খাগড়াছড়িতে সরকারী বেসরকারী প্রতিষ্ঠান কর্তাদের ভয়-ভীতি দেখিয়ে চাঁদাবাজীর অভিযোগ!

॥ আল-মামুন – খাগড়াছড়ি ॥

অনিয়মের অভিযোগ এনে ভয়-ভীতি প্রদর্শনের মাধ্যমে খাগড়াছড়িতে বিভিন্ন সরকারী-বেসরকারী প্রতিষ্ঠানে কর্তা ব্যক্তিদের কাছ থেকে চাঁদাবাজীর অভিযোগ উঠেছে একটি সিন্ডিকেট চক্রের বিরুদ্ধে। সাংবাদিকতার আড়ালে এসব চাঁদাবাজির বিরুদ্ধে প্রতিকার চেয়ে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে লিখিত অভিযোগ করা হয়েছে বলেও জানা গেছে।

অভিযোগ উঠেছে, বেপোরোয়া চক্রটি বেশ কয়েক মাস ধরে খাগড়াছড়ি জেলা শহরসহ বিভিন্ন উপজেলায় সরকারী বেসরকারী বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে কর্মকর্তাদের অনিয়ম করার অভিযোগ এনে সংবাদ প্রকাশের ভয়-ভীতি প্রদর্শনের মাধ্যমের মোটা অঙ্কের অর্থ হাতিয়ে নিচ্ছে। দাবীকৃত অর্থ দিতে অস্বীকৃতি জানালে তাদের বিরুদ্ধে ভিত্তিহীন সংবাদ প্রচারেরর ভয়-ভীতি প্রর্দশনের হুমকি দেওয়ারও অভিযোগ উঠেছে।

জানা যায়, সিন্ডিকেট চক্রটি ইতিমধ্যে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে তাদের ক্ষমতার প্রভাব বিস্তার করে মোটা অঙ্কের অর্থ হাতিয়ে নিয়েও ক্ষান্ত হয়নি। একের পর এক বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে চাঁদা দাবীতে অতিষ্ঠ করে তুলেছে প্রতিষ্ঠান কর্মকর্তা-কর্মচারীদের। এ সকল বিষয়ে লিখিত অভিযোগ খতিয়ে দেখলেই বের হয়ে আসবে ঘটনার আসল রহস্য। ফলে পেশাজীবি সাংবাদিকদের সম্মানহানীসহ প্রশ্নবিদ্ধ হতে হচ্ছে পার্বত্য এ জেলায়।

খাগড়াছড়ি টিভি জার্নালিষ্ট এসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক এইচ এম প্রফুল্ল বলেন, খাগড়াছড়িতে হলুদ সাংবাদিক ও অভিযুক্ত সাংবাদিক নামধারী চাঁদাবাজদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে কাজ চলছে। সাংবাদিকদের নাম ভাঙ্গিয়ে কোন ধরনের দূর্নীতির সাথে সম্পৃক্ততা অপকর্মের সাথে জড়িতদের ছাড় দেওয়া হবে না এবং অপকর্মের দায়িত্ব সংশ্লিষ্ট ব্যক্তি ও তার প্রতিষ্ঠানকে নিতে হবে মন্তব্য করেন। সে সাথে তথ্য প্রমাণ পাওয়া গেলে আইনি ব্যবস্থা গ্রহণে পদক্ষেপ নেওয়া হবে বলেও তিনি জানান।

অপর দিকে-খাগড়াছড়ি সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি নুরুল আজম বলেন, অনেক সময় দেখা যায় প্রকৃত দূর্নীতিবাজদের সংবাদ প্রকাশ করলেও চাঁদাবাজীর অভিযোগ করা হয় সাংবাদিকদের বিরুদ্ধে। যদি সে রকম না হয় তবে চাঁদাবাজী সংক্রান্ত অভিযোগের বিষয়টি দু:খজনক ও সংবাদকর্মীদের জন্য অসম্মানজনক বলে মন্তব্য করেন। সে সাথে ব্যক্তি বিশেষের বিরুদ্ধে এ ধরনের কর্মকান্ডের ফলে পেশাজীবি সাংবাদিকরা প্রশ্নের মুখে পড়তে হচ্ছে বলে ক্ষোভ প্রকাশ করেন।

এ সকল ঘটনায় সাংবাদিক নেতাদের সহযোগিতা চেয়ে সিন্ডিকেট চক্রকে সনাক্ত করে দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহণের দাবী জানিয়ে স্থানীয় সচেতন মহল ও ক্ষুব্দ ভুক্তভোগিরা।