রাঙামাটিতে সেনাবাহিনীর উপর গুলিবর্ষণ :৫অস্ত্রসহ ৬ ইউপিডিএফ সন্ত্রাসী আটক

॥ আলমগীর মানিক ॥

বিগত ১৮ই মার্চ সন্ধ্যারাতে নির্বাচনী সরঞ্জাম ও কর্মকর্তাবাহী গাড়ি বহরে হামলা পরবর্তী আটজনকে গুলি করে হত্যা ও আরো ২৭জনকে গুলিবিদ্ধ করে আহতের ঘটনায় জড়িত সশস্ত্র সন্ত্রাসীদের গ্রেফতারে চলমান সাঁড়াশি অভিযানে অনেকটাই কোনঠাসা হয়ে পড়া পার্বত্য চট্টগ্রামের আঞ্চলিকদলীয় সন্ত্রাসীরা নিরাপত্তাবাহিনীর উপর হামলা শুরু করেছে।

ব্যাপকভাবে গোয়েন্দানজরদারিসহ কম্বিং অপারেশনের কারনে সন্ত্রাসীরা প্রতিনিয়তই পাল্টাচ্ছে তাদের অবস্থান। এমতাবস্থায় শনিবার দিবাগত রাত নয়টার দিয়ে রাঙামাটির লংগদু উপজেলাধীণ কাট্টলী বিল ও জেলার কাউখালী উপজেলা থেকে ৫টি অস্ত্রসহ সর্বমোট ছয়জন সন্ত্রাসীকে গ্রেফতার করেছে নিরাপত্তাবাহিনীর সদস্যরা।

গ্রেফতারকৃতরা হলো-সরল চাকমা, নেলসন চাকমা, পূর্ণদেব চাকমা, মঙ্গল কান্তি চাকমা, নরেশ চাকমা, ও আপন বিকাশ চাকমা। খাগড়াছড়ি রিজিয়ন ও রাঙামাটি সদর সেনাজোন কর্তৃপক্ষ ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানিয়েছেন আটককৃতদের কাছ থেকে ১টি এসএমসি ও ৪টি বন্দুক উদ্ধার করা হয়েছে।

সেনাবাহিনীর মাধ্যমে প্রাপ্ততথ্যে জানাগেছে, রাঙামাটির লংগদু উপজেলাধীন কাপ্তাই হ্রদের কাট্টলী বিল এলাকায় জেলেদের কাছ থেকে অস্ত্রেরমুখে জোরপূর্বক চাঁদা আদায় করছে পার্বত্য চুক্তি বিরোধী সংগঠন ইউপিডিএফ এর সশস্ত্র সন্ত্রাসীরা।

এই খবর পাওয়ার পর লংগদু সেনাজোনের একটি দহলদল ঘটনাস্থলে অভিযানে যায়। এসময় সেনা সদস্যদের উপস্থিতি টের পেয়ে তাদের উপর গুলিবর্ষণ করতে শুরু করে সন্ত্রাসীরা। আত্মরক্ষার্থে সেনাসদস্যরাও পাল্টাগুলি ছুড়ে।

এতে উভয়পক্ষের মধ্যে আধাঘন্টা গুলি বিনিময়ের ঘটনা ঘটেছে বলে স্থানীয় সূত্র জানিয়েছে। এই ঘটনার পর সন্ত্রাসীদের কয়েকজন পালিয়ে গেলেও গুলিবিদ্ধ অবস্থায় দুইজনসহ মোট তিনজনকে ৫টি অস্ত্রসহ হাতে নাতে আটক করে সেনা সদস্যরা।

এদিকে গুলি বিদ্ধ আরো দুই সন্ত্রাসী আহতাস্থায় কাপ্তাই হ্রদের পানিয়ে ভাসতে থাকলে রোববার রাতে তাদেরকে ধরে সেনাবাহিনীর হাতে তুলে দেয় স্থানীয় গ্রামবাসী।এনিয়ে কাট্টলী বিলে সেনাবাহিনীর উপর গুলি বর্ষণের ঘটনায় পাঁচজনকে অস্ত্রসহ আটক করা হয়েছে বলে নিশ্চিত করেছেন খাগড়াছড়ি সেনারিজিয়ন কর্তৃপক্ষ।

আটককৃতদের জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে মন্তব্য করে রিজিয়ন কর্তৃপক্ষ জানিয়েছেন, তাদের বিরুদ্ধে মামলার প্রক্রিয়া চলমান রয়েছে এবং তারা বাঘাইছড়িতে আট খুনের ঘটনায় জড়িত কিনা সেটিও খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

এদিকে, রাঙামাটি জেলার কাউখালী উপজেলার ৩নং ঘাগড়া ইউনিয়নের ২নং হারাঙ্গীপাড়াতে গোপন তথ্যের ভিত্তিতে অভিযান পরিচালনা করে পার্বত্য চুক্তি বিরোধী সংগঠন ইউনাইটেড পিপলস ডেমোক্রেটিক ফ্রন্ট ইউপিডিএফ এর চাঁদা আদায়ের অন্যতম কালেক্টর আপন বিকাশ ওরফে তরুন বিকাশ চাকমাকে আটক করেছে রাঙামাটি সদর সেনাজোনের একদল সদস্য। আটককৃত আপনের পিতার নাম কালাবো চাকমা, সাং-সোনাইছড়ি, পোস্ট অফিস বেতবুনিয়া, উপজেলা কাউখালী, জেলা রাঙামাটি।

আপন বিকাশ চাকমা ২০১৫ সাল থেকে ইউপিডিএফ এর কালেক্টর হিসেবে কাউখালী হারাঙ্গীপাড়া কাজ করেছে। রোববার ৭ এপ্রিল ভোর রাতে সেনাবাহিনী গোপন তথ্যের ভিত্তিতে অভিযান পরিচালনা করে তাকে আটক করা হয়েছে জানিয়েছে জোন কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, ইউপিডিএফ সন্ত্রাসী সংগঠনের রাষ্ট্র বিরোধী কার্যক্রমে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে আপন বিকাশ চাকমা৷ তার কাছ থেকে গুরুত্বপূর্ণ কিছু তথ্য প্রমাণ পেয়েছে সেনাবাহিনী।