রাঙ্গামাটিতে প্রাথমিক শিক্ষা মেলা উদ্বোধন

॥ নিজস্ব প্রতিবেদক ॥

জাতীয় প্রাথমিক শিক্ষা সপ্তাহ-২০১৯ উদযাপন উপলক্ষে “প্রাথমিক শিক্ষার দীপ্তি, উন্নত জীবনের ভিত্তি” এ প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে বুধবার (২০মার্চ) দিনব্যাপী শিক্ষা মেলা শুরু হয়। রাঙ্গামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান বৃষ কেতু চাকমা প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে ফিতা কেটে মেলার শুভ উদ্বোধন করেন। রাঙ্গামাটি জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসের আয়োজনে শহরের কাঠালতলী সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে এ মেলার উদ্বোধন করা হয়।

জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা খোরশেদ আলমের সভাপতিত্বে উদ্ধোধনী অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন জেলা সহকারী প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার পরিণয় চাকমা, জেলা সহকারী প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার রবিউল হোসেন প্রমুখ।

মেলার উদ্বোধনকালে প্রধান অতিথির বক্তব্যে রাঙ্গামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান বৃষ কেতু চাকমা বলেন, বিদ্যালয়ে সাধারণ শিক্ষার পাশাপাশি ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠী শিশুদের তাদের নিজ নিজ ভাষার উপর পরীক্ষা গ্রহণ করতে হবে। তবেই এবিষয়ে গুরুত্ব বাড়বে এবং তাদের মনে প্রতিযোগিতামূলক মনোভাব সৃষ্টি হবে। তিনি বলেন, ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর শিক্ষার্থীদের স্কুলে ঝড়ে পড়া রোধকল্পে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনায় ২০১৭ সাল হতে ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর শিক্ষার্থীদের বিনামূল্যে তাদের নিজ নিজ ভাষা ও অক্ষরে ছাপা বই বিনামূল্যে বিতরণ করা হচ্ছে। যাতে করে সমতলের ন্যায় পাহাড়ের শিশুরাও শিক্ষার দিক দিয়ে এগিয়ে যায়। তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রীর সে স্বপ্ন বাস্তবায়নে পরিষদ বদ্ধপরিকর। তাই প্রতিবছর পরিষদের অর্থায়নে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠী ভাষা ও অক্ষরের উপর প্রশিক্ষণ প্রদান করা হচ্ছে। এ কার্যক্রমের ধারাবাহিকতা অব্যাহত থাকবে। প্রাথমিক শিক্ষার মান বৃদ্ধি করে শিক্ষকদের পাঠদানের পাশাপাশি শিশুদের যোগ্য নাগরিক হিসেবে গড়ে তুলতে সকলের প্রতি আহবান জানান তিনি।

তিনি মেলার সফলতা কামনা করে আরো বলেন, এ মেলায় যেসব শিক্ষা উপকরণ প্রদর্শন করা হয়েছে এ উপকরণ থেকে শিশুরা অনেক কিছু শিখতে পারবে। তাই আগামীতে এ মেলা আরো বৃহৎ পরিসরে করার পরামর্শ দেন তিনি।

মেলায় সকল উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসের কর্মকর্তা ও শিক্ষক-শিক্ষিকারা তাদের স্টল দিয়েছে। শিক্ষার্থীদের পাঠদানে আরও বেশি মনোযোগী করতে বিভিন্ন শিক্ষা উপকরণ প্রদর্শিত হচ্ছে মেলায়।

মেলায় বসানো সবকটি স্টল পরিদর্শন করেন পরিষদ চেয়ারম্যান ও অতিথিরা।

পরে শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের পরিবেশনায় পরিবেশিত হয় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান।