ব্রেকিং নিউজ

বান্দরবান সীমান্তের জিরো লাইনে মিয়ানমার শরণার্থীদের ভীড়!

॥ বান্দরবান প্রতিনিধি ॥

বান্দরবানের রুমা উপজেলার প্রাংশা ইউনিয়নের দুর্গম দোপানী ছড়া বিওপির বাংলাদেশ সীমান্তের ৭২ নাম্বার পিলারের ১৩ কিলোমিটার দুরে জিরো লাইনের কাছে মিয়ানমারের চীন রাজ্যের প্রায় দুইশ শরণার্থী অবস্থান করছে। তারা যে কোন সময় বাংলাদেশে অনুপ্রবেশ করতে পারে বলে ধারনা করছেন স্থানীয়রা।

জানা গেছে মিয়ানমারের চীন রাজ্যের প্লাতোয়া জেলায় সেখানকার বিচ্ছিন্নতাবাদী আরাকান আর্মির সাথে বার্মার সেনাবাহিনীর ব্যাপক সংঘর্ষ চলছে। সেনাবাহিনীর আক্রমণ থেকে পালিয়ে বাচঁতে এসব শরণার্থী বাংলাদেশ সীমান্তে অনুপ্রবেশের জন্য রুমা উপজেলার সীমান্তের জিরো লাইনে জড়ো হয়েছে। এদিকে শরনার্থীরা যাতে বাংলাদেশের সীমান্তে প্রবেশ করতে না পারে সে ব্যাপারে বিজিবি কঠোর অবস্থানে রয়েছে।

বান্দরবান বিজিবির সেক্টর কমান্ডার কর্ণেল মো: জহিরুল ইসলাম বলেন, মিয়ানমারের কিছু শরনার্থী রুমা উপজেলার দোপানী ছড়া বিওপি ও বলিবাজার এলাকার নেম্প্রু পাড়া বিওপির মধ্যবর্তী স্থানের ১৩ কিলোমিটার দুরে জিরো লাইনে অবস্থান করছে। আমাদের দুই বিওপি থেকে দুটি পেট্রল টিম পাঠানো হয়েছে পরিস্থিতি দেখার জন্য তবে বিজিবি সতর্ক অবস্থানে রয়েছে।

কেউ যাতে সীমান্ত দিয়ে প্রবেশ করতে না পারে সে ব্যাপারে সজাগ দৃষ্টি রয়েছে। রুমা রেমাক্রী পাংসার ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান জিরা বম জানান, বন্দরবান সীমান্তের ওপারে চীন রাজ্যের কান্তালিন, খামংওয়া, তরোয়াইন এলাকাগুলোর পাড়ায় হেলিকপ্টার থেকে ব্যাপক গুলি ও বোমাবর্ষণ করছে মিয়ানমারের সেনাবাহিনী। এসব জায়গা থেকে মিয়ানমারের খুমি, খেয়াং, বম ও রাখাইন সম্প্রদায়ের প্রায় ২০০ নারী-পুরুষ ও শিশু আতংকে বাংলাদেশের সীমান্তে অনুপ্রবেশের জন্য পালিয়ে চলে এসেছে।

অনুপ্রবেশের জন্য এখন পার্বত্য জেলা বান্দরবানের রুমা উপজেলা সীমান্তে জড়ো হয়েছেন। উপজেলার দুর্গম রেমাক্রী পাংসা ইউনিয়নের ৭২ নং পিলারের কাছে চাইক্ষিয়াং পাড়ার ওপারে এসব শরণার্থী এখন অবস্থান করছেন বলে খবর পাওয়া গেছে।