ব্রেকিং নিউজ

এসডিজি অর্জনের জন্য স্থানীয়করণ ও অগ্রাধিকার নির্ণয়ের বিকল্প নাই

॥ নূর হোসেন মামুন – কাপ্তাই ॥

২০১৬ থেকে ২০৩০ সাল পর্যন্ত মেয়াদের বৈশ্বিকে উন্নয়ন এজেন্ডা বাস্তবায়নের পরিকল্পনা প্রণয়নে বাংলাদেশ ইতিমধ্যে যথেষ্ট অগ্রগতি সাধন করছে। এসডিজির ১৭টি অভীষ্টের আওতায় ১৬৪টি লক্ষ্যমাত্রার প্রতিটির জন্য ইতিমধ্যে লিড, কো-লিড, সহযোগী মন্ত্রনালয়, বিভাগ চিহ্নিত করা হয়েছে। এসডিজি বাস্তবায়ন, মূল্যায়ন ও পরিবীক্ষণের লক্ষ্যে প্রয়োজনীয় তথ্য-উপাত্ত প্রাপ্তিকল্পে ইতিমধ্যে ‘ডাটা গেপ এনালাইসিস’ সম্পন্ন করা হয়েছে। এছাড়া এসডিজি বাস্তবায়নে প্রয়োজনীয় অর্থ ও সম্পদের প্রয়োজনীয়তা চিহ্নিতকরণ পূর্বক ‘এসডিজি মূল্যায়ন ও অর্থায়ন কৌশল প্রয়োজন’ও প্রণীত হয়েছে। যেহেতু এসডিজি মূলত একটি বৈশ্বিক উন্নয়ন এজন্ডা এবং এর বাস্তবায়ন একটি দীর্ঘমেয়াদী বিষয় কাজেই যথাযথভাবে এটি অর্জনের জন্য স্থানীয়করণ ও অগ্রাধীকার নির্ণয়ের কোন বিকল্প নাই।

প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের গভর্নেন্স ইনোভেশন ইউনিটের সহযোগীতায় ও কাপ্তাই উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে উৎসবমূখর পরিবেশে বুধবার কাপ্তাই উপজেলা মিলনায়তন প্রাঙ্গনে উপজেলাটির সকল দপ্তরের বিভাগীয় কর্মকর্তাগণ, জনপ্রতিনিধি, নেতৃস্থানীয় ব্যক্তিবর্গ ও সাংবাদিকের উপস্থিতিতে ৮টি গ্রুপে ভাগ করে স্থানীয় পর্যায়ে টেকসই উন্নয়ন অভীষ্ট (এসডিজি) বাস্তবায়ন বিষয়ক কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়েছে। কর্মশালায় বক্তারা এমন কথা বলেন।

কাপ্তাই উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আশ্রাফ আহমেদ রাসেলের সভাপতিত্বে এতে মূখ্য আলোচক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, কাপ্তাই উপজেলা চেয়ারম্যান মো. মফিজুল হক। কাপ্তাই উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা নাদির আহমেদ চৌধুরীর পরিচালনায় এসময় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, কাপ্তাই উপজেলা আ.লীগ সভাপতি অংসুইছাইন চৌধুরী, কাপ্তাই উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মো. নাছির উদ্দিন, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান উমেচিং মারমা, কর্ণফুলী সরকারী কলেজের অধ্যক্ষ এ.এইচ.এম বেলাল চৌধুরী, ওয়া¹া ট্রি স্টলের এমডি ও বিশিষ্ট লেখক আমিনুর রশিদ কাদেরী।