আকস্মিক পরিবহন ধর্মঘটে চরম ভোগান্তিতে রাঙ্গামাটির যাত্রীরা!

॥ নিজস্ব প্রতিবেদক ॥

চট্টগ্রাম বিভাগীয় গণ ও পণ্য পরিবহন মালিক ঐক্য পরিষদের আহ্বানে ৯ দফা দাবি বাস্তবায়নের লক্ষ্যে রাঙ্গামাটিতে অনির্দিষ্টকালের জন্য পরিবহন ধর্মঘট চলছে।

চট্টগ্রাম বিভাগীয় গণ ও পণ্য পরিবহন মালিক ঐক্য পরিষদের আহ্বানে ৯ দফা দাবি বাস্তবায়নের লক্ষ্যে রাঙ্গামাটিতে অনির্দিষ্টকালের জন্য পরিবহন ধর্মঘট চলছে। রাঙ্গামাটি শহরে সিএনজি অটোরিক্সা চলাচল করলেও ধর্মঘটের কারণে সকালে রাঙ্গামাটি থেকে কোনও ধরনের দূরপাল্লার যাত্রীবাহী ও পন্যবাহী বাস ছেড়ে যায়নি। এতে ভোগান্তিতে পড়েছেন দূর পাল্লার যাত্রী ও সাধারণ পর্যটকরা।

যাত্রী ও পর্যটকদের অভিযোগ, কোনো ধরনের আগাম ঘোষণা ছাড়াই অনির্দিষ্টকালের জন্য পরিবহন ধর্মঘট ডাকায় বাস স্টেশনে এসে অনেকেই আটকা পড়েছেন। আগে থেকে জানানো হলে এই ভোগান্তি হতো না।

৯ দফা দাবি বাস্তবায়নের লক্ষ্যে রাঙ্গামাটিতে অনির্দিষ্টকালের জন্য পরিবহন ধর্মঘট চলছে। ধর্মঘটের কারণে সকালে রাঙ্গামাটি থেকে কোনও ধরনের দূরপাল্লার যাত্রীবাহী ও পন্যবাহী বাস ছেড়ে যায়নি। তবে রাঙ্গামাটি শহরে ও অভ্যন্তরীন রুট গুলোতে যানবাহন চলাচল স্বাভাবিক রয়েছে। ধর্মঘটের কারণে ভোগান্তিতে পড়েছেন দূর পাল্লার যাত্রী ও সাধারণ পর্যটকরা।

দাবী দাওয়ার কথা বলে ইউনিক পরিবহনের কাউন্টার ম্যানেজার জানান, রাঙ্গামাটি শহরে সকাল থেকে কোন বাস ছেড়ে যাচ্ছে না। আমাদের গাড়ী আছে কিন্তু আমরা টিকেট বিক্রি করতে পারছি না।

গণ ও পণ্য পরিবহন মালিক ঐক্য পরিষদের ৯ দফা দাবি সম্পর্কে মঈন উদ্দিন সেলিম বলেন, গণ ও পণ্য পরিবহনের কাগজপত্র হালনাগাদ করার জন্য জরিমানা মওকুফ করতে হবে, ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে স্থাপিত ওয়েট স্কেল দুটি পরিচালনার দায়িত্ব বাংলাদেশ সেনাবাহিনীকে দিতে হবে।

এদিকে আকস্মিক ধর্মঘটের ফলে রাঙ্গামাটিতে আটকা পড়েছে শত শত যাত্রী। যাত্রীদের দাবী ১ দিন আগে থেকেও যদি ধর্মঘটের কথা জানতে পারতাম তাহলে আমাদের আজকে এই ভোগান্তি হতো না। তাই ভোগান্তি কমাতে বাস মালিক সমিতির নেতৃবৃন্দকে আরো বেশী সচেতন হওয়ার দাবী জানান যাত্রীরা।