ভ্রাতৃঘাতী সংঘাত পরিহার করে ধর্মীয় চেতনার মাধ্যমে ঐক্যবদ্ধ হোনঃ বৃষ কেতু

॥ স্মৃতিবিন্দু চাকমা – জুরাছড়ি ॥

জুরাছড়ি শলক এলাকাবাসীর উদ্যোগে প্রতি বছরের ন্যায় এবছরও রাঙ্গামাটি রাজবন বিহারে চতুর্দশ সর্বজনীন মহাসংঘদান অনুষ্ঠিত হয়েছে। উক্ত অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন রাঙ্গামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান বৃষকেতু চাকমা, পার্বত্য চট্রগ্রাম উন্নয়ন বোর্ডের সদস্য আশীষ বড়ুয়া, জুরাছড়ি কৃতি সন্তান বিএনপি কেন্দ্রীয় সহ-ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক এ্যাডঃ দীপেন দেওয়ান, নাগরিক কমিটির সভাপতি সাবেক স্থানীয় সরকার পরিষদের চেয়ারম্যান গৌতম দেওয়ান, জুরাছড়ি উপজেলা চেয়ারম্যান উদয়জয় চাকমা জেলা পরিষদ সদস্য জ্ঞানেন্দু বিকাশ চাকমা, জুরাছড়ি ভাইস চেয়ারম্যান রিটন চাকমা প্রমূখ।

অনুষ্ঠানে সতীশ শংকর চাকমার পরিচালনায় ধর্মীয় সংগীত পরিবেশন করেন পূর্ণিমা চাকমা, পঞ্চশীল প্রার্থনা করেন প্রচারক চাকমা। এতে উদযাপন কমিটির আহব্বায়ক জগৎ জ্যোতি চাকমা স্বাগত বক্তব্যের মধ্য দিয়ে বিশেষ প্রার্থনা পাঠ করেন ধলকুমার চাকমা। জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান বৃষকেতু চাকমা হতাশা প্রকাশ করে বলেন,বর্তমানে পার্বত্য চট্রগ্রামে আঞ্চলিক দলীয় সংগঠন গুলো জাতির অস্থিত্ব রক্ষার নামে ভ্রাতৃত্ব সংঘাত জিয়ে রেখেছে। পার্বত্য চট্রগ্রামে সাধরণ জনগণ এদের কাছে জিম্মি এজন্য এই সংঘাত পরিহার করে ধর্মীয় চেতনার মাধ্যমে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার অনুরোধ করেন।

এ্যাডঃ দীপেন দেওয়ান বলেন, বর্তমানে পার্বত্য এলাকায় বিভিন্ন গুজব ছড়িয়ে পড়েছে, ঐসব গুজবে কান না দিয়ে জাতির ক্লান্তি লগ্নে ধর্মীয় মূল্যবোধের মাধ্যমে একত্রিত হতে হবে। সাবেক স্থানীয় সরকার পরিষদের চেয়ারম্যান গৌতম দেওয়ান বলেন,নিজেদের অস্থিত্ব রক্ষার্থে ভ্রাতৃত্ব সংঘাত পরিহার করে যেকোন কিছু সমস্যা হলে ধৈর্য্য সহকারে মোকাবেলা করার জন্য উপস্থিত সকলের কাছে অনুরোধ জানান। পরে রাঙ্গামাটি রাজবন বিহারের অধ্যক্ষ প্রজ্ঞালংকার মহাস্থবির, জ্ঞানপ্রিয় মহাস্থবির আগত হাজারো পূণ্যার্থীদের মাঝে বুদ্ধের অমৃতময় স্বধর্ম দেশনা প্রদান করেন।উল্লেখ্য বিশ্ব শান্তি প্যাগোডা নির্মাণের জন্য এ্যাডঃ দীপেন দেওয়ান ১লক্ষ ২ হাজার টাকা নগদ প্রদান করেন।