নাইক্ষ্যংছড়িতে ৫ম শ্রেণীর ছাত্রীকে যৌন হয়রানীর দায়ে শিক্ষক আটক!

নাইক্ষ্যংছড়ি প্রতিনিধি ॥

নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার ঘুমধুম সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক ইউনুছের বিরুদ্ধে পঞ্চম শ্রেণীর এক ছাত্রীকে শ্লীলতাহানির চেষ্টার অভিযোগে মামলা হয়েছে। এই ঘটনায় অভিযুক্ত ওই শিক্ষককে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। ১ অক্টোবর রাতে তাকে আটক করা হয়েছে বলে জানান পুলিশ।

এর আগে, সোমবার (৩০ সেপ্টেম্বর) সকাল সাড়ে ১১টায় ঘুমধুম সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ঘটনাটি ঘটলেও রাত ১১টায় নাইক্ষ্যংছড়ি থানায় মামলাটি রুজু করা হয়। গ্রেফতার হওয়া ওই শিক্ষকের নাম মো: ইউনুছ (৩২)। তিনি ঘুমধুম ইউনিয়নের ৫নং ওয়ার্ডের তুমব্রু পশ্চিমপাড়া গ্রামের মৃত আমির হোসেনের ছেলে। শ্লীলতাহানির শিকার ছাত্রীর পিতা রশিদ আহমদ জানান- ঘুমধুম সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে পঞ্চম শ্রেণীতে পড়ে তার মেয়ে। এর আগে অসুস্থ্যতার জন্য সমাপনী মডেল টেষ্ট পরীক্ষার তিনটি বিষয় পরীক্ষা দিতে পারেনি। সোমবার ওই পরীক্ষায় পুন: অংশগ্রহণের জন্য স্কুলে যায় তার মেয়ে। এ সময় অভিযুক্ত শিক্ষক মো: ইউনুছ (৩২) ওই ছাত্রীকে শ্রেণীকক্ষে একা পেয়ে শ্লীলতাহানির চেষ্টা করেন। পরে ওই ছাত্রী বাড়িতে এসে বিষয়টি তাকে জানায়। ঘটনার পর অভিযোগ পেয়ে বিকেলে ঘুমধুম তদন্তকেন্দ্রের পুলিশ ওই শিক্ষককে আটক করে থানায় সোপর্দ করেছে।

এই বিষয়ে সংশ্লিষ্ট স্কুলের প্রধান শিক্ষকের সাথে একাধিকবার যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও তাঁর ফোনটি বন্ধ পাওয়া যায়। এদিকে অভিযুক্ত মো: ইউনুছের চাচা নুরুল আলম ঘটনাটি ‘ষড়যন্ত্র’ বলে দাবি করে তিনি জানান- চলমান ইউপি নির্বাচনে তিনি মেম্বার পদে প্রতিদ্বন্ধিতা করছেন। নির্বাচনে প্রতিদ্বন্ধিতা ও সম্প্রতি উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কাছে একটি অভিযোগকে কেন্দ্র করে স্বার্থনেষী মহল ষড়যন্ত্রমূলক মো: ইউনুছকে ফাঁসিয়েছে। মামলার বিষয়টি নিশ্চিত করে নাইক্ষ্যংছড়ি থানা অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আনোয়ার হোসেন বলেন- ছাত্রীর পিতা রশিদ আহমদের অভিযোগের ভিত্তিতে ওই শিক্ষককে আটক করা হয়েছে। জিজ্ঞাসাবাদের পর অভিযোগটি আমলে নিয়ে মামলা নং-১০/১৯ রুজু করা হয়েছে এবং অভিযুক্ত শিক্ষককে বান্দরবান কারাগারে প্রেরণ করা হয়েছে বলে জানান।