বালুখালীতে ২’শ শিক্ষার্থীর হাতে স্কুল ড্রেসসহ শিক্ষা উপকরণ তুলে দিলেন জেলা প্রশাসক 

॥ আলমগীর মানিক ॥

প্রাথমিক শিক্ষার পাশাপাশি শিশুর সুস্বাস্থ্য রক্ষার ব্যাপারে শিক্ষক ও অভিভাবকদের সচেতন হওয়ার আহবান জানিয়েছেন পার্বত্য জেলা রাঙামাটির জেলা প্রশাসক একেএম মামুনুর রশিদ। তিনি বলেন, “সুস্বাস্থ্য নিশ্চিত হলে মেধা বিকাশে তা সহায়ক হবে।”

সোমবার দুুপুরে শহরের কাপ্তাই হ্রদের ওপারে বালুখালি ইউনিয়নাধীন দুটি প্রাথমিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ২শতাধিক কোমলমতি শিক্ষার্থীর মাঝে স্কুল ড্রেস, ছাতা ও অন্যান্য শিক্ষা উপকরণ বিতরণ কর্মসূচী শেষে আয়োজিত অভিভাবক সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে জেলা প্রশাসক একেএম মামুনুর রশিদ আরো বলেন, শিশুদের স্বাস্থ্যের প্রতি নজর রেখে তাদের মেধা বিকাশে সহায়ক পদক্ষেপগুলো সঠিকভাবে বাস্তবায়ন করতে পারলেই কোমলমতি শিশুদের মানসিক বিকাশ পরিপূর্নভাবে পরিস্ফুতিত হবে।

পাহাড়ের দূর্গমাঞ্চলের শিশুদের প্রাথমিক শিক্ষা নিশ্চিতে বর্তমান সরকার তথা রাঙামাটি জেলা প্রশাসন অত্যন্ত আন্তরিক মন্তব্য করে জেলা প্রশাসক আরো বলেন, বর্তমান সরকার শিক্ষা বান্ধব সরকার। এ সরকারের আমলে দেশের শিক্ষা ব্যবস্থায় ব্যাপক উন্নতি হয়েছে। মানসম্মত শিক্ষার উন্নয়নে যা কিছু করার প্রয়োজন বর্তমান সরকার তা করে যাচ্ছে। আর এই কারনে শিক্ষাখাতে সর্বোচ্চ বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। তারই ধারাবাহিকতায় পাহাড়ের শিশুদের সুশিক্ষা নিশ্চিতে প্রয়োজনীয় সবরকমের সহযোগিতা করছে রাঙামাটির জেলা প্রশাসন।

জেলা প্রশাসক সোমবার সকাল সাড়ে দশটায় বালুখালী ইউনিয়ন সফরে গিয়ে সেখানকার হেমন্ত সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে দুর্গম পার্বত্য অঞ্চলে শিক্ষার প্রসার, মানসম্মত শিক্ষা, শিক্ষার্থীদের সুবিধা-অসুবিধাসহ সার্বিক বিষয়ে আয়োজিত অভিভাবক সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন। পরে বসন্ত মইন সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ও কাইন্দ্যামুখ সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ছাত্র-ছাত্রীদের মাঝে স্কুল ড্রেস, ছাতা ও অন্যান্য শিক্ষা উপকরণ বিতরণ করেন জেলা প্রশাসক একেএম মামুনুর রশিদ। এসময় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন রাঙামাটি সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অরুন চাকমা, সদর ইউএনও মোছাঃ সুমনী আক্তার।

এরপর জেলা প্রশাসক একই ইউনিয়নের দূর্গম শীলছড়ি এলাকায় পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ডের আইসিডিপি প্রকল্পের মাধ্যমে পরিচালনাধীন পাড়া কেন্দ্রটি পরিদর্শন করেন এবং সেখানে পাঠরত কোমলমতি শিক্ষার্থীদের সাথে কিছুক্ষণ সময় কাটিয়ে তাদের পড়ালেখার সার্বিক খোঁজ খবর নেন তিনি।

এদিকে জেলা প্রশাসক বালুখালী সফরকালীন সময়ে কাইন্দ্যামুখ কমিউনিটি ক্লিনিকটি সরেজমিনে পরিদর্শনে যান। সেখানকার এলাকাবাসীর সাথে কথা বলে উক্ত ক্লিনিকের সার্বিক সেবার মান সম্পর্কে খোঁজ খবর নেন।