কথা রাখলেন পুলিশ সুপারঃ ১০৩ টাকায় পুলিশের চাকুরী পেলো রাঙামাটির ৯৩ প্রার্থী!

॥ আলমগীর মানিক ॥

প্রথমবারের মতো পার্বত্য জেলা রাঙামাটিতে মাত্র ১০৩ টাকার বিনিময়ে বাংলাদেশ পুলিশের কনস্টেবল পদে চাকুরি পেলো জেলার ৯৩ জন চাকুরিপ্রার্থী। শিক্ষা, শারিরিক যোগ্যতা ও নেশামুক্ত চাকুরীপ্রার্থীদের অগ্রাধিকার দিয়ে রাঙামাটির বিভিন্ন প্রান্তের স্থায়ী বাসিন্দা ৬০৯জন চাকুরীপ্রার্থী থেকে বাছাই করে মেধাবী ও নেশামুক্ত ৯৩ জনকে কনস্টেবল পদে নিয়োগ দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন রাঙমাটির পুলিশ সুপার মোঃ আলমগীর কবীর-পিপিএম।

৩০শে জুন রোববার বিকেলে ফলাফল ঘোষণার মাধ্যমে এই তথ্য জানানো হয়। জানাগেছে, ৬০৯ জন প্রার্থী হতে শারীরিক মাপ ও শারীরিক পরীক্ষায় ৩৬৭ জন উত্তীর্ণ হয়েছে। শারীরিক পরীক্ষায় উত্তীর্ণ প্রার্থীদের হতে লিখিত পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয় ১৬৯ জন প্রার্থী।

মৌখিক পরীক্ষা শেষে ট্রেইনি রিক্রুট কনস্টেবল নিয়োগ বোর্ড সদস্যদের চুড়ান্ত মনোনয়নে সাধারণ কোটায় মেধাভিত্তিক ৭৫ জন, মুক্তিযোদ্ধা কোটায় ৩ জন, পোষ্য কোটায় ১ জন বাকি ১৪ জন (সাধারণ কোটা) মহিলা, উর্ত্তীণ হয়েছে সর্বমোট উত্তীর্ণ হয় ৯৩ জন পরীক্ষার্থী। মেডিকেল পরীক্ষা, ডোপ টেষ্ট পরীক্ষাসহ তাদের প্রদত্ত স্থায়ী ও অস্থায়ী ঠিকানা যাচাই-বাছাই পূর্বক এই ৯৩ জনকে আগামীতে কনস্টেবল পদে ট্রেনিংয়ে অংশ নিতে পুলিশ বাহিনীর পক্ষ থেকে ডাকযোগে পত্র প্রদান করা হবে।

বাংলাদেশ পুলিশের গর্বিত সদস্য হওয়ার জন্য চুড়ান্তভাবে মনোনীতদেরকে জেলা পুলিশের পক্ষ থেকে ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানান রাঙামাটি জেলার পদকপ্রাপ্ত পুলিশ সুপার মোঃ আলমগীর কবীর-পিপিএম। এসময় ট্রেইনি রিক্রুট কনস্টেবল নিয়োগ পরীক্ষা বোর্ড রাঙামাটি’র সদস্য চট্টগ্রাম রেঞ্জ অফিস এর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন ও অর্থ) পুলিশ সুপার পদে পদোন্নতি প্রাপ্ত মোহাম্মদ সরওয়ার আলম ও চট্টগ্রাম জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (হাটহাজারী সার্কেল) আবদুল্লাহ আল মামুনসহ জেলা পুলিশের উদ্বর্তন কর্মকর্তাগণ উপস্থিত ছিলেন। এদিকে, কোনো প্রকার হয়রানী ছাড়া বাংলাদেশ পুলিশের একজন গর্বিত সদস্য হতে প্রাথমিক পদক্ষেপ পার হতে পেরে চাকুরিপ্রাপ্তদের পরিবারে চলছে আনন্দ উৎসব ও মিষ্টি বিতরণ।

রাঙামাটির পুলিশ সুপার মোঃ আলমগীর কবীর-পিপিএম জানিয়েছেন, চেষ্টা করেছি শত ভাগ স্বচ্ছ নিয়োগের। শেষ পর্যন্ত তাই হয়েছে। ৬০৯ জন কনস্টেবল প্রার্থী থেকে বাছাই করে যোগ্য ও মেধাবী ৯৩জনকে নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ও আইজিপি স্যার যে নির্দেশ দিয়েছেন তা অক্ষরে অক্ষরে পালন করে একটি স্বচ্ছ নিয়োগ পরীক্ষা সম্পন্ন করেছি। পুলিশের নিয়োগ বিধিমালা অনুসারে যারা দক্ষ ভাল ও মেধাবি এবং নেশামুক্ত হিসেবে বিবেচিত হয়েছে তারাই নিয়োগ পেয়েছে। চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় এই নিয়োগ কাজ শেষ করা হয়েছে। এখনো যদি কোন অনিয়ম দূর্নীতির খবর পাওয়া যায় তা হলে যার বিরুদ্ধে অভিযোগ তার নিয়োগ বাতিল করা হবে বলেও হুশিয়ারী দিয়েছেন পুলিশ সুপার আলমগীর কবীর।

মাত্র ১০০ টাকার ব্যাংক ড্রাফট এবং ৩ টাকার আবেদন ফরম এর মাধ্যমে গত ২৪ তারিখে ৬০৯ জন চাকুরিপ্রার্থী আবেদনকারির মধ্যে উচ্চতা ও শারীরিক ফিটনেস পরীক্ষায় টিকে ৩৬৭ জন প্রার্থী লিখিত পরীক্ষায় অংশগ্রহণ নেয়। এদের মধ্যে উত্তীর্ণ হয় ১৬৯জন। তাদের মধ্য থেকে বাছাই করে ৯৩জনকে কনস্টেবল পদে নিয়োগ প্রদানের সিদ্ধান্ত নিয়েছে ট্রেইনি রিক্রুট কনস্টেবল নিয়োগ পরীক্ষা বোর্ড-রাঙামাটি কর্তৃপক্ষ।