পাহাড়ী ঢলে শেষ সম্বলটুকু হারিয়ে নিঃস্ব বাঘাইছড়ির প্রতিবন্ধী নুরুল ইসলাম

॥ বাঘাইছড়ি প্রতিনিধি ॥

বাঘাইছড়িতে ভারী বর্ষণ ও পাহাড়ী ঢলে চরম দুর্ভোগে পড়েছে স্থানীয়রা। রাস্তাঘাট তলিয়ে ও ঘরবাড়ী ডুবে পানি বন্দি হয়ে পড়েছে ৮ টি ইউনিয়নের প্রায় ৩ হাজার মানুষ। আশ্রয় কেন্দ্র খোলা হয়েছে ২৪ টি এতে ৫ শত ক্ষতিগ্রস্ত  পরিবার আশ্রয়গ্রহণ করেছে, তাদের শুকনো খাবার ও বিশুদ্ধ পানির বিতরণ করেছে উপজেলা প্রসাশন।

এদিকে টানা বৃষ্টিতে খামারে পানি প্রবেশ করে এক প্রতিবন্ধী খামারীর প্রায় ৫০০ পূর্ণবয়স্ক মুরগী মারা গেছে। খামারটির মালিক নুরুল ইসলাম (৪৫) মারিশ্যা ইউনিয়নের ৯ নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা তিনি সমাজ সেবা কার্যালয়ের একজন ভাতা ভোগী প্রতিবন্ধী। দুই ছেলে ও এক মেয়ে সহ পাঁচ সদস্যের পরিবার তার।

ক্ষতিগ্রস্ত খামার মালিক নুরুল ইসলাম বলেন, পাঁচ সদস্যের পরিবার নিয়ে ছোট একটি চায়ের দোকানের মাধ্যমে টানাটানির সংসারে একটু সচ্ছলতার আশায় কিছুদিন আগে সমাজ সেবা কার্যালয় এবং আইডিএফ এনজিও থেকে ঋণ নিয়ে ৭০০ টি বাচ্চা নিয়ে দুইটি ঘরে পল্ট্রি খামারটি শুরু করি দুইমাস পূর্বে কিন্তুু টানা বৃষ্টি ও পাহাড়ী ঢলের পানিসহ দুর্যোগে আমার ৫০০ টি মুরগী মারা গেলো। এখন আমি নিঃস্ব, কিভাবে এখন ঋণ প্ররিশোধ করবো ভেবে পাচ্ছি না। সরকারীভাবে যদি কোন সহযোগীতা না পাই তাহলে আমায় পথে বসতে হবে,  সব মিলিয়ে প্রায় আমার ২ লক্ষ টাকা ক্ষতি হয়ে গেলো।

এবিষয়ে উপজেলা প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা ডাঃ প্রবাল চৌধুরী বলেন, প্রাকৃতিক দূর্যোগে যেহেতু মুরগীগুলো মারা গিয়েছে তাই আমরা চেষ্টা করবো প্রতিবন্ধী এই খামারী নুরুল ইসলামের পাশে থাকার। আমি এরইমধ্য আমার সহকারী নূর আলমকে সরেজমিনে পাঠিয়েছি ক্ষয়ক্ষতির পরিমান নিরুপন করার জন্য।
বাঘাইছড়ি উপজেলা আইডিএফ ম্যানেজার অঙ্গদ মারমা বলেন, যেহেতু খামারী প্রতিবন্ধী ও আইডিএফের একজন গ্রাহক এবং আইডিএফ থেকে ২৫ হাজার টাকা ঋণ নিয়েছেন আমরা উনার বিষয়টি বিবেচনায় রাখবো।