পাহাড়ে একের পর এক নৌকায় উঠছে বিএনপিসহ বিভিন্ন দলের শ’শ নেতাকর্মী!

॥ আলমগীর মানিক ॥

টানা দুইদফা ক্ষমতায় থাকা আওয়ামীলীগের রাজনীতি শেষ মুহুর্তে এসে পার্বত্য জেলা রাঙামাটিতে নতুনভাবে আশার সঞ্চার করেছে। নানান সমীকরণের আবদ্ধে অনেকটা দোদল্যতায় থাকা আওয়ামীলীগের রাজনীতিতে শেষ মুহুর্তে এসে নতুন নতুন চমকের সৃষ্ঠি হচ্ছে।

ধারাবাহিকভাবে বিরোধীদলের নেতাকর্মীদের যোগদানে পাহাড়ে আবারো ঘুরে দাঁড়াতে শুরু করেছে স্বাধীনতার স্বপক্ষের অন্যতম প্রতিনিধিত্বকারী দল বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের রাজনীতি। বিগত কয়েক সপ্তাহজুড়েই রাঙামাটি আওয়ামীলীগে বিএনপি, জাতীয় পার্টিসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক মতাদর্শের অন্তত তিন হাজার নেতাকর্মী যোগ দেওয়ায় এবারের পাহাড়ের নির্বাচনে নতুন মাত্রা যোগ হয়েছে। নির্বাচনের ঠিক আগমুহুর্তে রাঙামাটিতে আবারো চমক দেখালেন পার্বত্যাঞ্চলের সংরক্ষিত আসনের নারী সংসদ সদস্য ফিরোজা বেগম চিনু। পুরোমাসজুড়েই রাঙামাটিতে নির্বাচনী প্রচার-প্রচারনা শেষে যখন সকলেই ভোটগ্রহণের প্রস্তুতি গ্রহণ করতে এগুচ্ছে ঠিক সেই মুহুর্তে এসে এমপি ফিরোজা বেগম চিনুর রাজনৈতিক কৌশলের কাছে আবারো ধাক্কা খেলো রাঙামাটির বিএনপি পরিবার।

দলটির নেতাদের স্বেচ্ছাচারিতায় নিজেদের অধিকার রক্ষায় আবারো রাঙামাটিতে আওয়ামীলীগের প্রার্থীকে জয়ী করতে আওয়ামীলীগে যোগ দিয়েছে অন্তত তিনশো নেতাকর্মী। শুক্রবার সন্ধ্যা রাতে শহরের ভেদভেদী এলাকায় ৬ নং ওয়ার্ড বিএনপির সাধারণ সম্পাদক বিশিষ্ট্য ব্যবসায়ি আজগর আলী সওদাগর ও সাংগঠনিক সম্পাদক মৃদুল বড়ুয়ার নেতৃত্বে ভেদভেদী ও মানিকছড়ি এলাকার অন্তত তিনশো নেতাকর্মী আওয়ামীলীগের রাজনীতিতে যোগদান করেছে বলে জানিয়েছেন জেলা আওয়ামীলীগের নেতৃবৃন্দ।

ভেদভেদীর স্থানীয় শেখ রাসেল স্মৃতি পাঠাগার ক্লাবে সাবেক পার্বত্য প্রতিমন্ত্রী ও রাঙামাটি জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি দীপংকর তালুকদারের হাতে নৌকা সদৃশ্য পুষ্পমাল্য তুলে দিয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে আওয়ামীলীগে যোগদান করে বিএনপির নেতাকর্মীরা।

উক্ত যোগদান অনুষ্ঠানে সংসদ সদস্য ফিরোজা বেগম চিনু, জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক হাজী মূছা মাতব্বর, জেলা আওয়ামীলীগের নেতা রফিকুল মাওলা, জেলা শ্রমিকলীগের সাধারণ শামসুল আলম, যুবলীগ নেতা লিটন বড়ুয়াসহ আওয়ামীলীগসহ অঙ্গ ও সহযোগি সংগঠন।

এসময় সংক্ষিপ্ত বক্তব্যে দীপংকর তালুকদার বলেন, দলের ফিফটি ফিফটি সময়ে আপনারা সবকিছুকে তুচ্ছ মনে করে আমাদের দলের পতাকাতলে এসেছেন। আমরা আপনাদেরকে আজ থেকে নিজেদের করে নিলাম। আপনাদের মাধ্যমেই আমরা আগামী ৩০শে ডিসেম্বর রাঙামাটিতে অনুষ্ঠিত হতে যাওয়া একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নৌকার ভোট পেয়ে আমরা এই আসনটি জননেত্রী শেখ হাসিনাকে উপহার দিতে পারবো বলে আমরা আশা করছি। দীপংকর তালুকদার বলেন, আপনারা কোনোভাবেই নিজেদেরকে ছোট ভাববেন না, অথবা মনে কষ্ট নিয়ে থাকবেন না। আমাদের নেতাকর্মীরা আপনাদের পাশে থাকবে আপনাদের বিপদে-আপদে ঝাপিয়ে পড়বে। আপনারা যোগদান করেই ভোট কেন্দ্রের বাইরে অবস্থান করলে হবেনা। ভোটের দিনের পরীক্ষার মাধ্যমেই আপনারা আওয়ামীলীগের প্রকৃত বন্ধু হিসেবে বিবেচিত হবেন বলেও মন্তব্য করেছেন পাহাড়ের কৌশলী রাজনীতিবিদ দীপংকর তালুকদার।