চলতি বছরের আগস্টের মধ্যেই লংগদুতে মৎস্য অবতরণ কেন্দ্র স্থাপন হবে!

॥ তারিকুল ইসলাম – লংগদু ॥

মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রনালয়ের প্রতিমন্ত্রী মোঃ আশ্রাফ অলী খান খসরু এমপি বলেছেন, আপনারা জায়গা নির্ধারণ করুন আগামী দুই – তিন মাসের মধ্যে লংগদুতে মৎস্য অবতরণ কেন্দ্র করা হবে। আমি আপনাদের কাছে এসেছি অবতরণ কেন্দ্র সম্ভাব্যতা দেখতে এবং ঘোষনা দেওয়ার জন্য। এতে এখানকার জনসাধারণের কিছুটা হলেও উন্নয়ন হবে।

শুক্রবার,(১৭মে)।রাঙাঁমাটি লংগদু উপজেলায় মৎস্য অবতরণ কেন্দ্র স্থাপনের সম্ভাব্যতা যাচাইয়ের বিষয়ে উপজেলা মৎস্যজীবিদের সাথে মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রনালয়ের প্রতিমন্ত্রী মোঃ আশ্রাফ আলী খান খসরু এমপি এসব কথা বলেছেন।

রাঙামাটি জেলা মৎস্য উন্নয়ন কর্পোরেশন(বিএফডিসি) এর উদ্যোগে লংগদু উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে আয়োজিত মৎবিনিময় সভায় সভাপতিত্ব ও পরিচালনা করেন লংগদু উপজেলা নির্বাহী অফিসার প্রবীর কুমার রায়।
বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন, বাংলাদেশ মৎস্য গভেষনা ইনস্টিটিউট এর মহাপরিচালক ড. ইয়াহিয়া মাহমুদ, মৎস্য উন্নয়ন কর্পোরেশন (বিএফডিসি) এর চেয়ারম্যান দিলদার হোসেন, রাঙামাটি জেলা মৎস্য উন্নয়ন কর্পোরেশন এর ম্যানেজার আসাদুজ্জামান,

লংগদু উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামীলীগ সভাপতি, আব্দুল বারেক সরকার প্রতিমন্ত্রীকে উদ্দেশ্য করে বলেন, মাছ নিয়ে আমাদের রাংগামাটি যেতে যে সময় লাগে সে সময়ে গাড়ি পথে আমরা ঢাকার কাছাকাছি পৌছাতে পারবো এবং জেলেরা মাছের ন্যায্য মূল্য পাবে । এছাড়া রাঙামাটি জেলা পরিষদের সদস্য মোঃ জানে আলম, শাহ মোঃ নজরুল ইসালাম বক্তব্য রাখেন। এসময় লংগদু উপজেলা আওয়ামীলীগের নেতৃবৃন্দ, ও মৎস্যজীবিদের সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে প্রতিমন্ত্রী মোঃ আশ্রাফ অলী খাঁন খসরু এমপি বক্তব্যে আরো বলেন, লংগদুতে একটি মৎস্য লেন্ডিং স্টেশন করার জন্য আমার কাছে এখানকার কিছু মৎস্যজীবির নেতৃবৃন্দু গিয়েছেন। যার পেক্ষিতে আমি আসলাম। এটা আরো অনেক আগে হওয়ার কথা থাকলেও নানা জঠিলতায় এতোদিন হয়নি। তিনি বলেন, আমি কথা দিচ্ছি আগামী আগষ্ট মাসেই এখানে পল্টন বসানো হবে। আমার যা সাহায্য লাগে আমি করবো বিএফডিসির চেয়ারম্যান এটা বাস্তবায়ন করবেন। লংগদু উপজেলা প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তর,উপজেলা আওয়ামলীগ, উপজেলা মৎস্যজীবিলীগ এর পক্ষ থেকে প্রধান অতিথি প্রতিমন্ত্রী মোঃ আশ্রাফ আলী খান খসরু এমপিকে ফুলের তোড়া উপহার দিয়ে শুভেচ্ছা জানানো হয়।