ব্রেকিং নিউজ

রাঙ্গামাটিতে ‘জনগোষ্ঠীর জলবায়ু বিপদাপন্নতা নিরূপণ এবং স্থানীয় আপদ সহনশীল পরিকল্পনা’ প্রশিক্ষণ উদ্বোধন

॥ নিজস্ব প্রতিবেদক ॥

রাঙ্গামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদের সদস্য রেমলিয়ানা পাংখোয়া বলেছেন, বন-জঙ্গল উজাড় ও ঋতুর তারতম্যতার কারণে বাড়ছে অতিবৃষ্টি, পাহাড় ধসসহ বিভিন্ন প্রাকৃতিক দুর্যোগ। এ সব থেকে রক্ষা ও ক্ষতির পরিমান কমিয়ে আনতে সরকার এবং বিভিন্ন দাতা সংস্থার সম্মিলিত উদ্যোগে বিভিন্ন পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করা হচ্ছে।

বৃহস্পতিবার (১১ জুলাই) রাঙামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদের সিএইটি ক্লাইমেট রিজিলিয়েন্স প্রজেক্ট (সিসিআরপি) ও এসআইডি-সিইচটি, ইউএনডিপির সহযোগিতায় আয়োজিত জনগোষ্ঠীর জলবায়ু বিপদাপন্নতা নিরূপণ এবং স্থানীয় আপদ সহনশীল পরিকল্পনা প্রণয়ন বিষয়ক দু’দিন ব্যাপী প্রশিক্ষণ উদ্বোধনকালে রাঙ্গামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদের সদস্য রেমলিয়ানা পাংখোয়া এসব কথা বলেন।

জেলা পরিষদের মিনি সম্মেলনকক্ষে অনুষ্ঠিত দু’দিন ব্যাপী প্রশিক্ষণ উদ্বোধনী সভায় সিএইটি ক্লাইমেট রিজিলিয়েন্স প্রজেক্টের জেলা কর্মকর্তা ড.শিশির স্বপন চাকমার সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন এসআইডি-সিইচটি, ইউএনডিপির জেলা কর্মকর্তা মোঃ আজাদ রহমান, সিএইটি ক্লাইমেট রিজিলিয়েন্স প্রজেক্টের মনিটরিং কর্মকর্তা শোভন চাকমা, টেকনিক্যান কর্মকর্তা পলাশ খীসা প্রমুখ।

প্রশিক্ষণ কর্মশালায় রেমলিয়ানা পাংখোয়া আরো বলেন, পার্বত্য অঞ্চলে এক সময় সবুজ শ্যামলে পাহাড়ে ঘেরা সৌন্দর্য্যে ভরপুর ছিল। এখন আর সে রকম নেই। কালক্রমে বন-জঙ্গল উজাড় হয়ে হারিয়ে যাচ্ছে এ জনপদের প্রাকৃতিক সৌন্দর্য্য।

তিনি প্রশিক্ষণার্থীদের উদ্দেশ্যে বলেন, সময় কাটানোর জন্য প্রশিক্ষণ নেওয়া হলে এই প্রকল্পের আলোর মুখ দেখবেনা। আর সর্বসাধারণও পাবেনা কাঙ্খিত সুবিধা। সুতরাং প্রশিক্ষণ এমনভাবে শিখে নিতে হবে যাতে সর্বসাধারণ কাঙ্খিত সুযোগ সুবিধা অর্জন করতে পারে।