বাঘাইছড়িতে পণ্যবাহী ট্রাক পুড়িয়ে দেওয়ার ঘটনায় পিবিসিপি’র নিন্দা ও প্রতিবাদ

॥ প্রেস বিজ্ঞপ্তি ॥

রাঙামাটির বাঘাইছড়ি উপজেলায় চাঁদা না পেয়ে মালবাহি ট্রাক পুড়িয়ে দিয়েছে পাহাড়ের অবৈধ অস্ত্রধারী সংগঠন ইউপিডিএফের সন্ত্রাসীরা। সোমবার (১০জুন) সকালে উপজেলার মারিশ্যা-দীঘীনালা সংযোগ সড়কে এ ঘটনা ঘটে। বাঘাইছড়ি উপজেলার মারিশ্যা-দীঘিনালা সংযোগ সড়কের রাবার বাগান নামক স্থানে একদল সশস্ত্র উপজাতি সন্ত্রাসী অস্ত্র দেখিয়ে মুদি মালবাহী ট্রাকটির গতিরোধ করে, সেখানে চারজন উপজাতি যুবক অস্ত্র হাতে দাড়িয়ে ছিলো। এরপর গাড়ি থেকে চালক এবং হেলপারকে নামিয়ে মালবাহী ট্রাকটি পুড়িয়ে দেয়। এই ঘটনায় উদ্ধেগ প্রকাশ করে পার্বত্য বাঙ্গালী ছাত্রপরিষদ রাঙ্গামাটি জেলা শাখা।

ট্রাকটির মালিক বাঘাইছড়ি পৌরসভার সাবেক কমিশনার মোহাম্মদ আলী এ ঘটনার জন্য ইউপিডিএফ প্রসীত গ্রুপকে দায়ী করে বলেন, চাঁদা দিতে অস্বীকার করায় ইউপিডিএফের সশস্ত্র সন্ত্রাসীরা তার ট্রাক পুড়িয়ে দিয়েছে।

পিবিসিপি রাঙ্গামাটি জেলা শাখা জেলা সভাপতি মোঃ জাহাঙ্গীর আলম বলেন, ১৯৯৭ সালের ২রা ডিসেম্বর শান্তি চুক্তি হলেও পাহাড়ের মানুষ এখন পর্যন্ত শান্তির আবাস পায়নি, তিনি বলেন পার্বত্য অঞ্চলে বাঙ্গালিদের রোহিঙ্গাদের মতো জীবণ যাপন করতে হচ্ছে সন্ত্রাসীদের জন্য। তারা পাহাড়ে অবৈধ অস্ত্রের দ্বারা সন্ত্রাসী কার্যক্রম চালিয়েই যাচ্ছে। পার্বত্য অঞ্চলে সন্ত্রাসীদের প্রতিহত করতে প্রশাসন সম্পূর্ণ ব্যর্থ হয়েছে। বার বার সন্ত্রাসীদের চিরুনি অভিযানের নামে ধরতে বলা হলেও সন্ত্রাসীরা ধরা ছোয়ার বাইরে থেকে যাচ্ছে।

পিবিসিপির জেলা সভাপতি আরো বলেন বাঘাইছড়ি উপজেলা নির্বাচনে যে হতাহতের ঘঠনা হয়েছে সে হত্যাকান্ডে বিচার না হওয়াতে এসব অপকর্ম বেড়ে চলেছে তাই তিনি বলেন এসব ঘঠনার দায় প্রসাশন কোন রকম এরাতে পারেনা। পিবিসিপি জেলা সম্পাদক আব্দুল মান্নান বলেন পার্বত্য অঞ্চলে বাঙ্গালীদের দ্বিতীয় শ্রেণীর নাগরিকদের মতো জীবন-যাপন করতে হচ্ছে। সন্ত্রাসীরা পার্বত্য অঞ্চলের বাঙ্গালীদের অর্থনৈতিক ভাবে দুর্বল করার জন্য অবৈধব অস্ত্রের ভয় দেখিয়ে মোটা অঙ্কের চাঁদা তুলেই যাচ্ছে প্রতিনিয়ত, ব্যবসায়ীরা চাঁদা দিতে দিতে ব্যাবসা থেকে মুখ ফিরিয়ে নিচ্ছে। ব্যবসায়ীরা মোটা অঙ্কের চাঁদা দিতে ব্যর্থ হলে পণ্যবাহী ট্রাক পুড়িয়ে দিচ্ছে সন্ত্রাসীরা।

ছাত্রপরিষদ নেতৃবৃন্দ বলেন প্রতিটি পণ্যবাহী গাড়ি থেকে এক থেকে দের হাজার টাকা ও এক কালীন লাখ লাখ টাকার চাঁদা না দিলে সন্ত্রাসীরা গুম, খুন ও পণ্যবাহী গাড়ি পুড়িয়ে দিচ্ছে। এতে ব্যবসায়ীরা পথে বসার উপক্রম হয়েছে। পিবিসিপি নেতৃবৃন্দ আরো বলেন যারা সন্ত্রাস ও চাঁদাবাজির মাধ্যমে পার্বত্য অঞ্চলকে অস্থিতিশীল করে জুম্মল্যান্ড করার স্বপ্ন দেখছে তাদের চিহ্নিত করে আইনের আওতায় আনার জন্য প্রশাসনেরর প্রতি জোর দাবী জানাচ্ছি। প্রশাসন ব্যর্থ হলে পার্বত্যবাসিকে সাথে নিয়ে হরতাল ও অবরোধের মতো কঠোর কর্মসূচি দেওয়ার হুশিয়ারি জানায় পিবিসিপি রাঙ্গামাটি জেলা শাখা।