রাঙ্গামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদের মাসিক সভা অনুষ্ঠিত

॥ নিজস্ব প্রতিবেদক ॥

রাঙ্গামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদ এর মাসিক সভা বুধবার (১৮সেপ্টেম্বর) সকালে অনুষ্ঠিত হয়েছে।

রাঙ্গামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদের সভাকক্ষে আয়োজিত সভায় সভাপতিত্ব করেন জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান বৃষ কেতু চাকমা। পরিষদের মুখ্য নির্বাহী কর্মকর্তা ছাদেক আহমদ এর পরিচালনায় অনুষ্ঠিত সভায় রাঙ্গামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদের সদস্য অংসুই প্রু চৌধুরী, পরিষদ সদস্য থোয়াইচিং মং মারমা, পরিষদ সদস্য ত্রিদীব কান্তি দাশ, পরিষদ সদস্য সান্তনা চাকমা, পরিষদ সদস্য স্মৃতি বিকাশ ত্রিপুরা, পরিষদ সদস্য রেমলিয়ানা পাংখোয়া, পরিষদ সদস্য মনোয়ারা আক্তার জাহান, পরিষদ সদস্য জ্ঞানেন্দু বিকাশ চাকমাসহ হস্তান্তরিত বিভাগের অন্যান্য কর্মকর্তাগণ উপস্থিত ছিলেন।

সভায় সভাপতির বক্তব্যে জেলা পরিষদ পরিষদ চেয়ারম্যান বৃষ কেতু চাকমা বলেন, আমাদের চিন্তায় সবসময় থাকতে হবে জনকল্যাণ এবং এজন্যেই সরকার আমাদের নিয়োগ দিয়েছেন। তিনি বলেন, উন্নতশীল দেশ গঠন ও প্রধানমন্ত্রীর স্বপ্ন বাস্তবায়নে আমাদের সকলকে সমন্বয়ের মাধ্যমে কাজ করতে হবে। পরিষদে হস্তান্তরিত বিভাগের কর্মকর্তারা যে জেলারই হোকনা কেন তাদের চিন্তা চেতনায় থাকতে হবে এ জেলার মানুষের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নের কথা। তিনি বলেন, আমরা যার যার দায়িত্ব সঠিকভাবে পালন করলে প্রধানমন্ত্রীর ভিশন ২০২১ ও ২০৪১ বাস্তবায়নের মাধ্যমে উন্নয়নশীল দেশে পরিণত করার স্বপ্ন ত্বরান্বিত হবে।

সভায় স্বাস্থ্য বিভাগের সিভিল সার্জন ডাঃ শহীদ তালুকদার বলেন, গত জুলাই/১৯ইং মাসে ম্যালেরিয়া রোগীর সংখ্যা ১৩৩৩জন হলেও এবারে আগস্ট মাসে ৯৩৯জন ছিল। সকলে চিকিৎসা গ্রহণ শেষে বাড়ী ফিরে যেতে সক্ষম হয়েছে। কোন ম্যালেরিয়া রোগীর মৃত্যু হয়নি। অন্যদিকে চলতি মাস পর্যন্ত মোট ৯৬জন ডেঙ্গু রোগী জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি হয়ে চিকিৎসা নিয়ে বাড়ী চলে যায়। গতকাল পর্যন্ত (১৭ সেপ্টেম্বর ১৯ মঙ্গলবার) ১জন রোগী সহ ৬জন ডেঙ্গু রোগী হাসপাতালে ভর্তি রয়েছে। তিনি বলেন, উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ডেলিভারী কক্ষগুলো মেরামত ও সংস্কার করায় এবং বিনামূল্যে ঔষুধপত্র বিতরণ করায় সেবা প্রত্যাশী গর্ভবতী মহিলাদের সংখ্যা বৃদ্ধি পেয়েছে। এছাড়া জেনারেল হাসপাতালে সকল স্বাস্থ্যসেবা কার্যক্রম অব্যাহত রয়েছে।

মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা উত্তম খীসা জানান, বর্তমানে ৭ম শ্রেণীতে বঙ্গবন্ধু এবং মুক্তিযুদ্ধকে জানো এ বিষয়ে ২০ নম্বরে পরীক্ষা গ্রহণ করা হচ্ছে এবং কয়েকটি স্কুলে মিড ডে মিল কার্যক্রম পরিচালনার পরিকল্পনা রয়েছে। তিনি জানান, আগামী ২৪ সেপ্টেম্বর জেলা পরিষদ সভাকক্ষে জেলার বিভিন্ন বিদ্যালয়ে সততা স্টোর খোলার জন্য অর্থ ও কিশোরীদের স্বাস্থ্য সচেতনতা বার্তাগুলো পৌছে দিতে শিক্ষকদের ল্যাপটপ প্রদান করা হবে।

কৃষি বিভাগের উপ-পরিচালক পবন কুমার চাকমা বলেন, আউশ মৌসুম প্রায় শেষ পর্যায়ে। বর্তমানে জুমের ফসল কর্তন চলছে। এবারে ব্রি ধান ৪৮ ও ৫৫ ভালো ফলন হয়েছে। এছাড়া বর্তমানে বাজারে মাল্টা ও কমলা আসতে শুরু করেছে। বাগান চাষীদের ফলের বাগান পরিচর্যায় কৃষি বিভাগ থেকে পরামর্শ প্রদান করা হচ্ছে।

পরিবার পরিকল্পনা বিভাগের উপ-পরিচালক বেগম সাহান ওয়াজ জানান, ২০১৯-২০ অর্থ বছরে সংস্কার ও মেরামতযোগ্য স্থাপনার তালিকা মন্ত্রণালয়ে প্রেরণ করা হয়েছে। রাজস্থলী উপজেলায় পরিবার পরিকল্পনার অফিস কাম স্টোর নির্মাণ কাজ চলমান রয়েছে। এছাড়া পরিবার পরিকল্পনার মাঠ পর্যায়ের কার্যক্রম চলমান রয়েছে।

যুব উন্নয়ন অধিদপ্তরের উপ পরিচালক মোঃ শহিদুল ইসলাম জানান, গত জুলাই মাস হতে ৬টি ট্রেডে প্রশিক্ষণ কার্যক্রম চলছে।

সভায় হস্তান্তরিত বিভাগের অন্যান্য কর্মকর্তাগণ তাদের বিভাগের স্ব স্ব কার্যক্রম উপস্থাপন করেন।