গ্রীষ্মের তাপদাহের সাথে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে তালপাখার চাহিদা!

॥ ঝিনাইদহ প্রতিনিধি ॥

ঝিনাইদহ কালীগঞ্জের হাত পাখা তৈরির কারিগরদের যেন বাতাস খাওয়ার সময় নেই। গরমে মানুষকে একটু শান্তির পরশ দিতে দিন রাত পরিশ্রম করে তৈরি করছে কালীগঞ্জের তালপাখা কারিগররা। পূর্ব পুরুষের ব্যবসা করে এখনো সংসার চালাচ্ছে কালীগঞ্জ প্রায় অর্ধশত পরিবার। গরম শুরুর সাথে সাথে তাদের কাজ বেড়ে গেছে।তাল পাখা তৈরি তাদের পেশা ও বানিজ্যিক ভিত্তিতে করে থাকে। এদের কোন জমি নাই যে মাঠে কৃষি ফসল চাষ করবে। এদের প্রধান পেশা পাখা তৈরি। প্রচন্ড গরমে তাই বসে নেই, সকাল থেকে গভীর রাত পর্যন্ত পাখা তৈরি করছে।

ঝিনাইদহ কালীগঞ্জ উপজেলার দুলালমুন্দিয়া, পারিয়াট, চাচড়া, এলাকা ঘুরে পাখা তৈরিকারিরা বলেন, গরম পড়লেই পাখা পল্লীর কারিগরদের ব্যস্ততা বেড়ে যায়। যেন কথা বলার সময় তাদের নেই। শরীর দিয়ে নোনতা পানি বের হলেও নিজেরা পাখা দিয়ে বাতাস খাওয়ার সময় নেই তাদের। কেউ বা পাতা কেটে সাইজ করছে, কেউ সেলাই করছে আবার কেউ বা পাখা তৈরি করেছে কেউ আবার প্রস্তুত হওয়া পাখা গুলো বিক্রির জন্য বোঝা বাধছে। পাখা তৈরিকারি আবদুল গফুর বলেন, তাদের পূর্ব পুরুষরা এই তালপাখা তৈরি করে জীবন জীবিকা চালাতো। ফলে তারাও পূর্ব পুরুষের কাজটি ধরে রেখেছেন। তিনি জানান,কালীগঞ্জে প্রায় ২ শতাধিক পরিবার পাখা তৈরির কাজ করে থাকেন।

কুষ্টিয়া থেকে আসা পাইকারি ব্যবসায়ি আনোয়ার হোসেন জানান, কালীগঞ্জের তালপাখা এলাকার ক্রেতাদের কাছে রয়েছে ব্যাপক চাহিদা। প্রতিটি বাড়িতে পাখা তৈরি কাজে এত ব্যাস্ত যে কার ও কথা বলার সময় নেই। কাজের চাপে অনেকে সকালে ভাত খায় আর রাতে খায়। কাজের চাপের কারণে তারা ভাত খাবার পর্যন্ত সময় পায় না। পাখা করিগর নজরুল ইসলাম জানান, পাখা তৈরির প্রধান উপকরণ তালপাতা সংগ্রহ করা হয় শীতকালে। মাগুরা, ফরিদপুর, রাজবাড়ী এলাকা থেকে তারা পাতা সংগ্রহ করে। এই তালপাতা এনে পানিতে ভিজিয়ে রাখতে হয়। তারপর পাতা ভিজে নরম হয়ে গেলে পানি থেকে উঠিয়ে তা কেটে দুই ভাগে ভাগ করা হয়। একটা পাতায় দুটো পাখা হয়। এই পাতা পুনরায় বেঁধে রাখা হয়। এভাবে রাখার পর গরমের মৌসুম আসার সাথে সাথে সেগুলো আবার পানিতে ভিজতে দেয়া হয়। এ বছর তাল পাখার কদর অনেক টা বেশি বলে তারা জানায়। পানিতে দেবার পর পাতা নরম হয়ে গেলে শুরু হয় মূল পাখা তৈরীর কাজ।

