্থ ব্যবহার করে নিজেদের উন্নয়ন করেছে। এছাড়া এই কমিটির রাঙ্গামাটির কোন মঠ মন্দিরের সাথে কোন ধরনের যোগাযোগ রাখে না। শুধুমাত্র পূজা আসলেই গম চালের ভাগ গ্রহণের জন্য নেতৃত্ব জাহির করে।

এছাড়া রাঙ্গামাটি জেলা পূজা উদযাপন কমিটি রাঙ্গামাটির বিভিন্ন মঠ মন্দিরের সাথে যোগাযোগ করে এই জেলার মঠ মন্দিরের উন্নয়নে বিভিন্ন সরকারের উন্নয়ন সহযোগী প্রতিষ্ঠানের সাথে যোগাযোগ করে মঠ মন্দিরের উন্নয়নে কাজ করে যাচ্ছে। তাই আমরা অবৈধ বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদকে বয়কট করছি এবং রাঙ্গামাটি জেলা পূজা উদযাপন কমিটির অধীনেই আসন্ন শারদীয়া দূর্গোৎসব করার জন্য সম্মতি জ্ঞাপন করছি। তাই আপনিও এই অবৈধ কমিটিকে কোন প্রকার সহযোগিতা না করার জন্য অনুরোধ জানাচ্ছি।