ব্রেকিং নিউজ

পাহাড়ে আবারো বৃদ্ধি পেয়েছে সশস্ত্র তৎপরতাঃ বাঘাইছড়িতে ৯৮০ রাউন্ড গুলিসহ আটক ২

॥ ওমর ফারুক সুমন – আলমগীর মানিক ॥

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পরই আবারো উত্তপ্ত হয়ে উঠছে পাহাড়ের পরিবেশ। বিশেষত নির্বাচনের আগে বেশ কয়েকটি ভারী অস্ত্রের চালান আটক ও নির্বাচন পরবর্তী বাঘাইছড়িতে জেএসএস সংস্কার দলের কর্মীকে গুলি করে হত্যার পর প্রশাসন ও নিরাপত্তাবাহিনীর উদ্যোগে গোয়েন্দা নজরদারী জোরদার করা হয়।

তারই ধারাবাহিকতায় বাঘাইছড়ি উপজেলার ভারত সীমান্তবর্তী দূর্গম বাঘাইহাটে ৯ জানুয়ারী বুধবার বেলা সোয়া ১২টার সময় ৯৮০ রাউন্ড এসএমজির তাজা গুলিসহ উপজাতীয় দুই যুবককে আটক করে সাজেক থানা পুলিশ। যুবকদ্বয় হচ্ছে ১. কর্ণ মোহন ত্রিপুরা (২৬) পিতাঃ বিদ্যাজয় ত্রিপুরা, ২. সাগর ত্রিপুরা পিতাঃ মনা ত্রিপুরা। 

সাজেক থানার অফিসার ইনচার্জ নুরুল আনোয়ার ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানিয়েছেন, আমরা গোপন সংবাদের ভিত্তিতে মোটর সাইকেল(মোটর বাইক নং খাগড়াছড়ি হ ১১-৪৭৯১) আরোহী উক্ত দুই যুবককে চ্যালেঞ্জ করে তাদের দেহ তল্লাশী করলে কর্ণ মোহন ত্রিপুরার দেহে বিশেষভাবে রক্ষিত ৯৮০ রাউন্ড এসএসজির তাজা গুলি পাওয়া যায়। বর্তমানে আটককৃত কর্ণ মোহন ও সাগর ত্রিপুরাকে থানায় জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে এবং তাদের বিরুদ্ধে অস্ত্র ও বিস্ফোরক দ্রব্য আইনে মামলা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।

প্রসঙ্গত, চলতি মাসের ৪ তারিখে বাঘাইছড়ি উপজেলা সদরের বাবু পাড়ার কমিউনিটি সেন্টারের সম্মুখে একটি ঘরে ভাত খাওয়ার সময় বসু চাকমা (৩৮) নামে এক জেএসএস সংস্কার দলের কর্মীকে গুলি করে হত্যা করে দুর্বৃত্তরা। এই ঘটনায় বাঘাইছড়ি উপজেলা চেয়ারম্যান বড়ঋষী চাকমা সহ জেএসএসের বেশ কয়েকজন নেতাকে আসামী করে থানায় অভিযোগ দায়ের করা হলেও বরাবরের মতই অভিযোগ অস্বীকার করেছে জেএসএস।

অন্যদিকে, পার্শ্ববর্তী জেলা খাগড়াছড়িতে মঙ্গলবার ৮ জানুয়ারী সন্ধ্যার সময় সন্ত্রাসীদের গুলিতে ইউপি চেয়ারম্যান ও উপজেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক মো. নাজির হোসেন গুরুতর আহত হন। এতেও উঠে আসে আরেক আঞ্চলিক দল ইউপিডিএফের নাম।

নির্বাচন পরবর্তী পাহাড়ের আবারো সহিংসরুপ ফুটে ওঠায় বেশ আতঙ্কে রয়েছে পাহাড়বাসী। প্রশাসন ও নিরাপত্তাবাহিনীর হাজারো কঠোর হস্তক্ষেপেও যেন লাগাম টানা যাচ্ছে না এই রক্তপাতের।