রাঙামাটিতে বিশ্ব জলবায়ু ধর্মঘট উপলক্ষে মানববন্ধন

॥ নাঈম ইসলাম ॥

একটাই পৃথিবী, একটাই বাংলাদেশ, বাঁচাও পৃথিবী, বাঁচাও বাংলাদেশ, বাঁচাও প্রজন্ম এই স্লোগানকে সামনে রেখে রাঙামটিতে বিশ্ব জলবায়ু ধর্মঘট উপলক্ষে সনাক-টিআইবি রাঙামাটি’র আয়োজনে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে।

শুক্রবার (২৭ সেপ্টেম্বর) সকালে রাঙামাটি জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সামনে অনুষ্ঠিত মানববন্ধনে রাঙামাটি সনাক-টিআইবি’র পক্ষ থেকে তাদের বিভিন্ন দাবি তুলে ধরা হয়।

শিল্পোন্নত দেশের প্রতিশ্রুতি রক্ষার আহব্বান সহ বৈশি^ক জলবায়ু ধর্মঘট বা গ্লোবাল ক্লাইমেট স্ট্রাইকের সাথে সংহতি প্রকাশ করে সচেতন নাগরিক কমিটি (সনাক) ও ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ (টিআইবি) রাঙামাটি পার্বত্য জেলা এই মানববন্ধন কর্মসূচীর আয়োজন করে।

উক্ত কর্মসূচী এরিয়া ম্যানেজার বেনজিন চাকমা’র তত্বাবধানে কর্মসূচী সঞ্চালনা করেন ইয়েস সদস্য বাবুল মারমা ও পূর্ণা চাকমা। এসময় ইয়েস সদস্য আবু জাফর আব্দুল্লাহ রিমন বৈশি^ক জলবায়ু ধর্মঘট উপলক্ষে সনাক-টিআইবি’র ধারণাপত্র পাঠ করেন। মানবন্ধনে সনাক, স্বজন, ইয়েস, ইয়েস ফ্রেন্ডস সদস্যবৃন্দ ও টিআইবি’র কর্মকর্তাবৃন্দ এবং বিভিন্ন শ্রেণী পেশার লোকজন অংশগ্রহণ করেন।

জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবেলায় জাতীয় বাজেট থেকে অর্থ বরাদ্দসহ বাংলাদেশ সরকারের বিভিন্ন ইতিবাচক পদক্ষেপকে জলবায়ু অর্থায়নে সুশাসন প্রতিষ্ঠায় উল্লেখযোগ্য অগ্রগতি উল্লেখ করে সনাক সভাপতি অমলেন্দু হাওলাদার এর ধারাবাহিকতা ধরে রাখাসহ এ অর্থায়ন এর সদ্বব্যবহার নিশ্চিতে সময়াবদ্ধ কার্য-পরিকল্পনা ও বাস্তবায়নে স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা প্রতিষ্ঠার ওপর জোর দেন। তিনি বলেন, প্রকল্প অনুমোদন ও তহবিল বরাদ্দে স্থানীয় ঝুঁকিকে প্রাধান্য দিয়ে তহবিল ব্যবহারে নাগরিক অংশগ্রহণ, তথ্যের উন্মুক্ততা, জবাবদিহিতা ও শুদ্ধাচার নিশ্চিত করাসহ বাস্তবায়নে নিরপেক্ষ তদারকির ব্যবস্থা করতে হবে। এছাড়া জলবায়ু অর্থায়নের সাথে বাংলাদেশের সংশ্লিষ্ট সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের কারিগরি জ্ঞান ও পেশাগত দক্ষতা অর্জনের মাধ্যমে দর-কষাকষির উৎকর্ষতা বৃদ্ধি, একে অপরকে প্রতিপক্ষ ভাবার মানসিকতা পরিহার করে বেসরকারি প্রতিষ্ঠানসমূহকে সম্পূরক ভূমিকা পালনে সহায়তা বৃদ্ধি করতে হবে। এর পাশাপাশি অভিযোজন অর্থায়নের সদ্বব্যবহার তথা জলবায়ু সংশ্লিষ্ট টেকসই উন্নয়ন লক্ষমাত্রা অর্জনে উপযোগী দক্ষ জনবল গড়ে তুলতে বাংলাদেশ সরকারকে অধিকতর সচেষ্ট হতে হবে।

উল্লেখ্য, বৈশি^ক জলবায়ু সংকটকে কেন্দ্র করে সুইডিশ কিশোরী পরিবেশবাদী এবং অ্যাকটিভিস্ট গ্রেতা থর্নবার্গ ২০ আগষ্ট ২০১৮ থেকে সেপ্টেম্বর ২০১৮ পর্যন্ত স্কুলে না গিয়ে সুইডিশ পার্লামেন্ট এর সামনে বিক্ষোভ প্রদর্শন করেন যা বিশ্বব্যাপী সাড়া ফেলে। সেই প্রতিবাদকে কিশোর কিশোরীদের মাঝে আরও ব্যাপকভাবে ছড়িয়ে দিতে এ বছর জাতিসংঘের জলবায়ু বিষযক জরুরি সম্মেলনকে সামনে রেখে ২০ ও ২৭ সেপ্টেম্বর পৃথিবীর ১২০টি দেশে বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা বিশ^ব্যাপী ধর্মঘট, গণ-প্রতিবাদ ও র‌্যালির আয়োজন করেছে, যা বৈশি^ক জলবায়ু ধর্মঘট বা গ্লোবাল ক্লাইমেট স্ট্রাইক নামে পরিচিতি লাভ করেছে। এ প্রেক্ষাপটে শিল্পোন্নত দেশের প্রতিশ্রুতি রক্ষার আহবানসহ বৈশি^ক জলবায়ু ধর্মঘট বা গ্লোবাল ক্লাইমেট স্ট্রাইকের সাথে সংহতি প্রকাশ করে ঢাকা সহ সারা দেশে সনাক-টিআইবি একই সময়ে এই মানববন্ধন কর্মসূচী পালন করেছে।