বাঘাইছড়িতে জেএসএস কর্মী হত্যাকান্ডের ঘটনায় উঃ চেঃ বড়ঋষি চাকমাকে আসামী করে অভিযোগ দায়ের!

নিজস্ব প্রতিবেদক

রাঙামাটির বাঘাইছড়ি উপজেলায় জেএসএস (সংস্কার) কর্মী বসু চাকমা হত্যা মামলার ঘটনায় নিহতের আত্মীয় প্রভাত কুসুম চাকমা বাদী হয়ে উপজেলা চেয়ারম্যান বড়ঋষি চাকমা ও জেএসএস সভাপতি প্রভাত কুমার চাকমা ওরফে কাকলী বাবু, জেএসএস সাবেক এমপির প্রতিনিধি ত্রিদিব চাকমাসহ ২৭ জনকে আসামী করে ও ৭ /৮ জনকে অজ্ঞাত আসামী করে অভিযোগ দায়ের করে। শনিবার (৫জানুয়ারী) বিকেলে বাঘাইছড়ি থানায় এ অভিযোগ দায়ের করা হয়। থানায় মামলা দায়েরের বিষয়টি বাঘাইছড়ি পুলিশ শিকার করেছে।

স্থানীয় প্রশাসন সূত্রে জানা গেছে- শনিবার বিকেলে বাঘাইছড়ি উপজেলা চেয়ারম্যান বড়ঋষি চাকমাকে প্রধান আসামী করে থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করা হয় । উক্ত অভিযোগে ২নং আসামী পলক বর্তমানে বাঘাইছড়ি পৌরসভার ৮নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর পদে আসীন রয়েছেন এবং ৩নং আসামী ত্রিদিব চাকমা বাঘাইছড়ি উপজেলা জেএসএসের সাংগঠনিক সম্পাদক। আরেকটি সূত্রে উক্ত অভিযোগে জেএসএস মূল দলের কর্মী আবিষ্কার চাকমা এবং বিস্তার চাকমার নামও রয়েছে বলে জানা গেছে। তারা সকলে জেএসএস মূল দলের সশস্ত্র কর্মী বলে সূত্রটি জানায়।

উল্লেখ্য, ৪ ডিসেম্বর শুক্রবার সন্ধ্যা পৌনে ৭টার সময় রাঙামাটির বাঘাইছড়িতে আঞ্চলিকদলীয় দু’গ্রুপের মধ্যে সংঘঠিত বন্দুকযুদ্ধে বসু চাকমা (৩৮) নামে এক পাহাড়ি যুবক নিহত হয়। নিহত বসু চাকমা জেএসএস (এমএন) লারমা গ্রুপের সদস্য বলে স্থানীয় সূত্রে জানা যায়। ঘটনার পরপরই নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যরা ঘটনাস্থলে গিয়ে নিহতের মরদেহসহ একটি বন্দুক, একটি এলজি ও ৯ রাউন্ড গুলির খোসা উদ্ধার করে।