হালদা দুষণের দায়ে এশিয়ান পেপার মিলস বন্ধের নির্দেশ!

॥ মোহাম্মদ হোসেন – হাটহাজারী ॥

হালদা নদী দুষণের দায়ে এশিয়ান পেপার মিলসের উৎপাদন বন্ধ রাখার নির্দেশ দিয়েছে পরিবেশ অধিদপ্তর। বর্জ্য মাধ্যমে প্রাকৃতিক মৎস্য প্রজনন ক্ষেত্র হালদা নদী দূষণের প্রমান পাওয়ায় এই সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। চট্টগ্রামের হাটহাজারী উপজেলার নন্দীরহাট এলাকায় মিলস’টি অবস্থিত।রবিবার দুপুরে অধিপ্তরের চট্টগ্রাম মহানগরের পরিচালক আজাদুর রহমান মল্লিক তার কার্যালয়ে শুনানি শেষে এ সিদ্ধান্ত দেন। এর আগে এই পেপার মিলকে একাধিকবার জরিমানা এবং সতর্ক করলেও তারা দূষণ বন্ধে কোনো কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণ না করায় এবার চূড়ান্ত ভাবে কারখানাটি বন্ধ করে দেয় পরিবেশ অধিদপ্তর।

দীর্ঘদিন ধরে হাটহাজারীর নন্দীহাট এলাকায় অবস্থিত এশিয়ান পেপার মিল এর অপরিশোধিত তরল বর্জ্য একটি ছড়া দিয়ে হালদা নদীতে ফেলে দূষণ করে আসছিল। বর্জ্যরে কারনে হালদা নদীর ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। শুনানির পর সঠিক বর্জ্য ব্যবস্থাপনা, ত্রুটি সংশোধন করে ইটিপি সার্বক্ষণিক চালু রাখার পদক্ষেপ গ্রহণ ও পরিবেশসম্মত স্লাজ অপসারণের ব্যবস্থা নিতে মিল কর্তৃপক্ষকে নির্দেশ দিয়েছে। এসব ব্যবস্থা গ্রহণ না করা পর্যন্ত কারখানার উৎপাদন বন্ধ রাখার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।
কেমিস্ট মোরশেদ আলম চৌধুরী, জেনারেল ম্যানেজার রঘুনাথ চৌধুরী এবং প্রধান প্রকৌশলী (যান্ত্রিক) মো. শফিউল আলম।

গত (১০ আগস্ট) রাতে ছড়া খালেও অপরিশোধিত তরল বর্জ্য ছাড়ার খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে ছুটে যান হাটহাজারীর উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) রুহুল আমীন। পরদিন ১১ আগস্ট কারখানাটি পরিদর্শন করেন হালদা গবেষকরা। পরিবেশ অধিদপ্তরের কর্মকর্তারা ১৪ আগস্ট মিলসটি পরিদর্শনে বর্জ্য ব্যবস্থাপনা খুবই নাজুক দেখতে পান।

এর আগে গত ৩০ মে হালদা নদীর রাউজান অংশে একটি অনুষ্ঠানে যোগ দিতে এসে পানি সম্পদ মন্ত্রণালয়ের সচিব কবির বিন আনোয়ার স্থানীয় বাসিন্দা ও সংশ্লিষ্টদের কাছ থেকে অভিযোগ পেয়ে এশিয়ান পেপার মিলের বিরুদ্ধে মামলাসহ প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশ দেন।