রৈস্যাবিলি বনবিহারে কঠিন চীবর দান অনুষ্ঠিত

॥ নিজস্ব প্রতিবেদক ॥

কাউখালী উপজেলা রৈস্যাবিলি বনবিহার ও বনভাবনা কটিরে ১৬ তম কঠিন চীবর দান অনুষ্ঠিত হয়েছে। এতে রাজবন বিহার সহ বিভিন্ন বিহার থেকে ভিক্ষু সংঘ আগত পুন্যশংকর চাকমা ধর্মীয় সংগীত পরিবেশনায় পঞ্চশীল প্রার্থনা এবং কঠিন চীবর দানোৎসব করা হয়। কঠিন চীবর দান উপলক্ষে উপাস্থিত দায়ক-দায়িকাদের কে ধর্ম দেশনা প্রদান করেন। বৌদ্ধ ভিক্ষুরা বলেন, বৌদ্ধ ধর্ম ঘরে ঘরে জাগ্রত করতে হবে।

কঠিন চীবর দানোৎসব মূলত বৌদ্ধ ধর্মবলম্বীদের অন্যতম প্রধান ধর্মীয় অনুষ্ঠান। আষাঢ়ি পূর্ণিমার পর দিন থেকে বৌদ্ধ ভিক্ষুদের তিন মাসব্যাপী ওয়া বা বর্ষাব্রত (উপোষ) পালন শুরু হয়। তিন মাস পর হয় প্রবারণা পূর্ণিমা । তার পর থেকে বিহারে শুরু হয় কঠিন চীবর দানোউৎসব।

২৪ ঘন্টার মধ্যে তুলা থেকে সুতা তৈরি ও সেই সুতায় চীবর তৈরি করা হয়ে থাকে। সেই সাথে ফুস্য মহাস্থবির অধ্যক্ষ ত্রিরতœাংকুর বনবিহার, পোয়াপাড়া, কাউখালী, রাঙ্গামাটি ও পন্থক মহাস্থবির অধ্যক্ষ বেনুবন অরন্য কুটির, জুরাছড়ি, নানিয়াচর, রাঙ্গামাটি ভিক্ষুদের কে মহাস্থবির বরণ করা হয়। উক্ত অনুষ্ঠানে উপস্থাপনা করেন রুপম তঞ্চঙ্গ্যা, কবিতা চাকমা ও চুমকি চাকমা।