শিক্ষার্থীদের দক্ষতা বৃদ্ধিতে রাঙামাটিতে প্রথমবারের মতো ইংলিশ অলিম্পিয়াড প্রতিযোগিতা

॥ আলমগীর মানিক ॥

প্রাথমিক পর্যায়ের কোমলমতি শিক্ষার্থীদের ইংরেজিতে কথা বলা, পড়তে পারা, লিখতে পারা এবং ইংরেজি ভাষা শোনার দক্ষতা বাড়ানোর লক্ষ্যে পার্বত্য জেলা রাঙামাটিতে প্রথমবারেরমতো অনুষ্ঠিত হয়ে গেলো ইংলিশ অলিম্পিয়াড (সিজন-২) এর সিলেকশন রাউন্ড প্রতিযোগিতা। রাঙামাটির অন্যতম আধুনিক মানের শিক্ষা প্রতিষ্ঠান লেকার্স পাবলিক স্কুল এন্ড কলেজ এ শুক্রবার সকাল থেকে এই প্রতিযোগিতা শুরু হয়ে চলে দুপুর পর্যন্ত। এসময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন লেকার্স স্কুলের ভাইস প্রিন্সিপ্যাল বৈশালী রায়, ইংরেজি প্রভাষক, সিনিয়রর শিক্ষকসহ বিপুল সংখ্যক অভিভাবকবৃন্দ। এই আয়োজনের মিডিয়া পার্টনার ছিলো চট্টগ্রাম ভিত্তিক আঞ্চলিক ভাষার জনপ্রিয় অনলাইন টিভি চ্যালেন সিপ্লাস টিভি।

প্রতিযোগিতার শুরুতেই জাতীয় সংগীত পরিবেশনের মাধ্যমে শুরু হয় অনুষ্ঠানের আনুষ্ঠানিকতা। আয়োজকরা জানিয়েছেন. গত দুইদির শহরের বিভিন্ন প্রান্তে রেজিষ্টেশনের মাধ্যমে আগ্রহী শিক্ষার্থীদের নাম অর্ন্তভূক্ত করা হয়। শুক্রবার সকালে অ্যাডমিট কার্ড হাতে সকল প্রতিযোগী লেকার্স ভেন্যুতে পৌঁছে যায় ইংলিশ অলিম্পিয়াডের ভলান্টিয়ারদের সহায়তায়। সুশৃঙ্খলভাবে ঠিক সকাল সাড়ে ন’টায় শুরু হয় পরীক্ষা। লিখিত এমসিকিউ ভিত্তিক প্রশ্নে মূলত যাচাই করা হয় তার গ্রামারে দক্ষতা, রাইটিং এবং থিংকিং স্কিল। প্রশ্নের মান নিয়ে সন্তোষ প্রকাশ করেন প্রতিযোগীরা।

শিশু বয়স থেকে প্রতিভার সুষুম বিকাশ এবং নতুন একটি ভাষা রপ্ত করতে উৎসাহিত করার লক্ষ্যে ইংলিশ অলিম্পিয়াড শিশুদের সুযোগ করে দেয় এ আয়োজনে। এ বিশাল আয়োজনে প্রিয় সন্তানকে ইংরেজি ভাষার সঙ্গে পরিচিত করতে নিয়ে আসেন অভিভাবকরা। শিশুর অনুসন্ধানী মনে এক নতুন উৎসাহ সৃষ্টি করতে ইংলিশ অলিম্পিয়াডের এ উদ্যোগকে স্বাগত জানান তারা।

আয়োজকরা জানিয়েছেন, এই প্রতিযোগিতার মাধ্যমে ছাত্ররা ইংরেজিতে কথা বলা, পড়তে পারা, লিখতে পারা এবং ইংরেজি ভাষা শোনার দক্ষতা বাড়াতে পারবে। দ্বিতীয় ভাষা হিসেবে ইংরেজির এই চর্চা খুবই গুরুত্বপূর্ণ মন্তব্য করে আয়োজক কর্তৃপক্ষ জানায়, এই প্রতিযোগিতার মাধ্যমে অভিভাবকদের মধ্যেও সচেতনতা বাড়বে এবং তাদের সন্তানদের ইংরেজি চর্চার মাধ্যমে বিশ্বের অন্যান্য প্রতিযোগিতায় এবং উচ্চ শিক্ষার জন্য দেশের বাইরে যেতে উৎসাহী করবে। তারই লক্ষ্যে দেশের বিভিন্ন জেলায় ইন্সপাইরিং লিডারশিপ শ্লোগান নিয়ে দক্ষ নেতৃত্বদানে উদ্বুদ্ধ করার এক অদম্য লক্ষ নিয়ে এগিয়ে যাচ্ছে ইংলিশ অলিম্পিয়াড।

রাঙামাটির অন্যতম স্বনামধন্য বিদ্যাপীঠ লেকার্স পাবলিক স্কুল এন্ড কলেজের ভারপ্রাপ্ত প্রিন্সিপাল বৈশালী রায় আয়োজনকে অত্যন্ত ইতিবাচক মন্তব্য করে বলেন, পার্বত্যাঞ্চলের শিক্ষার্থীদের জন্য এ ধরনেই আয়োজন একদমই নতুন এবং ইংরেজি ভীতি দূরীকরণে এ ধরনের আয়োজন অত্যন্ত সহায়ক ভূমিকা রাখতে পারে। তিনি আশা প্রকাশ করে বলেন, এই ইংলিশ অলিম্পিয়ার্ডের মাধ্যমে এমন দক্ষ নাগরিক তৈরি হবে যারা একসময় বহু আন্তর্জাতিক সংগঠনের নেতৃত্ব দেবেন এবং আমাদের দেশের প্রতিনিধিত্ব করবে।