মহাসপ্তমীতে মানিকছড়ি মন্ডপে মন্ডপে ভক্তের ঢল!

॥ মানিকছড়ি প্রতিনিধি ॥

১৬ অক্টোবর দূগোৎসবের মহাসপ্তমী। তাই পার্বত্য মানিকছড়ির পূজা মন্ডপগুলোতে ভক্ত ও দর্শানার্থীদের পদচারণায় মূখরিত। সনাতন সম্প্রদায়ের পাশাপাশি বাঙ্গালী-অবাঙ্গালী নারী-পুরুষ,বৃদ্ধ-বনিতা,যুবক-যুবতী সকলের সমাগমে সম্প্রীতির চিরচেনা রুপ স্মরণ করিয়ে দেয় বাংলার আথিতেয়তাকে।

সরেজমিনে ঘুরে দেখা গেছে, সনাতন সম্প্রদায়ের সর্বশ্রেষ্ট উৎসব দূর্গাপূজাকে ঘিরে মানিকছড়ি উপজেলার তিনটি পূজামন্ডপ মানিকছড়ি কেন্দ্রীয় রাজ শ্যামা কালি মন্দির, তিনটহরী শ্রী শ্রী কালী মন্দির ও উপজেলার অনগ্রসর জনপদ একসত্যা পাড়া শ্রী শ্রী রাধাকৃষ্ণ মন্দিরে জমকালো আয়োজনে চলছে দূর্গোৎসব। ১৬ অক্টোবর, মঙ্গলবার দূর্গোৎসবের মহাসপ্তমী।

পড়ন্ত বিকালে উপজেলার আনাচে-কানাচে থাকা সনাতনী ভক্ত ও পুজারীরা দলে দলে পূজা মন্ডপগুলোতে আসতে ভূল করেনি কেউ। ভক্ত-পূজারী ছাড়াও জনপ্রতিনিধি, সাংবাদিক, প্রশাসনিক কর্মকর্তা, পুলিশ কর্মকর্তা সকলেই মন্ডপে মন্ডপে উপস্থিত ছিলেন। সন্ধ্যা সাড়ে ৬টায় তিনটহরী মন্দিরে গিয়ে দেখা গেছে, ভক্তরা দলে দলে পূজা মন্ডপে এসে আরাধনা করছে। এ সময় অতিথি মঞ্চে উপস্থিত ছিলেন, অফিসার ইনচার্জ মুহাম্মদ রশীদ, উপজেলা যুব উন্নয়ন কর্মকর্তা মো.শহীদুল্লাহ, ভারপ্রাপ্ত ইউপি চেয়ারম্যান মো. বাহার মিয়া, উপজেলা প্রেস ক্লাব সাধারণ সম্পাদক ও উপজেলা দুর্নীতি প্রতিরোধ কমিটির সদস্য সচিব আবদুল মান্নান, মানিকছড়ি গিরিমৈত্রী সরকারি ডিগ্রী কলেজের শরীরচর্চা শিক্ষক মো.মনির হোসেন, উপজেলার ঐতিহ্যবাহী ক্রীড়া সংগঠন একতা যুব সংঘের সভাপতি এস.এম নাছির উদ্দীন, বিশিষ্ট ব্যবসায়ী ডা.দ্বীপন কর্মকারসহ অতিথিরা মন্দির পরিদর্শন করছেন । এ সময় পূজা উদযাপন কমিটির সভাপতি রানা পাল ও সাধারণ সম্পাদক কাঞ্চন কান্তি নাথ অতিথিদের স্বাগত জানান।

সন্ধ্যা ৭টায় উল্লেখিত অতিথিরা উপস্থিত হন উপজেলার অনগ্রসর জনপদ একসত্যা পাড়া শ্রী শ্রী রাধাকৃষ্ণ মন্দিরে। সেখানে গেলে পূজা উদযাপন কমিটির সভাপতি বাহাদুর দাশ ও সাধারণ সম্পাদক নারায়ন চন্দ্র নাথ অতিথিদের অর্ভ্যথনা জানান। পূজা মন্ডপ ঘুরে দেখা গেছে, বিশাল মাঠ জুড়ে সামিয়ানার(প্যান্ডেল)নীচে জমকালো আয়োজনে আধুনিকতার ছোঁয়ার আসনে দেবী বসানো হয়েছে। চারিপাশে দূর্গোৎসবকে স্বাগত জানিয়ে ব্যানার ফেষ্টুন লাগিয়েছে জনপ্রতিনিধি, রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ ও শুভানুধ্যায়ীরা। এতে সনাতন সম্প্রদায় সত্যিই যেন অভিভূত, আনন্দিত।