চেক প্রতারণা মামলায় কাউখালীর হেডম্যান গ্রেফতার

॥ নিজস্ব প্রতিবেদক ॥

কাউখালী উপজেলার ৯৬ নং কলমপতি মৌজার বিতর্কিত হেডম্যান অংখ্যাইচিং চৌধুরী (৩৫)কে চেক প্রতারণা মামলায় গ্রেফতার করেছে কাউখালী থানা পুলিশ। তার বিরুদ্ধে তিনটি চেক প্রতারনা মামলার ওয়ারেন্ট ছিল বলে জানিয়েছেন কাউখালী থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ শহিদ উল্ল্যাহ। এছাড়াও মোটা অংকের বিনিময়ে কাউখালীর ভুমি দূস্যূ একটি চক্রের সাথে যোগসাজস করে জায়গা জমি ক্রয় বিক্রয়ে এবং স্থায়ী বাসিন্দার সনদপত্র দেয়ার অভিযোগ রয়েছে ভুক্তভোগীদের। পুলিশ জানিয়েছে বৃহস্পতিবার তাকে আটক করে রাঙ্গামাটির আদালতে প্রেরন করা হলে সেখান থেকে তাকে জেল হাজতে পাঠানো হয়।

কাউখালী থানার পুলিশ ও সংশ্লিষ্ট সুত্র জানায় উপজেলার ৯৬ নং কলমপতি মৌজার হেডম্যান অংখ্যাইচিং চৌধুরী(৩৫) পিতা মৃত,চাইথোয়াই প্রু চৌধুরী,সাং বেতবুনিয়া দক্ষিণ পাড়া কাউখালী রাঙ্গামাটি পার্বত্য জেলার বিরুদ্বে রাঙ্গামাটি জেলা ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে ৩ টি চেক প্রতারণা মামলা রয়েছে (মামলা নং সি আর-১২২/১৫, সি আর-২১/১৭, সি আর-১১৬/১৯। এসব মামলা সে দির্ঘদিন যাবত ওযারেন্ট থাকলেও পলাতক থাকায় পুলিশ তাকে গ্রেফতার করতে পারেনী। গত বৃহস্পতিবার গোপন সংবাদের ভিত্তিতে কাউখালী থানার অফিসার ইনচার্য মোঃ শহিদ উল্ল্যা পিপিএম এর নেতৃত্বে বেতবুনিয়া পুলিশ ফাঁিড়র সহযোগিতায় সময় বেতবুনিয়ার চায়েরী বাজার হতে তাকে গ্রেফতার করেন।

বেতবুনিয়ার বাসিন্দা হাবিবুর রহমান জানিয়েছেন তার নিকট হতে প্রকল্প করার কথা বলে সাওে বার লাখ টাকা নিয়ে বিগত ৩/৪ বছর যাবত নানা ধরনের টালবাহনা শুরু করেছে। তিনি জানান সমতল এলাকা থেকে লোক এনে এখানে শিল্প প্রতিষ্টান গড়ে তোলা হবে এবং সেখানে তাকে শেয়ার দেয়ার কথা বলে এ টাকা নেয়া হয়েছে। অপরিদিকে কাউখালীর পোয়াপাড়া এলাকার বাসিন্দা মোঃ ইসমাইল জানিয়েছেন হেডম্যান তার ভাইকে ব্যবহার করে একটি ব্যাংকে চাকরী দেয়ার কথা বলে তার নিকট হতে তিন লাখ বিশ হাজার টাকা নিয়েছে। এছাড়াও সমতল এলাকা থেকে বিভিন্ন লোকজন এখানে এনে জায়গা জমি ক্রয় করতে কোন প্রকার নিয়মনীতি না মেনে সনদপত্র দিয়ে সাধারন মানুষের সাথে প্রতারনা করে আসছে বলে তারা জানিয়েছেন।

কাউখালী থানা পুলিশ আরো জানিয়েছে উক্ত হেডম্যান ক্ষমতার অপব্যবহার করে কাউখালী উপজেলার একটি ভুমিদুস্য চক্রের সাথে আতাত করে পার্বত্য এলাকার এছাড়াও মোটা অংকের বিনিময়ে কাউখালীর ভুমি দূস্যূ একটি চক্রের সাথে যোগসাজস করে জায়গা জমি ক্রয় বিক্রয়ে এবং স্থায়ী বাসিন্দার সনদপত্র দেয়ার অভিযোগ দেয়ার অভিযোগ করেছেন না প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক ভুক্তভোগী।