পাহাড় ধ্বসের হুমকীতে বাঘাইহাটে শিক্ষার আলো ছড়ানো অদ্বিতি কিন্ডার গার্টেন

॥ বাঘাইছড়ি প্রতিনিধি ॥
মেধা ও মননে আধুনিক এবং চিন্তা-চেতনায় অগ্রসর একটি জাতি তৈরী করাই শিক্ষার লক্ষ্য। আজকের শিশু আগামী দিনের ভবিষ্যৎ। এই জন্য ভবিষ্যৎ প্রজন্মকে নেতৃত্বদানের উপযোগী মননশীল, নীতিবান, সকল ধর্মের প্রতি শ্রদ্ধাশীল, কুসংস্কারমুক্ত, পরমতসহিষ্ণু, অসাম্প্রদায়িক, দেশপ্রেমিক এবং কর্মকুশল নাগরিক গড়ে তোলার জন্য শিক্ষার কোন বিকল্প নেই। এ লক্ষ্য ও উদ্দেশ্যকে ত্বরান্বিত করার প্রয়াসে অত্র অঞ্চলে অন্যান্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ন্যায় “অদ্বিতি কিন্ডার গার্টেন” শিক্ষা ব্যবস্থায় উন্নতির জন্য গুরত্বপূর্ণ অবদান রেখে চলেছে। অত্র অঞ্চলের উন্নতি এবং সুশিক্ষিত জাতি গড়ে তোলার ক্ষেত্রে এই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের অবদান, অর্জন ও নিরলস প্রচেষ্ঠা নিঃসন্দেহে অনুকরনীয়।
২০০৮ সালের জুন মাসে বাঘাইহাট সেনা জোন কর্তৃক প্রতিষ্ঠার পর হতে অদ্যবধি “অদ্বিতি কিন্ডার গার্টেন” স্কুলের শিক্ষা কার্যত্রুম সুষ্ঠুভাবে পরিচালিত হয়ে আসছে। উক্ত সময়সীমার মধ্যে উক্ত বিদ্যালয় হতে অত্র অঞ্চলের সর্বমোট ১৪৫২ জন কোমলমতি শিক্ষার্থী শিক্ষাগ্রহণ করে। প্রতিবছরেই শতভাগ পাশসহ এই বিদ্যালয় হতে ভাল ফলাফল অর্জনকারী শিক্ষার্থীর সংখ্যা অন্যান্য বিদ্যালয় হতে বেশী। ২০১৯ শিক্ষাবর্ষে বিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীর সংখ্যা সর্বমোট ১২৭ জন।
পার্বত্য চট্রগ্রামের রাঙ্গামাটি জেলার বাঘাইছড়ি উপজেলার সাজেক ইউনিয়নের মত দূর্গম এলাকায় শিক্ষা বিস্তারের ক্ষেত্রে অনেকাংশে পশ্চাদপদ। বিভিন্ন প্রতিকূলতার মধ্যেও বাঘাইহাট জোনের সার্বিক তত্তবাবধানে “অদ্বিতি কিন্ডার গার্টেন” শিক্ষা বিস্তারে বিশেষ ভূমিকা পালন করে আসছে। উক্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটি পাহাড়ের উপরে ঝুকিপূর্ণ স্থানে অবস্থিত, যা বর্ষা মৌসুমে পাহাড় ধ্বসের কবলে পতিত হওয়ার সমূহ সম্ভাবনা রয়েছে। যার ফলে উক্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের কোমলমতি শিক্ষার্থীদের প্রাণহানির সম্ভাবনার পাশাপাশি তাদের শিক্ষা গ্রহণে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করবে। এছাড়াও ২০১৮ সালে বর্ষা মৌসুমে পাহাড় ধ্বসের ঘটনা সংগঠিত হওয়ায় শিক্ষার্থী এবং এলাকার সাধারণ জনগণের স্বাভাবিক চলাচলে বাধাগ্রস্থ হয়। এরুপ পরিস্থিতিতে উক্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সার্বিক উন্নয়নের জন্য সরকারী প্রশাসনের পাশাপাশি এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তি ও জনসাধারণের এগিয়ে আসা প্রয়োজন।