কাউখালীতে নিরবিচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ সরবরাহ ও ভূতুড়ে বিল রোধে প্রবীণদের মানববন্ধন

॥ কাউখালী প্রতিনিধি ॥

নিরবিচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ সরবরাহ, গ্রাহক হয়রানী বন্ধসহ বিভিন্ন দাবীতে কাউখালীতে মানববন্ধন করেছে বেতবুনিয়ার ৫০উর্দ্ধদের সংগঠন অগ্রজ নাগরিক সমাজ। গতকাল সোমবার সকাল ১১টায় কাউখালী উপজেলা সদরে মানববন্ধন শেষে উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবরে স্মারকলিপি প্রদান করা হয় সংগঠনের পক্ষ থেকে।

জাকির হোসেনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত মানববন্ধনে উপস্থিত ছিলেন, অগ্রজ নাগরিক সমাজের সাধারণ সম্পাদক এমএ হামিদ, ডাঃ অংহলাপ্রু মারমা, ডাঃ রবি কুমার চাকমা, আব্দুল মান্নান লিডার, জহির আহাম্মদ চৌধুরী, লোকমান তালুকদার ও মাষ্টার ক্যাথোয়াইপ্রু মারমাসহ অন্যান্যরা।

মানববন্ধনে বক্তারা অভিযোগ করেন, আবাসিক প্রকৌশলীর চরম অবহেলা ও অদক্ষতায় কোন রকম আগাম নোটিশ ছাড়াই বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ রেখে জনগণকে এক প্রকার জিম্মি করে রাখা হয়েছে। তারা বলেন, প্রচন্ড দাবদাহে বিদ্যুৎবিহীন বেতবুনিয়ার মানুষ চরম ভোগান্তিতে পড়েছে। কাউখালীর সব জায়গায় বিদ্যুৎ সরবরাহ স্বাভাবিক থাকলেও সামান্য বৃষ্টিতে বেতবুনিয়াতে বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ থাকে দিনের পর দিন।

অগ্রজ নাগরিক সমাজের সভাপতি ও কাউখালী উপজেলার সাবেক চেয়ারম্যান অংচাপ্রু মারমা জানান, ভুতুরে বিলের যন্ত্রনায় বেতবুনিয়ার মানুষ অতিষ্ঠ। তিনি বলেন, বিদ্যুৎ বিভাগ কোন প্রকার মিটার পরিদর্শন ছাড়াই প্রতি মাসে এলাকা মানুষকে বিদ্যুৎ ব্যয়ের চেয়ে অধিক বিল দিয়ে অতিরিক্ত অর্থ পরিশোধ করতে বাধ্য করা হচ্ছে। এ বিষয়ে সংশ্লিষ্ট দপ্তরে অভিযোগ করলেও কম্পিউটার বিলের দোহাই দিয়ে গ্রাহকদের ঘাড়ে চাপিয়ে দেয়া হচ্ছে অতিরিক্ত বিল।

অভিযোগের বিষয়ে বেতবুনিয়া বিদ্যুৎ সরবরাহে আবাসিক প্রকৌশলী এসএম তৈয়ব হাসান জানান, ঘাগড়া থেকে বেতবুনিয়া পর্যন্ত প্রায় ১০০ কিঃ মিটারের বিদ্যুৎ সংযোগ রয়েছে। বর্ষা মৌসুমে অতিবৃষ্টির কারণে বিভিন্ন স্থানে বৈদ্যুতিক খুটিসহ নানা ধরণের ত্রুটি দেখা দিতে পারে। গভীর জঙ্গলে ভেতর দিয়ে যাওয়া দীর্ঘ লাইনের ত্রুটি বিচ্যুতি বের করতে সময়ের দরকার হয়।

তাছাড়া ভুতুরে বিল রোধে বিদ্যুৎ বিভাগ ও উপজেলা পরিষদের সমন্বয়ে যৌথভাবে গ্রাহক শুমারীর উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। মানববন্ধন শেষে উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবরে সংগঠনের সভাপতি অংচাপ্রু মারমার স্বাক্ষরিত স্মারকলিপি প্রদান করা হয়।