কাউখালীতে ডাকাতির চেষ্টাকালে আহত ২

॥ কাউখালী প্রতিনিধি ॥

রাঙামাটি জেলার কাউখালী উপজেলার তারাবুনিয়া প্রত্যন্ত এলাকায় দরজা ভেঙ্গে ঘরে প্রবেশ করে নগদ ত্রিশ হাজার টাকা লুটে নিয়েছে ডাকাত দল। এসময় ডাকাত দলের লাঠির আঘাতে গৃহকর্তাসহ ২জন আহত হয়েছেন। সোমবার মধ্য রাতে উপজেলার কলমপতি ইউনিয়নের তারাবুনিয়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

সুত্র জানায়, আহতদের মঙ্গলবার সকালে কাউখালী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। পুলিশ ঘটনার সত্যতা স্বীকার করলেও এটিকে ডাকাতি ঘটনা হিসেবে মানতে নারাজ। আহতরা হলো তারাবনিয়ার মংচাথোয়াই মারমার ছেলে অংচিনু মারমা (৩০) ও তার মা পোংসাই মারমা (৬০)। গৃতকর্তা ও সাবেক মহিলা মেম্বার পোংসাই মারমা জানান, সোমবার রাত ১২টার সময় তারাবুনিয়া এলাকার চিহ্নিত ডাকাতদল তার বাড়ীর দরজা ভেঙ্গে ঘরের ভিতরে প্রবেশ করে অস্ত্রের মুখে অন্ধকারে তাদের সাবাইকে এলোপাথারি লাঠি পেটা করতে থাকে। এসময় আমি ঘরের বৈদ্যুতিক বাল্বব জালাতে গেলে তারা আমাকেও মারধর করে।

তিনি জানান, এসময় আমার ছেলে অংচিনু মারমা বাঁধা প্রদান করতে গেলে ডাকাতদল তাকে লাঠি দিলে উপর্যপুরী আঘাত করতে থাকে। এতে সে রক্তাক্ত হয়ে মেঝেতে লুটে পড়ে। এসময় ডাকাতদল ছেলে অংচিনু মারমার সাথে থাকা নগদ ৩০ হাজার টাকা লুটে নেয়। মধ্যরাতে তাদের চিৎকারে এলাকার লোকজন ছুটে আসলে ডাকাতদল পালিয়ে যায়।পোংসাই মারমা জানান, ডাকাতি করতে আসা সবাই ঐ এলাকার চিহ্নিত সন্ত্রাসী। তারা হলো পাইশিথুই মারমার ছেলে মংহ্লানু মারমা প্রকাশ কেবলা (৩০), তার ভাই অংসাচিং মারমা (২৬), একই এলাকার ক্যউচিং মারমার ছেলে পাইচামং মারমা (২৪), তোচামং মারমা (২৮), মংশিপ্রু মারমা (৩০), অংপাথোয়াই মারমার ছেলে উসাইমং মারমা (৩২), মনি মারমা (২৫)। ঘটনার সাথে জড়িতরা এলাকার চিহ্নিত সন্ত্রাসী হওয়ায়র পরও বিষয়টিকে সামাজিকভাবে বিষয়টি মিমাংশার চেষ্টা চালাচ্ছেন ঐ এলাকার সাবেক মেম্বার অংখ্যাচিং মারমা।

কাউখালী থানার ওসি মনজুর আলম জানান, এটি কোন ডাকাতির ঘটনা নয়। ঘটনার সাথে জড়িতদের সাথে গৃহকর্তা ও সাবেক মহিলা মেম্বারের পরিবারিক শত্রুতা থাকতে পারে। পুলিশ বিষয়টি খতিয়ে দেখে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করবে তিনি জানান।