সাধারণত পরিবারের বড়’রা পানিতে ভিজে নরম হয়ে যাওয়া পাতা ছাড়িয়ে পাখা আকৃতির করে চারিদিক কেটে সমান করে থাকে। আর বাড়ির মেয়েরা সেগুলো বাশের সলা দিয়ে বেঁধে ফেলে। পরিবারের ছোট সদস্যরা এগুলো সুচ আর সুতা দিয়ে সেলাই করে থাকে। এভাবে ব্যবহারের উপযোগী একটি তালপাখা তৈরী হয়। বাড়ির ছেলে, মেয়ে, শিশুরা ও গৃহবধুরা সবাই মিলে প্রতিদিন সকাল থেকে মধ্য রাত পর্যন্ত পাখা তৈরির কাজে ব্যাস্ত থাকেন। গৃহবধুরা জানায়, তারা প্রতিদিন সকালে ঘুম থেকে উঠে দু, বেলার খাবার রান্না করে রাখে। দুপুরে গৃহবধুরা কেউ রান্না করে না। তারা সকাল ও রাতে রান্না করে। নজরুল আরো জানান, তাদের তৈরিকৃত পাখা পাইকারী ও খুচরা বিক্রি করা হয়। এখান থেকে পাইকাররা প্রতিপিস পাখা ১২/১৫ টাকা দরে ক্রয় করে নিয়ে খুচরা ২০/২২ টাকায় বিক্রি করে। মুলত পাখা ব্যবসা থাকে গরমের ৩/৪ মাস।

কালীগঞ্জের পাখা বিশেষ করে কুষ্টিয়া, মাগুরা, রাজশাহি, নাটোর, মেহেরপুর, চুয়াডাঙ্গাসহ বিভিন্ন এলাকার ব্যবসায়িরা এসে পাইকারি দরে পাখা কিনে নিয়ে যায়। কালীগঞ্জ উপজেলায় এরা খুচরা ও বাইরে থেকে আসা ব্যবসায়িদের কাছে পাইকারি হিসাবে বিক্রি করে থাকে। কিন্তু এরা সবার তালপাখার বাতাস খাওয়ানোর জন্য পাখা তৈরি করে অথচ নিজেরা কোন সময় পাখার বাতাশ খায় না। এই প্রচন্ড গরমে বাড়ির ছোট বড়, পুরুষ, মহিলা কেউ বসে নেই। বর্তমানে তাল পাখার ডিমানড প্রচন্ড ভাবে বেড়েছে। পাইকারি ব্যবসায়িরা এস পাখা তৈরি কারিদের কদর করছে, কিন্তু পাখা পল্লিতে দেখা গেছে তারা পাখা দিয়ে পারছে না। বিশেষ করে কুষ্টিয়া ও রাজশাহি ব্যবসায়িরা অনেকে বসে থেকে পাথা নিয়ে যাচ্চে।

ব্যবসায়িরা বলছেন, তাল পাখার কদর ও অনেক বেড়েছে। প্রতিদিন বাড়ির মহিলা ও পুরুষেরা সকাল থেকে রাত ১২/১ টা পর্যন্ত পাখা তৈরি করছে। মহিলারা সকালে রান্না করে রাখে তা আবার সকাল বিকাল ২ বার খায়। আর রাতে রান্না করে ও পুরুষরা কেউ কাঁচা বাজার করতে যায়। কোলা ইউনিয়নের পারিয়াট গ্রামের সলেমত মালিথার ছেলে আবদুর রাজ্জাক জানান, তাঁদের পরিবার ২০ থেকে ২৫ বছর ধরে পাখা তৈরি করছে। এ ছাড়া তাঁদের গ্রামের শতাধিক পরিবার এ পেশায় জড়িত। ওই সব বাড়ির বয়স্ক নারী-পুরুষের পাশাপাশি ছোট ছেলে-মেয়েরাও পাখা তৈরি করতে পারে। আব্দুর রাজ্জাকের স্ত্রী রোকেয়া বেগম বলেন, ‘পাখা তৈরি করতে রং, সুতা, বাঁশ, কঞ্চি ও তালপাতার প্রয়োজন হয়। একটি তালপাতা পাঁচ টাকা দরে কিনে আনি। আর যারা পাখা সেলাইয়ের কাজ করে, তারা পাখাপ্রতি এক টাকা করে পায়। সব মিলিয়ে একটি পাখা তৈরিতে আট টাকার বেশি খরচ হয়।’ পরে পাখা গুলো ১০ থেকে ১২ টাকা দরে বিক্রি করা হয়। একজন কারিগর প্রতিদিন ৬০ থেকে ৭০টি তালপাখা তৈরি করতে পারে। রায়গ্রাম ইউনিয়নের দুলালমুন্দিয়া গ্রামের আবদুল বারিক, নুর আলীসহ অনেকে জানায়, তাদের পূর্বপুরুষেরা এই পাখা তৈরির কাজ করত। পূর্বপুরুষদের পেশাটাকে ধরে রাখার জন্য এখনো তারা পাখা তৈরির কাজ করছে। কালীগঞ্জের দুলালমুন্দিয়ার ৫০টি পরিবার ও পারিয়াট গ্রামের শতাধিক পরিবার তালপাখা তৈরি করে সংসার চালাচ্ছে।