খাগড়াছড়িতে মন্দির ভিত্তিক শিশু ও গণশিক্ষা কার্যক্রম শীর্ষক কর্মশালা অনুষ্ঠিত

॥ খাগড়াছড়ি প্রতিনিধি ॥

“শিক্ষা-ধর্ম-সম্প্রীতি মশিগশির মূলনীতি” এই প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে “মানবিক মূল্যবোধ ও নৈতিকতা সম্পন্ন জাতি গঠনে মন্দিরভিত্তিক শিশু ও গনশিক্ষা কার্যক্রমের ভূমিকা” শীর্ষক জেলা কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়েছে খাগড়াছড়িতে। সোমবার সকাল সাড়ে ১০ টায় অফিসার্স ক্লাবে আয়োজন করে।

হিন্দুধর্মীয় কল্যাণ ট্রাষ্ট আয়োজিত কর্মশালার উদ্বোধন করেন হিন্দধর্মীয় কল্যাণ ট্রাষ্ট, ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের ট্রাষ্টি প্রিয়তোষ শর্মা চন্দন। এতে মন্দিরভিত্তিক শিশু ও গণশিক্ষা কার্যক্রম, হিন্দুধর্মীয় কল্যাণ ট্রাষ্ট’র উপ-প্রকল্প পরিচালক মদন চক্রবর্তীর স্বাগত বক্তব্যের মধ্য দিয়ে সহকারী প্রকল্প পরিচালক দীপঙ্কর চন্দ্র মন্ডল এর সভাপতিত্বে এতে প্রধান অতিথি ছিলেন খাগড়াছড়ি জেলা প্রশাসক প্রতাপ চন্দ্র বিশ্বাস।

প্রধান তিনি বলেন, মন্দিরভিত্তিক শিশু ও গণশিক্ষা কার্যক্রমের শিক্ষাকেন্দ্র গুলোতে প্রায় ৮০% শিক্ষক নারী। এতে করে নারীর ক্ষমতায়ন, বেকারত্ব দূরীকরণ এবং আর্থ সামাজিক উন্নয়নে বিশেষ অবদান রাখছে সরকার। যা সরকারের-২০২১ ভিশন বাস্তবায়নে সহায়ক ভুমিকা পালন করছে।

আয়োজিত কর্মশালায় বক্তব্য রাখেন,খাগড়াছড়ি অতিরিক্ত পুলিশ সুপার এম. এম. সালাহ উদ্দিন, জেলা পরিষদ সদস্য নির্মলেন্দু চৌধুরী, সদর ইউএনও শামসুন নাহার, বাংলাদেশ জন্মাষ্টমী উদযাপন পরিষদ খাগড়াছড়ি জেলা সভাপতি তপন কান্তি দে, বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদ খাগড়াছড়ি সাধারণ সম্পাদক তরুণ কুমার ভট্টাচার্য, সদর উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক চন্দন কুমার দে প্রমূখ।

খাগড়াছড়ি জেলার ৯ টি উপজেলার মধ্যে ৪৪ টি প্রাক-প্রাথমিক, ৬ টি গীতা শিক্ষা ও ৪ টি বয়স্ক শিক্ষা সর্বমোট ৫৪ টি মন্দিরভিত্তিক শিক্ষাকেন্দ্র রয়েছে। এর মধ্যে প্রাক-প্রাথমিক শিক্ষা কেন্দ্রে ১৩২০ জন, গীতা শিক্ষা কেন্দ্রে ১৬৫ জন ও বয়স্ক শিক্ষাকেন্দ্রে ১০০ জন সর্বমোট ১৫৮৫ জন শিক্ষার্থী অধ্যায়নরত রয়েছে বলে জানান। আয়োজিত কর্মশালায় ৫৪ জন শিক্ষক অংশ নেয়।