সন্তান হত্যার বিচার চেয়ে অসহায় মায়ের আকুঁতি! ঘটনাকে ভিন্নখাতে প্রবাহের অভিযোগ

॥ মাসুদ পারভেজ নির্জণ ॥

শ্বশুর বাড়িতে গলায় রশি পেছিয়ে এক যুবককে হত্যা করা হয়েছে উল্লেখ করে সন্তান হত্যায় জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিসহ স্থানীয় প্রভাবশালী চক্রের হয়রানির থেকে মুক্তি পেতে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ চেয়ে আবেদন জানিয়েছেন এক বৃদ্ধ মা। দিন মজুর ৫৫ বছর বয়সী গতদরিদ্র জামেনা বেগম গত ২০শে আগষ্টে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয়ে ডাকযোগে প্রেরিত তার আবেদনে উল্লেখ করেন, গত ৩০ জুলাই মঙ্গলবার তার ছেলে মৃত আমজাদকে তার স্ত্রী শ্বশুর ও শাশুরি সংঘবদ্ধ হয়ে হত্যা করে।

তিনি বলেন, আমার ছেলেকে হত্যার পর স্বাভাবিক মৃত্যু বোঝানোর জন্য আমার ছেলের মৃতদেহটি খাটের উপর শুইয়ে রাখে। আবেদনে তিনি আরো জানান, ঘটনার ১ মাস আগে আমার ছেলেকে আমার বেয়াই-বেয়াইন সহ আরো দুইজন যুবক মিলে রাত ১ টার সময় বেদম মারধর করে। আমার ছেলের সুরতহাল রিপোর্ট ও ময়নাতদন্তের প্রাথমিক প্রতিবেদনে গলায় ফাঁস লাগিয়ে ও নির্যাতনের মাধ্যমে হত্যার আলামত পাওয়া গেছে। এমন কি গোসল করানোর সময় আমার ছেলের অন্ডকোষ থ্যাতলানো দেখতে পায় বলে প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়।

আমি এবং আমার ভাই ঘটনাস্থলে গিয়ে দেখতে পাই আমার ছেলের গলায় ফাঁস লাগানোর দাগ এবং পিঠে ফোলা জখমের চিহ্ন। আমি আমার ভাইয়ের মাধ্যমে পুলিশকে অবহিত করি। এরপর এলাকার প্রভাবশালী একটি চক্রসহ আমার ছেলের আতœীয় স্বজন আমাকে বিনা ময়নাতদন্তে লাশ দাফনের জন্য পীড়াপীড় করতে থাকে। আমি আইনে পথে অগ্রসর হওয়ার ব্যপারে অনড় থাকলে ,তারা আমাকে ভয়ভীতি প্রদর্শন করে। আমার দায়েরকৃত অভিযোগ রাঙামাটি কোতোয়ালি থানায় ১ আগস্টে মামলা হিসেবে রেকর্ড হয়। যার মামলা নং-০১।

এদিকে ঘটনাকে ভিন্নখাতে প্রবাহিত করার লক্ষ্যে পুলিশ বর্তমানে আমার ছেলের হত্যাকারী হিসেবে আমার মেয়ের জামাই মোঃ আল আমিন(২৫)কে আসামী হিসেবে সোপর্দ করে এবং রিমান্ডের আবেদন করে। অথচ আসল আসামীদের রিমান্ডের প্রয়োজনীতা অনুভব করেনি পুলিশ। আমার মেয়ের জামাই শতভাগ নির্দোষ।

আবেদনে তিনি আক্ষেপ করে জানান, প্রভাবশালীদের ইশারায় আমার ছেলের হত্যাকারী হিসেবে আমার নিকটাতœীয়দের আটক করে আমাকে মামলা কার্যক্রম থেকে বিরত রাখার অপকৌশল ছাড়া আর কিছু নয়। আমি আমার ছেলেকে আর ফিরে পাবোনা,কিন্তু আর কোন মা যেন সন্তান হারা না হয় তাই তিনি প্রকৃত দোষীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানান।