মানিকছড়ি সরকারি কলেজ অধ্যক্ষের অনিয়ম-দুর্নীতির অনুসন্ধান শুরু করেছে দুদক

॥ মানিকছড়ি প্রতিনিধি ॥

মানিকছড়ি গিরি মৈত্রী সরকারি ডিগ্রী কলেজ এর ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে দায়িত্ব গ্রহণে জ্যেষ্ঠতা লংঘন ও নিয়মবর্হিভূত ভাতা গ্রহণ, জি.ও জারির পর মন্ত্রনালয়ের নির্দেশনা অমান্য করে কলেজ ফান্ড থেকে ভূয়া বিল ভাউচারে লক্ষ লক্ষ টাকা আত্মসাৎ ও স্বেচ্ছাচারিতার বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগ অনুসন্ধানে নেমেছে দুর্নীতি দমন কমিশন(দুদক)।

জানা গেছে, খাগড়াছড়ির জেলার মানিকছড়ি উপজেলার একমাত্র মানিকছড়ি গিরি মৈত্রী ডিগ্রী কলেজটির সাবেক অধ্যক্ষ মো. এনামুল হক অবসরে যাওয়ার পর ১৯ জানুয়ারী ২০১৬ সালে কলেজের ৬জন সিনিয়র সহকারি অধ্যাপকের জ্যেষ্ঠতা লংঘন করে মংচাইঞো মারমাকে ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ নিয়োগ করেন তৎকালীন গর্ভনিং বডি। ওই নিয়োগের পর হতে সরকারি (এম.পি.ও) বেতন-ভাতার পাশাপাশি কলেজ ফান্ড থেকে প্রতি মাসে ২১ হাজার টাকা সন্মানি গ্রহন করছেন ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ মংচাইঞো মারমা! এছাড়া শিক্ষার্থীদের পরীক্ষার ফি, উপবৃত্তির টাকা আত্মাসাৎ সহ নানা অপকর্ম চালিয়ে আসছিলেন ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ মংচাইঞো মারমা!

২০১৮ সালের ৮ আগস্টে কলেজটি সরকারিকরণের জি.ও জারি হয় এবং ২৭ আগস্ট সরকারি প্রজ্ঞাপন জারির মাধ্যমে পূর্বের গর্ভনিং বডি বাতিল ও সমস্ত আর্থিকসহ অন্যান্য কার্যাবলী সম্পাদনে উপজেলা পর্যায়ে ইউএনও’কে দায়িত্ব প্রদান করে চিঠি ইস্যু করেন শিক্ষা মন্ত্রণালয়। এছাড়া মাউশি অধিদপ্তরের স্মারক নং-৭এ/০৯/সি-২/২০১৩/৫৬৩৯(ক)/৫ তাং- ৩০.৬.২০১৬ ইং মূলে কলেজ জাতীয়করণের লক্ষ্যে নিয়োগ,স্থাবর-অস্থাবর সম্পদ হস্তান্তর ও অর্থ ব্যয়ের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করলেও কলেজ অধ্যক্ষ মংচাইঞো মারমা ওইসব নির্দেশনা অমান্য করে খন্ডকালীণ শিক্ষক নিয়োগ, বেতন-ভাতা বৃদ্ধি,উন্নয়নের নামে অর্থ হরিলুট এবং অর্থ কমিটির স্বাক্ষর বিহীন গত ১ অক্টোবর বিলুপ্ত কমিটির স্বাক্ষরে ৪ লক্ষ ৪০হাজার ৩ শত ৫৮ টাকা কলেজ হিসাব নং ১২২৫ বি.কে.বি মানিকছড়ি শাখা থেকে উত্তালন করেন! কলেজ অধ্যক্ষের এসব ধারাবাহিক অপকর্ম, অন্যায়, দুর্নীতি ও স্বেচ্ছাচারিতার বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করতে গিয়ে ৯ অক্টোবর কলেজ প্রর্দশক নাহিদা আক্তার ও প্রশান্ত বিশ্বাস অশোভণ আচরণ, গালমন্দের শিকার হয়েছেন। ফলে এ ঘটনা প্রতিবাদ, কলেজ অধ্যক্ষের অপকর্ম,অনিয়ম,দুর্নীতি ও স্বেচ্ছাচারিতার বিরুদ্ধে সম্প্রতি দুর্নীতি দমন কমিশনে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন কলেজ শিক্ষক-শিক্ষিকা। ওই অভিযোগের প্রেক্ষিতে দুর্নীতি দমন কমিশন, সমন্বিত জেলা কার্যালয় রাঙ্গামাটির ই/আর নং ০৩/২০১৯ ও স্মারক নং ৮৯,তারিখ ১৭.০২.২০১৯ খ্রি.এবং দুর্নীতি দমন কমিশন,প্রধান কার্যালয়,ঢাকার স্মারক নং০৪.০১.৮৪০০.৬২৬.২৬.০০১.১৮(অংশ-২)৪২৪৩, তারিখ-৬.০২.১৯ খ্রি. এবং দুর্নীতি দমন কমিশন, সমন্বিত জেলা কার্যালয় স্মারক নং দুদক/সজেকা/ রাঙ্গামাটি/৯৫,তারিখ ২৭.২.১৯ খ্রি. মূলে উক্ত অভিযোগের অনুসন্ধান শুরু করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন।

অভিযোগের অনুসন্ধান শুরু বিষয়ে জানতে চাইলে দুর্নীতি দমন কমিশন, সমন্বিত কার্যালয়,রাঙ্গামাটির সহকারি পরিচালক মো.আবুল বাশার এর সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, মানিকছড়ি গিরি মৈত্রী সরকারি ডিগ্রি কলেজ এর ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ মংচাইঞো মারমার বিরুদ্ধে সহকারি অধ্যাপকগণের দাখিলকৃত অভিযোগের অনুসন্ধান শুরু হয়েছে। অধ্যক্ষের নিকট আগামী ১১ মার্চের মধ্যে অভিযোগে উল্লেখিত অনিয়ম,দুর্নীতি ও স্বেচ্ছাচারিতার সমস্ত রেকর্ড/নথিপত্র চাওয়া হয়েছে।