কর্মস্থলে না থাকা প্রা: শিক্ষক বিপু কর্তৃক নির্যাতন-হয়রানীর প্রতিবাদে রাঙামাটিতে সংবাদ সম্মেলন

॥ নিজস্ব প্রতিবেদক ॥

সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে চাকুরি করেও নিজ কর্মস্থলে উপস্থিত নাথেকে রাঙামাটিতে অবৈধ পারমিট বাণিজ্যের সাথে সম্পৃক্ত ফারুক আহম্মেদ তালুকদার বিপু কর্তৃক অত্যাচার নির্যাতন ও মিথ্যা অপপ্রচার বন্ধে প্রতিকার চেয়ে সংবাদ সম্মেলন করেছে পুরানপাড়া এলাকাবাসী।

এলাকার বাসিন্দা এমাদুল ইসলাম ও ফারুক আহাম্মেদ এর নেতৃত্বে শহরের একটি রেষ্টুরেন্টে সোমবার দুপুরে এই সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে তারা বলেন, ২৭ অক্টোবর পুরানপাড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটি’র নির্বাচনকে কেন্দ্র করে মোজাফ্ফর আহম্মদ তালুকদারের ছেলে ফারুক আহম্মদ তালুকদার বিপু পুরানপাড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় কমিটির নির্বাচনকে বানচাল করার জন্য অভিভাবক নেজামুল হকের উপর ছুরিকাঘাত করে এবং ২৯ অক্টোবর মিথ্যা ও বানোয়াট সংবাদ সম্মেলন করে অহেতুক হয়রানী করা হচ্ছে এলাকার বাসিন্দাদের।

সংবাদ সম্মেলনে সংশ্লিষ্ট্যরা অভিযোগ করে বলেন, পুরান পাড়ার জনৈক মোজাফ্ফর আহম্মদ আমাদের বিরুদ্ধে সংবাদ সম্মেলন করে সম্পূর্ণ মিথ্যা ও বানোয়াট বক্তব্য দিয়ে জনমনে বিভ্রান্ত ছড়াচ্ছে।
মোজাফ্ফর আহম্মদ তালুকদারের ছেলে ফারুক আহম্মদ বিপু পুরানপাড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির নির্বাচন বানচাল করার জন্য অভিভাবক নেজামুল হকের উপর ছুরিকাঘাত করে। যা ১নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর হেলাল উদ্দিনের সম্মুখে ঘটে এবং ওয়ার্ড কাউন্সিলর উক্ত ছোরাটি জব্দ করে পুলিশের কাছে হস্তান্তর করেন। বর্তমানে সে চিকিৎসাধীন আছে এবং এবিষয়ে থানায় মামলাও দায়ের করা হয়েছে। উক্ত ছুরিকাঘাতের ঘটনায় এলাকাবাসী ক্ষিপ্ত হয়ে মোজাফ্ফর আহম্মদ তালুকদারের ছেলে ফারুক আহম্মদ বিপুকে ধাওয়া দিয়ে স্কুল প্রাঙ্গণ থেকে সরিয়ে দেয়।

বক্তারা বলেন উক্ত মামলা থেকে নিজের বখে যাওয়া ছেলেকে বাঁচাতে, মোজাফ্ফর আহম্মদ সংবাদ সম্মেলনে বলেছেন, আমরা তার বাড়িতে গিয়ে তার উপর অতর্কিত হামলা চালিয়েছি এবং তাকেসহ তার পরিবারকে প্রাণে মেরে ফেলার হুমকি দিয়েছি। তা সর্ম্পূণ মিথ্যা বানোয়াট বক্তব্য। কারণ সেই দিন আমি রাঙামাটিতেই ছিলাম না। আমি সেইদিন ২৭ অক্টোবর চট্টগ্রামে একটি সমাবেশে যোগদান করার জন্য গিয়েছিলাম যার যথাযথ প্রমাণ আছে এবং ছবি আছে আমার কাছে।

সংবাদ সম্মেলনে বক্তারা আরো বলেন, গত ২৯ অক্টোবর সোমবার কোর্ট বিল্ডিং চত্বরে কাজীর ছেলে ফারুক আহম্মদ নাকি তাকে হত্যার হুমকি দিয়েছে এবং আমি এমমাদুল ইসলাম নাকি যা টাকা লাগবে তাকে দিব বলেছিলাম। যা সর্ম্পূণ মিথ্যা ও বানোয়াট বক্তব্য। কেননা আমি অমর কাজীর ছেলে ফারুক আহম্মদ এসিআই কোম্পানীতে চাকুরী করি এবং সেইদিন আমি কোম্পানী সিডিউল মোতাবেক রাঙামাটির অদুরে নানিয়ারচর উপজেলায় মাল সেল দিতে যাাই এবং রাত আনুমানিক ৮টার দিকে রাঙামাটি ফিরে আসি। তা হলে আমি কিভাবে তাকে হুমকি দিতে পারি। এতেই প্রমাণ হয় যে, তার ছেলেকে বাঁচানোর জন্য মুক্তিযোদ্ধা মোজাফ্ফর আহম্মদ তালুকদার মিথ্যা বানোয়াট সাংবাদিক সম্মেলন করে ঘটনা ধামাচাপা দিতে চেষ্টা করছেন।

এদিকে একই এলাকার অপর এক বাসিন্দা সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত হয়ে জানান, আমাকে সম্পূর্ন অন্যায়ভাবে নয় নাম্বার আসামী দিয়ে একটি মিথ্যা অভিযোগ দিয়েছে। এসময় তিনি কয়েকটি কাগজ, গাড়ির টিকেট, ব্যবসায়ি সমিতির টোকেন উপস্থাপন করে বলেন, শতভাগ নিশ্চিত করেই জানাচ্ছি ঘটনার দিন আমি রাঙামাটিতেই ছিলাম না। এটা সম্পূর্নভাবে মিথ্যার আশ্রয় নিয়ে ষড়যন্ত্রমূলক আমার নাম জড়ানো হয়েছে।

এদিকে, সংবাদ সম্মেলনে আয়োজকরা জানান, পুরান পাড়ার বাসিন্দা মোজাফ্ফর আহম্মদ তালুকদারের বড় ছেলে ফারুক তালুকদার বিপু মুক্তিযোদ্ধা কৌটায় প্রাথমিক শিক্ষকের চাকুরি নিয়ে বিগত এক দশক সময়কাল সে নিজ কর্মস্থল সাজেকে উপস্থিত থাকেনা। সে বর্তমানে রাঙামাটি শহরে উপস্থিত থেকে জেলা প্রশাসকের সই নকল করে অবৈধ পারমিট বাণিজ্য করছে। এছাড়াও শহরের মাদকসেবীদের সাথেও তার উঠাবসা রয়েছে। তিনটি বিয়ে করা ফারুক আহাম্মেদ তালুকদার বিপুর অত্যাচারে পুরানপাড়ার নারী-পুরুষ সকলেই অতিষ্ঠ উল্লেখ করে সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, এই ধরনের একজন সন্ত্রাসীর হাত থেকে প্রশাসনসহ সাংবাদিকদের এগিয়ে আসার আহবান জানিয়েছেন ভূক্তভোগি এলাকাবাসী।