বাঘাইছড়ি হত্যাকান্ডের সাথে জড়িত দুর্বৃত্তদের আইনের আওতায় আনার দাবী ঊষাতনের!

॥ নিজস্ব প্রতিবেদক ॥

রাঙামাটির সাবেক সংসদ সদস্য ও পার্বত্য চট্টগ্রামের জনসংহতি সমিতির সহ সভাপতি উষাতন তালুকদার বলেছেন, গত ১৮ মার্চ নির্বাচনে কারচুপির অভিযোগ এনে বাঘাইছড়িতে একজন প্রার্থী প্রার্থীতা প্রত্যাহার করেছেন সকালে, বিকালে ভোট গ্রহন শেষে ফেরার পথে ভোট গ্রহণকারী কর্মকর্তাদের উপর নির্মমভাবে  ব্রাশ ফায়ার করে হত্যা করে দুবৃর্ত্তরা, সকালে প্রত্যাহার, বিকালে হত্যাকান্ড, এধরনের হত্যাকান্ডের আমরা নিন্দা জানাই।  ঘটনাগুলো  কাকতালীয়ভাবে ঘটলেও আমরা সরকার এবং প্রশাসনের কাছে দাবি জানাই, প্রকৃত দোষীদের আইনের আওতায় আনুন বিচার করুন কিন্তু এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে যেন সাধারন মানুষ যেন হয়রানির শিকার না হয়, পাহাড়ে যেন অস্থিরতা সৃষ্টি না হয় সেদিকে খেয়াল রাখবেন।

বিজু, সাংগ্রাই, বৈসুক, বিষু, বিহু, সাংক্রান পালন কমিটির উদ্যেগে রাঙামাটিতে আয়োজিত আলোচনা সভা ও র‌্যালী অনুষ্ঠানের উদ্বোধনী বক্তব্যে উষাতন তালুকদার এসব কথা বলেন।

সাবেক সংসদ সদস্য উষাতন তালুকদার সরকারকে আহবান জানিয়ে বলেছেন, যাতে পাহাড়ের মানুষ নিরাপদে, নির্ভয়ে, নির্বিঘ্নে মনখোলে স্বর্ত:স্ফুতভাবে সকল জনগোষ্ঠী যাতে নিজ নিজ সংস্কৃতির বিকাশ করতে সে ব্যবস্থা করতে হবে।

উষাতন তালুকদার আরো বলেন, সরকার শান্তি চুক্তির মৌলিক বিষয়গুলো বাস্তবায়ন এখনো করেনি, আর চুক্তি বাস্তবায়ন না করে ফেলায় রাখায় নানা উপসর্গের উদ্ভুব হতে পারে হচ্ছে, এমনতর অবস্থার মধ্যে পার্বত্য এলাকায় পরিস্থিতি কোন দিকে যাচ্ছে আমরা বুঝতে পারছি না, পাহাড়ে অরাজকতা সৃষ্টি হচ্ছে।২/১টি ঘটনাকে কেন্দ্র করে আমরা যেন আবার ভুল পথে না যাই সে জন্য পার্বত্য সমস্যার গভীরে গিয়ে সমস্যা সমাধানে সরকার ও রাজনৈতিক দল, সুশীল সমাজসহ সবাইকে এগিয়ে আসতে হবে।

এদিকে অনুষ্ঠান উদ্বোধনের পর শুরু হয় ক্ষুদ্র নৃ গোষ্ঠী শিল্পীদের নিয়ে প্রদর্শনী নত্যৃ। প্রকৃতি রঞ্জনের সভাপতিত্বে সংক্ষিপ্ত আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন, অধ্যাপক মংসানু চৌধুরী। সভা শেষে রাঙামাটি শহরে বের করা হয় বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা। শোভাযাত্রাটি পৌরসভা থেকে শুরু হয়ে জেলা শিল্পকলা একাডেমীতে গিয়ে শেষ হয়। তিনদিন ব্যাপী অনুষ্ঠানের মধ্যে রয়েছে ঐতিহ্যবাহী খেলাধুলা, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, নদীতে ফুল ভাসানোর মধ্যে দিয়ে শেষ হবে।