জুরাছড়িতে পরিবার পরিকল্পনা পদ্ধতি শতভাগ বাস্তবায়ন হয়েছে!

॥ জুরাছড়ি প্রতিনিধি ॥

বিশ্ব জনসংখ্যা দিবস উপলক্ষে র‌্যালী ও আলোচনা সভায় উপজেলা চেয়ারম্যান সুরেশ কুমার চাকমা বলেন,সারা দেশের ন্যায় পরিবার পরিকল্পনা পদ্ধতি শতভাগ গ্রহণ করেছেন পার্বত্য এলাকার জুরাছড়ি উপজেলার প্রান্তিক জনগণ। যারা পাহাড়ে বসবাস করেন বর্তমানে তাদের ক্ষেত্রে দেখা যায় প্রায় পরিবারের একটি কিংবা দুটি সন্তান। এজন্য পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ও মাঠকর্মীদের উপজেলা চেয়ারম্যান ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেছেন।

১১ জুলাই ২০১৯ বিশ্ব জনসংখ্যা দিবস ও জনসংখ্যা উন্নয়নে আন্তর্জাতিক সম্মেলনে ২৫ বছর প্রতিশ্রুতির দ্রুত বাস্তবায়ন উপলক্ষে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মাহফুজুর রহমান এর সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন বিশেষ অতিথি উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান রিটন চাকমা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান মিসেস আলপনা চাকমা,উপজেলা স্বাস্থ্য বিভাগের প্রতিনিধি ডাঃ মোহাম্মদ আনিছুর রহমান।

উপজেলা পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা রেমিন চাকমা’র পরিচালনায় বক্তরা বলেন,বাংলাদেশে এখনো বাল্য বিবাহ ৫৯ শতাংশ মেয়ের বিয়ে হয়ে থাকে তাই এরা অতি অল্প বয়সে সন্তান প্রসব করতে সক্ষম হন। সারাদেশের ন্যায় পার্বত্য এলাকাতেও কঠোর ভাবে বাল্য বিবাহ প্রতিরোধ করার জন্য সকল স্তরের জনগণের প্রতি আহব্বান করেন। এর পাশা-পাশি বর্তমানে জুরাছড়ি উপজেলার ম্যালেরিয়ার প্রকোপ দেখা যাচ্ছে কিভাবে এই ম্যালেরিয়া শূন্য কোটায় নিয়ে আসা যায় সেজন্য স্বাস্থ্য বিভাগের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের প্রতি অনুরোধ করেছেন উপজেলা চেয়ারম্যান সুরেশ কুমার চাকমা।

অনুষ্ঠান শেষে উপজেলা পরিবার কল্যাণ পরিকল্পনা শ্রেষ্ঠ অবদানের জন্য ক্রেস্ট ও সার্টিফিকেট প্রদান করা হয়।