ব্রেকিং নিউজ

পানছড়ি সাবজোন ও উপজেলা প্রশাসন কর্তৃক শান্তিচুক্তির ২১তম বর্ষপূর্তি উদযাপন

॥ পানছড়ি সংবাদদাতা ॥
শান্তি, সম্প্রীতি এবং উন্নয়ন এই প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে বাংলাদেশ সেনাবাহিনী পার্বত্য সকল সম্প্রদায়ের মধ্যে সম্প্রীতির বন্ধন দৃঢ় করতে অত্যন্ত দক্ষতার সাথে দায়িত্বপালন করে আসছে।
বৃহস্পতিবার (০৭ মার্চ ২০১৯) সন্ধ্যায় পানছড়ি সাবজোন ও পানছড়ি উপজেলা প্রশাসন এর সার্বিক ব্যবস্থাপনায় পানছড়ি উপজেলা পরিষদ মাঠ এ শান্তি চুক্তির ২১তম বর্ষ পূর্তি উপলক্ষে একটি কনসার্ট এর আয়োজন করা হয়। উক্ত কনসার্ট এ বাবু কুজেন্দ্রলাল ত্রিপুরা, এমপি, খাগড়াছড়ি; রিজিয়ন কমান্ডার, খাগড়াছড়ি; জেলা প্রশাসক, খাগড়াছড়ি; জোন কমান্ডার, খাগড়াছড়ি; জোন কমান্ডার, লোগাং; পুলিশ সুপার, খাগড়াছড়ি; স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ এবং শান্তিপ্রিয় প্রায় ৩০০০-৩৫০০ পানছড়িবাসী উপস্থিত ছিলেন।
আয়োজিত কনসার্ট এ সুনামধন্য ০৫টি শিল্পী গোষ্ঠী (কুমিল্লা শিল্পকলা একাডেমী; ঢাকা শিল্পকলা একাডেমী; অর্নিবান শিল্পী গোষ্ঠী, পানছড়ি; পুজগং শিল্পী গোষ্ঠী, পুজগং এবং শিল্পকলা একাডেমী, খাগড়াছড়ি) তাদের গান এবং নৃত্য পরিবেশন করেন। এছাড়াও গত ০২ ডিসেম্বর ২০১৮ তারিখে খাগড়াছড়ি ষ্টেডিয়ামে অত্যন্ত আনন্দগণ ও উৎসবমুখর পরিবেশে উদযাপিত শান্তি চুক্তির ২১তম বর্ষ পূর্তির ভিডিও চিত্র প্রদর্শন করা হয়।
এ ব্যাপারে সাবজোন কমান্ডার, পানছড়ি এর সাথে একান্ত সাক্ষাতে জানা যায় সম্প্রীতির বন্ধনকে দৃঢ় করতে এবং জনসাধারনের মধ্যে শান্তি প্রতিষ্ঠায় এ ধরণের বিনোদনমূলক অনুষ্ঠান খাগড়াছড়ি সদর জোন কর্তৃক ভবিষ্যতেও পরিচালিত হবে।
সম্প্রীতি কনসার্ট অনুষ্ঠান আয়োজন করার জন্য স্থানীয় জনগণ নিরাপত্তা বাহিনীর প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছেন এবং জনসাধারনের মধ্যে বিনোদনমূলক অনুষ্ঠান পরিচালনা করায় ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেছেন। এছাড়াও ভবিষ্যতেও এ ধরনের বিনোদনমূলক অনুষ্ঠান পরিচালনার জন্য তারা অনুরোধ জানান।
এ ব্যাপারে খাগড়াছড়ি সদর জোন কমান্ডার লেঃ কর্ণেল মোহাম্মদ আরাফাত হোসেন, পিএসসি এর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, পানছড়ি এলাকায় শান্তি বজায় রাখার জন্য সেনাবাহিনী, বিজিবি, পুলিশ, আনসার, হিল আনসার নিরলসভাবে দায়িত্বপালন করে যাচ্ছে এবং এই এলাকায় শান্তি বজায় রাখার জন্য আমরা সকলেই বদ্ধ পরিকর। বিভিন্ন আঞ্চলিক রাজনৈতিক দলগুলোর অন্তর্দলীয় কোন্দলের কারণে যাতে সন্ত্রাসীরা এলাকার শান্তি প্রিয় জনসাধারনের উপর কোন প্রকার প্রভাব বিস্তার করতে না পারে সে ব্যাপারে পানছড়ি বাসীর কঠোর দৃষ্টি আকর্ষনসহ সেনাবাহিনী এবং পানছড়ি এলাকায় নিয়োজিত প্রশাসন ও অন্যান্য সংস্থাকে যথাযথ সহযোগিতা প্রদান করার জন্য তিনি বিনীতভাবে আহবান জানান।
এছাড়াও সদর জোন কমান্ডার পানছড়ি এলাকাবাসী, সেনাবাহিনী, পুলিশ, বিজিবি, আনসার, হিল আনসার সকলকে একত্রিত হয়ে সন্ত্রাস, মাদক, দুস্কৃতিকারী নির্মুল করে সুখী ও সুন্দর সমাজ গড়ে তোলার জন্য অঙ্গীকার করেন।