থানচিতে মৌজা হেডম্যানের কার্যালয় পুড়ে ছাই!

॥ থানচি প্রতিনিধি ॥

বান্দরবানে থানচিতে মৌজা হেডম্যানের কার্যালয়ের আগুনের পুড়ে ছাই। রোববার ৮ই সেপ্টেম্বর বিকাল ৫.২৩ মিনিটে সময় ৩৬২নং থানচি মৌজা হেডম্যানের কার্যালয়ের আগুন দেখা যায়। কার্যালয়ের ফার্নিচারসহ প্রায় ৮ লক্ষ টাকা ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে বলে ৩৬২নং থানচি মৌজা হেডম্যানের পরিবারের লোকজন জানিয়েছে ।

জনসাধারনের সাথে সর্বাক্ষনিক যোগাযোগ ও মৌজাবাসীদের সাথে মেটিং জন্য হেডম্যানের নিজস্ব পকেট হতে ২০০৮ সালে ৩৬২ নং থানচি মৌজা হেডম্যান কার্যালয় হিসেবে নির্মাণ ও ব্যবহার করা হয়েছিল। ৩৬২ নং থানচি মৌজা হেডম্যান ও থানচি উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান হ্লাফসু হেডম্যান ৫ বছর নিয়মিত ব্যবহারের পর ২০১৩ সালে হেডম্যান কার্যালয়টি যে ভূমিতে নির্মিত করা হয়েছিল তার উপর ভূমি মালিকানা নিয়ে থানচি সদর ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান মরহুম মংওেয়ই মারমা এর ছেলে মংমংসিং মারমা আদালতে মামলা করা হলে আদালত ব্যবহারের উপর নিষেধাজ্হা দিলে কার্যালয়টি অব্যবহৃত রয়েছে দির্ঘদিন যাবৎ।

হ্লাফসু হেডম্যান এর পারিবারিক ছোট ভাই, উপজেলা আওয়ামী লীগের নেতা ও থানচি হেডম্যানপাড়া নিবাসী অংশৈসা মারমা সাংবাদিকদের জানান, ২০১৩ সালে ভূমি মালিকানা নিয়ে আদালতে মামলা হলে আদালত ব্যবহারের উপর নিষেধাজ্ঞা দিলে ৭ বছর ধরে অব্যবাহৃত ছিল। কে বা কারা আগুন লাগানো হয়েছে বলে দাবী করেন তিনি আরো বলেন অপব্যবহৃত বা পরিত্যক্ত থাকলে ও আগুন লাগানো মত কোন কিছু নেই। যোগাযোগ করা হলে থানচি মৌজা হেডম্যান ও থানচি উপজেলা

পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান হ্লাফসু জানান আমি গত কয়েকদিন যাবৎ বান্দরবান বাড়ীতে অসুস্থ হয়ে চিকিৎসাধীণ আছেন চিকিৎসকের পরমর্শ মতে বিশ্রামে রয়েছি তবে সুস্থ হলে ঘটনা স্থলে গিয়ে সরেজমিনে দেখবো। তিনি বলেন কার্যালয় নির্মানের সময় ৮ হতে ৯ লক্ষ টাকা আসবাবপত্রসহ খরচ হয়েছে আমার। থানচি অফিসার ইনচার্জ জোবাইরুল হক জানান পাহাড়ে পরিত্যক্ত ঘরে কেউ বিড়ি সিগারেট খেয়ে অসাবধানতা ফেলে দেয়ার কারনে আগুন লাগতে পারে আমরা অবগত আছি ।