“পৌরবাসী যাতে মেয়রের অভাব বুঝতে না পারে সেই লক্ষ্যে কাজ করে যাচ্ছি”

॥ ইকবাল হোসেন ॥

রাঙামাটি পৌরসভার খন্ডকালীন মেয়র’র দায়িত্ব পালন করছেন ৭নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর ও প্যানেল মেয়র মো. জামাল উদ্দীন। তিনি সাময়িক এই দায়িত্ব নিয়ে তিনি অভিনব উপায়ে পৌরবাসীর সকল নাগরিক সুবিধা নিশ্চিত করতে দিনরাত এক করে কাজ করে চলেছেন। তাঁর এই ভিন্নধর্মী কার্যক্রম পৌরবাসীর মনে আশা যুগিয়েছে।

নাগরিক সুবিধা নিশ্চিত করতে তিনি পৌরসভা কর্তৃক পরিচালিত দিনের বেলায় ময়লা আবর্জনা পরিষ্কার ও ডেঙ্গু মশা নিধনের কার্যক্রম নিজে সরজমিনে উপস্থিত থেকে পর্যবেক্ষণ করছেন। এর পাশাপাশি বর্তমান পৌর পরিষদ দায়িত্ব গ্রহণের পর রাঙামাটি শহরকে পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন ও দূর্গন্ধমুক্ত রাখতে সন্ধ্যাকালীন যে আবর্জনা নিষ্কাশনের ব্যবস্থা গ্রহন করেছে। এই কার্যক্রমটিও তিনি সরজমিনে পর্যবেক্ষণ করছেন।

আজ শুক্রবার (২৭ সেপ্টেম্বর) সন্ধ্যায় রাঙামাটি শহরের বনরুপা বাজারে সন্ধ্যাকালীন ময়লা আবর্জনা পরিষ্কারের কাজ ভারপ্রাপ্ত মেয়র মো. জামাল উদ্দীন নিজে সরজমিনে উপস্থিত থেকে পর্যবেক্ষণ করেন।

এসময় তার সাথে কথা বলে জানা যায় যে, রাঙামাটি পৌরসভার ভারপ্রাপ্ত মেয়রের দায়িত্ব নেয়ার পর থেকেই তিনি পৌরবাসীকে তাদের সেবাসমূহ সঠিকভাবে প্রদানের জন্য নিরলস ভাবে পরিশ্রম করে যাচ্ছেন। এর কারণ হিসেবে তিনি জানান, যেহেতু মেয়র মহোদয় দেশের বাহিরে অবস্থান করছেন তাই পৌরবাসীর মনে যাতে এমন প্রশ্নের উদয় না হয় যে, মেয়র মহোদয় নেই বিধায় আমরা আমাদের সেবাসমূহ পাচ্ছিনা। তাই তিনি পৌরবাসীর সেবায় দিনরাত পরিশ্রম করছেন।

তিনি আরো জানান যে দায়িত্ব নেয়ার পর থেকেই তিনি তার সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম নিজের ব্যক্তিগত ফেসবুক একাউন্টের মাধ্যমে পৌরবাসীর নাগরিক সুবিধা নিশ্চিত করতে ও রুপের রাণী রাঙামাটি শহরকে পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন রাখতে ও পৌরসভার লাইটিং ব্যবস্থা সঠিক রাখতে পৌরবাসীর সহযোগিতা চেয়ে তার ব্যক্তিগত মোবাইল নম্বর দিয়ে পোস্ট করেছেন। তিনি জানান এর ফলে পৌরসভার বিভিন্ন এলাকার মানুষ তাদের এলাকার সমস্যাসমূহ তাকে মুঠোফোনের মাধ্যমে জানাচ্ছে ও তিনি তাৎক্ষনিক তাদের সমস্যা সমাধানে ব্যবস্থা গ্রহণ করছেন।